ডাকাতিতে বাধা দেয়ায় ভ্যানচালক জবাই : বোমায় আহত তিন

মেহেরপুর গাংনীর গরিবপুর ডাকাতদলের হানা : প্রতিরোধ করতে গিয়ে বিপত্তি 

গাংনী প্রতিনিধি: মেহেরপুর গাংনী উপজেলার গরিবপুর গ্রামে ডাকাতি প্রতিরোধ করতে গিয়ে প্রাণ হারিয়েছেন বাচ্চু মিয়া (৩৫) নামের এক ভ্যানচালক। ডাকাত সদস্যরা  ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাকে জবাই করে খুন করেছে। ডাকাতের ছোড়া বোমাঘাতে আহত হয়েছেন গ্রামের আরও তিনজন। গতরাত একটার দিকে এ ঘটনা ঘটে। বাচ্চু মিয়া ওই গ্রামের জয়েন উদ্দীনের ছেলে।

স্থানীয়সূত্রে জানা গেছে, রাত একটার দিকে ৩৫/৪০ জনের একদল সশস্ত্র ডাকাত গ্রামের মান্নাত আলীসহ কয়েকজনের বাড়িতে প্রবেশের চেষ্টা করে। বাড়ির লোকজন সজাগ থাকায় তারা ঘরে প্রবেশ করতে পারছিলো না। অনেকেই ঘরের ছাদে উঠে তাদের উদ্দেশে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে। উভয়পক্ষের মধ্যে বাগবিতণ্ডা চলছিলো। এক পর্যায়ে গ্রামের কিছু মানুষ একত্রিত হয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলে। এ সময় ডাকাতদলের সদস্যরা বাচ্চু মিয়াকে ধরে ধারালো অস্ত্র দিয়ে জবাই করে খুন করে। তার হাতেও ধারালো অস্ত্রের জখম রয়েছে। প্রতিরোধকারীদের উদ্দেশে কয়েকটি বোমা নিক্ষেপ করে পালিয়ে যায় ডাকাতদলের সদস্যরা। বোমায় জখম হন গ্রামের আব্দুর রাজ্জাক, আব্বাস আলী ও মান্নাত আলী। আহতদের সন্ধানী হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্সযোগে হাসপাতালের উদ্দেশে তুলে দেয়া হয় বলে জানায় গ্রামের কয়েকজন। তবে তাদের কোন হাসপাতালে নেয়া হচ্ছে তা নিশ্চিত করে বলতে পারেনি তারা। ডাকাতরা চলে গেলে নিজ বাড়ির পাশে থেকে বাচ্চুর লাশ উদ্ধার করে গ্রামবাসী। খবর পেয়ে পুলিশের কয়েকটি দল ঘটনাস্থলে পৌঁছায়।

গ্রামের কয়েকজন জানিয়েছেন, সম্প্রতি গরিবপুর গ্রামে আশঙ্কাজনকহারে চুরির ঘটনা বেড়ে গিয়েছে। কয়েকটি ডাকাতিও হয়েছে। গ্রামটি ছোট হলেও সব মানুষ একত্রিত থাকায় ডাকাতদলের সদস্যরা কিছুতেই সুবিধা করতে পারছিলো না। ডাকাত কিংবা চোর প্রতিরোধে সবাই প্রতিবাদী হয়ে ওঠে। রাতে হামলা হলে প্রতিরোধের সব পরিকল্পনা ছিলো গ্রামের মানুষের। গ্রামের প্রতিটি বাড়ির মানুষের সজাগ পাহারার কারণে কয়েকবার হানা দিয়ে ডাকাতি করতে ব্যর্থ হয়। এসবকে কেন্দ্র করে গ্রামের মানুষের সাথে ডাকাতদলের সদস্যদের মুখোমুখি অবস্থান চলছিলো। ডাকাতি নয় প্রতিশোধ পরায়ণ হয়ে ডাকাতদলের সদস্যরা এ হত্যাকাণ্ড চালিয়েছে বলে মনে করছে ভুক্তভোগীসহ গ্রামের সাধারণ মানুষ।

গাংনী থানার ওসি মাসুদুল আলম জানিয়েছেন, লাশের ময়নাতদন্তের প্রক্রিয়া চলছে। ডাকাতদের গ্রেফতারের অভিযানও চলছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *