জাফরপুর গ্রামে জমজমাট গাঁজা ফেনসিডিলের ব্যবসা : পুলিশ নীরব!

ষ্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গা সদর শঙ্করচন্দ্র ইউনিয়নের জাফরপুর গ্রামে জমজমাটভাবে গাঁজা ফেনসিডিলের ব্যবসা চললেও পুলিশ নীরব ভূমিকা পালন করছে।

এলাকাবাসীসূত্রে জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গা সদরের শঙ্করচন্দ্র ইউনিয়নের জাফরপুর মোড়ে প্রতিদিন বিকেলে বসছে জমজমাট জুয়ার আসর। আর এখানে প্রতিদিন মানুষ টাকার বিনিময়ে জুয়া খেলতে গিয়ে খুইয়াচ্ছে অর্থসম্পদ। তারা জুয়ার টাকা জোগাড় করতে গিয়ে চুরি ছিনতাইসহ জড়িয়ে পড়ছে নানা ধরনের অপকর্মে। এদিকে হরিজন সম্প্রদায়ের (সুইপার) কাছ থেকে বাংলা মদ কিনে জেলা স্টেডিয়ামের সামনে গণসাহায্য সংস্থার সিঁড়িতে প্রতিদিন রাতে বসে মদের জমজমাট আসর। গ্রামের বাইরে থেকে আসা উঠতি বয়সী ছেলেরা বাংলা মদ খেয়ে গ্রামের ভেতর অকথ্য ভাষা গালিগালাজ করে। গ্রামের কয়েকটি দোকানে প্রকাশ্যে খোলামেলাভাবে গাঁজা বিক্রি করলেও দেখার কেউ নেই। দোকানদার বিল্লালের দোকানে সন্ধ্যা নামার সাথে সাথে এলাকার রফিক, প্রদিপ, মিনার, নজরুল, সাহাবুদ্দিনসহ কিছু চিহ্নিত গাঁজাসেবী আসর বসায়। মোসা ও বাবুল ধাবক তার দোকানে নিয়মিত গাঁজা বিক্রি করে আসছে। বাড়িতে বসে গাঁজার আসর বসায় খলিল ও আক্কাস। পুলিশ তাদের কয়েকবার ধরলেও টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দেয়। মাদকদ্রব্য আইনে খলিল ও তার বউকে পুলিশ ধরলেও তারা ছাড়া পেয়ে আবার চালাতে থাকে গাঁজার ব্যবসা। জমজমাট গাঁজা ফেনসিডিলের ব্যবসা চললেও পুলিশ নীরব ভূমিকা পালন করছে। ফলে এলাকার উঠতি বয়সী ছেলেরা ঝুঁকে পড়ছে মাদকসহ নানা ধরনের সমাজবিরোধী কাজে। এ ব্যাপারে এলাকার সচেতন মানুষ পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা করছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *