জাতীয় গণহত্যা দিবস উপলক্ষে চুয়াডাঙ্গা-মেহেরপুরসহ সারাদেশে বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত

দিনটি আন্তর্জাতিকভাবে পালনের জন্য স্বীকৃতি আদায় করতে হবে
স্টাফ রিপোর্টার: জাতীয় গণহত্যা দিবস উপলক্ষে চুয়াডাঙ্গা-মেহেরপুরসহ সারাদেশে বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে আলোচনাসভা, মোমবাতি প্রজ্জ্বলন ও আলোকিচিত্র প্রদর্শনী করা হয়েছে। আলোচনাসভায় গণহত্যা দিবসের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দাবি জানিয়ে বক্তারা বলেন, একাত্তরের ২৫ মার্চ কালরাতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী নিরীহ ঘুমন্ত বাঙালি জাতিকে নিঃশেষ করে দেয়ার ষড়যন্ত্র করেছিলো। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাঙালি জাতি স্বাধীনতার সূর্যকে ছিনিয়ে আনতে সক্ষম হয়। বর্তমান সরকার ভয়াল ২৫ মার্চের রাতকে জাতীয় গণহত্যা দিবস হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে। এখন দিনটিকে আন্তর্জাতিকভাবে পালনের জন্য এর স্বীকৃতি আদায় করতে হবে। বক্তারা বলেন, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের মতো বাংলাদেশের গণহত্যা দিবসকেও আন্তর্জাতিকভাবে পালনের উদ্যোগ নিতে হবে। সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে যে যার জায়গায় থেকে এ স্বীকৃতি আদায়ের জন্য কাজ করে যেতে হবে। জেলা প্রশাসন ছাড়াও বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন দিনটি স্মরণে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে।
জাতীয় গণহত্যা দিবস উপলক্ষে চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে। গতকাল রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় দলীয় কার্যালয়ে জমায়েত শেষে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করে শহীদ স্মৃতি সৌধে গমন করে। পরে সংক্ষিপ্ত আলোচনাসভার আয়োজন করা হয়। সভাপতিত্ব করেন জাতীয় সংসদের হুইপ চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন এমপি। বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি নাসির উদ্দীন আহমেদ, খুস্তার জামিল, যুগ্মসাধারণ সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার টোটন, অ্যাড. শামশুজ্জোহা, সাংগঠনিক সম্পাদক মুন্সী আলমগীর হান্নান, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক নুরুল ইসলাম মালিক, পৌর আওয়ামাী লীগের সম্পাদক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দীন হেলা, মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী কহিনুর বেগম, শ্রমিক লীগের সভাপতি আফজালুল হক বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক রিপন ম-ল, জেলা আওয়ামী যুবলীগের আহ্বায়ক নঈম হাসান জোয়ার্দ্দার, জেলা ছাত্রলীগের সিনিয়র সহসভাপতি শাহাবুল হোসেন। আরও উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ফেরদৌসওয়ারা সুন্নাহ, দফতর সম্পাদক অ্যাড. আবু তালেব বিশ্বাস, যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক আরশাদ উদ্দীন আহমেদ চন্দন, বিজ্ঞান প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক অ্যড. তালিম হোসেন, কোষাধ্যক্ষ আলী রেজা সজল, সদস্য অ্যাড. বেলাল হোসেন, পৌর মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নাবিলা রুকসানা ছন্দা, জেলা যুবলীগের সদস্য রেজাউল করিমসহ বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের নেতৃবন্দ।
২৫ মার্চ জাতীয় গণহত্যা দিবস উপলক্ষে চুয়াডাঙ্গায় আলোকচিত্র প্রদর্শনী ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
গতকাল রোববার সকাল সাড়ে ১০টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমির মুক্তমঞ্চে ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। জেলা প্রশাসনের আয়োজনে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক। প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক জিয়াউদ্দীন আহমেদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. তরিকুল ইসলাম, সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর সিদ্দিকুর রহমান, এসএম ই¯্রাফিল ও বীরপ্রতীক সুবেদার মেজর খোন্দকার সাইদুুর রহমান প্রমুখ। আলোচনা শেষে আলোকচিত্র প্রদর্শন করা হয়। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজের বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মুন্সি আবু সাইফ।
এদিকে, দিবসটি উপলক্ষে চুয়াডাঙ্গা জেলা কৃষকলীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগ মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করা হয়েছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আসাদুল হক বিশ্বাস, সাবেক ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. শফিকুল ইসলাম শফি, জেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান কবির, জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক জিল্লুর রহমান, জেলা কৃষকলীগের সহসভাপতি তৌহিদুর রহমান, আক্তার হোসেন, ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইসাহাক হোসেন, সহআইন বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল খালেক, থানা ছাত্রলীগের আহবায়ক আব্দুল মতিন দুদু, কৃষকলীগের দফতর সম্পাদক রাকিব হোসেন জনি, সহপ্রচার সম্পাদক জাকারিয়া, সদস্য দেলোয়ার হোসেন, দয়াল, ময়েন, যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য শরিফ হোসেন দুদু, যুবলীগ নেতা রাজ্জাক, বিপ্লব, ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জানিফ, যুগ্মসাধারণ সম্পাদক মো. জ্যাকি, ছাত্রলীত নেতা মাফিজুর রহমান মাফি ও নাঈম পারভেজ সজল।
অপরদিকে, ২৫ মার্চ কালরাত্রি স্মরণে ও ‘গণহত্যাদিবস’ উপলক্ষে গতকাল এমএ বারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে আলোকচিত্র প্রদশর্নী ও প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শনের আয়োজন করে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। বিদ্যালয়ের নিয়মিত শ্রেণি কার্যক্রমের পাশাপাশি বিদ্যালয় চত্বরে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর কর্তৃক সরবরাহকৃত ১০০টি আলোকচিত্র প্রদর্শন করা হয়। এছাড়া বিদ্যালয়ের মাল্টিমিডিয়া শ্রেণিকক্ষে দুটি প্রামাণ্যচিত্র সেই কালরাতের কথা বলতে এসেছি এবং একাত্তরের গণহত্যা ও বধ্যভূমি প্রদর্শন করা হয়।
বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী চুয়াডাঙ্গা জেলা সংসদ ও অরিন্দম সাংস্কৃতিক সংগঠনের আয়োজনে ২৫ মার্চ জাতীয় গণহত্যা দিবস উপলক্ষে আলোচনাসভা ও আবৃত্তি অনুষ্ঠান হয়েছে। গতকাল বিকেল ৫টায় ২৫ মার্চ আন্তজার্তিক গণহত্যা দিবস ঘোষণার দাবিতে সোচ্চার হই, আঁধারের বিরুদ্ধে আলোর যাত্রা-যুদ্ধবিরেধী শান্তির কাব্য কথা ‘সেøাগানকে সামনে রেখে চুয়াডাঙ্গা শহীদ হাসান চত্বরে আলোচনাসভায় বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ চুয়াডাঙ্গা উদীচীর উপদেষ্টা বীর মুক্তিযুদ্ধা অ্যাড.শহিদুল ইসলাম, সাবেক চুয়াডাঙ্গা জেলা মুক্তিযুদ্ধা কমান্ডার নুরুল ইসলাম মালিক, বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী চুয়াডাঙ্গা জেলা সংসদের সাধারণ সম্পাদক হাবিবি জহির রায়হান, প্রগতি লেখক সংঘের সাধারণ সম্পাদক কাজল মাহমুদ, অরিন্দমের সহসভাপতি আব্দুস সালাম।
অধিকারকর্মী মেহেরাব্বিন সানভী ও সৌম্যজিতা শ্রুতির যৌথ উপস্থাপনায় মুক্তিযুদ্ধ গণহত্যা বিষয়ক আবৃত্তি করেন শাওন কুমার রায়, তাসলিমা সুলতানা, আখি তারা, শ্রীদাম কুমার রায়, তন্ময় কুমার, আব্দ্লুাহ আল জোবায়ের, মাহির তাজওয়ার, ইদ্রিস ম-ল, সাগর, মোল্লা মাহবুব, সোহাসিনী, এমএ হামিদ, আবু সাঈদ, মুরশীদ প্রমুখ।
আলমডাঙ্গা বু্যুরো জানিয়েছে, ১৯৭১ সালের শহীদদের স্মরণে ২৫ মার্চ গণহত্যা শুরুর দিনটিকে গণহত্যা দিবস হিসেবে সারাদেশের সঙ্গে আলমডাঙ্গাও পালিত হয়েছে। এই উপলক্ষে রোববার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে আলমডাঙ্গা বধ্যভূমিতে ফুলেল শ্রদ্ধা জানান উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা পরিষদ, আলমডাঙ্গা পৌরসভা, আলামডাঙ্গা থানা পুলিশসহ বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয় সেখানে। এর পরে ৭১ সালের স্বাধীনতাযুদ্ধে বীর শহীদদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনায় বিশেষ দোয়া করা হয়।
পরে উপজেলা পরিষদের হলরুমে ২৫ মার্চ গণহত্য দিবস উপলক্ষে আলোচনাসভা, গীতিনাট্য, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। আলোচনাসভায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাহাত মান্নানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান হেলাল উদ্দিন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা শেখ ময়নদ্দিন, নুর মোহাম্মদ জকু, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী খালেদুর রহমান অরুন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শামীম আরা, সহকারী ভূমি কমিশনার সীমা শারমিন, কৃষি অফিসার একেএম হাসিবুল হাসান, ভেটেরিনারি সার্জন ডা. আব্দুল্লাহিল কাফি, অফিসার ইনচার্জ আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান, পল্লি বিদ্যুতের ডিজিএম রমেন্দ্র চন্দ্র রায়। সমাজসেবা অফিসার আবু তালেবের উপস্থাপনায় উপস্থিত ছিলেন পরিবার পরিকল্পনা অফিসার আব্দুস সাত্তার, প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মৃনাল কান্তি সরকার, মৎস্য কর্মকর্তা এজেডএম তৌহিদুর রহমান, নির্বাচন অফিসার আবু আনসার, উপজেলা পল্লি উন্নয়ন কর্মকর্তা শায়লা শারমিন, সহকারী পল্লি উন্নয়ন কর্মকর্তা মিজানুর রহমান। সন্ধ্যায় বধ্যভূমিতে শহীদদের স্মরণে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার আজাদ জাহান, উপজেলা চেয়ারম্যান হেলাল উদ্দিন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী খালেদুর রহমান অরুন, সহকারী ভূমি কমিশনার সীমা শারমিন, আলমডাঙ্গা থানা অফিসার ইনচার্জ আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান, সমাজসেবা অফিসার আবু তালেব প্রমুখ।
এছাড়াও আলমডাঙ্গা পৌরসভাও যথাযথ মর্যাদায় দিনটি পালন করেছে। এই উপলক্ষে সকাল ৯টার শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয় সেখানে। এরপরে ৭১ সালের স্বাধীনতাযুদ্ধে বীর শহীদদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনায় বিশেষ দোয়া করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন পৌর মেয়র হাসান কাদির গনু, কাউন্সিলর সদর উদ্দিন ভোলা, আলাল আহমেদ, জহুরুল ইসলাম স্বপন, আলী আজগর সাচ্চু, মতিয়ার রহমান ফারুক, আব্দুল গাফফার, মানুনুর রশিদ হাসান, জাহিদুল ইসলাম, ফারুক হোসেনসহ পৌরসভার সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ।
এদিকে আলমডাঙ্গা ডিগ্রি কলেজ, হারদী এমএস জোহা কলেজ, মীর শামসুল ইসলাম পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট, হাটবোয়ালিয়া মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, হাটবোয়ালিয়া স্কুল অ্যান্ড কলেজ, আলমডাঙ্গা পাইলট বহুমুখী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, পাইলট মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, এরশাদপুর একাডেমি, এম সবেদ আলী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, পাইকপাড়া জনকল্যাণ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কুমারী ইউনিয়ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বেলগাছি মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রমুখ।
দর্শনা অফিস জানিয়েছে, ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী নিরস্ত্র দেশবাসীর ওপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে গণহত্যার এক নৃশংসতম অধ্যায়ের সূচনা করে। হানাদার বাহিনীর এই আক্রমণের মুখে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের মানুষ সংঘবদ্ধ হয়ে ঘুরে দাঁড়ায়। গড়ে তোলে মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন বাহিনী ও সেক্টর। ভয়াল এ দিনটি জাতীয় গণহত্যা দিবস হিসেবে সারাদেশে যথাযথ মর্যাদার সাথে পালিত হয়ে থাকে। সকালে দর্শনা পৌর আ.আলীগের কার্যালয়ে জাতীয়, দলীয় ও শোক পতাকা উত্তোলন করা হয়। বিকেলে অনুষ্ঠিত হয় শোকসভা। রাত ৯টায় সারাদেশের ন্যায় দর্শনায় বিদ্যুতবিহীন অবস্থায় মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করা হয়। দর্শনা পৌরসভার আয়োজনে সন্ধ্যায় দর্শনা রেলবাজার ফুলতলা চত্বরে গণহত্যা দিবসের আলোচনাসভার সভাপতিত্ব করেন, পৌর মেয়র মতিয়ার রহমান। আলোচনা করেন, চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসক, দামুড়হুদা উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান মঞ্জু, চুয়াডাঙ্গা জেলা কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি অ্যাড. শহিদুল ইসলাম, জেলা ওয়ার্কসপার্টি নেতা সৈয়দ মজনুর রহমান, জেলা আ.লীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক হাজি জয়নাল আবেদীন, হাজি আকমত আলী, হাজি এরশাদ মাস্টার, বীর মুক্তিযোদ্ধা রুস্তম আলী, লিয়াকত আলী, জাহাঙ্গীর আলম, বিল্লাল হোসেন, বদরুল আলম ফিট্টু। জাহাঙ্গীর আলম লুল্লুর উপস্থাপনায় আরও উপস্থিত ছিলেন, অ্যাড. শাহজাহান, হাজি জাহিদুল ইসলাম প্রমুখ। ৯টা ১ মিনিটে দর্শনা পৌর আ.লীগের কার্যালয়ে আ.লীগ, ছাত্রলীগ ও যুবলীগের আয়োজনে বিদ্যুতবিহীন মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করা হয়। সংক্ষিপ্ত আলোচনাসভায় উপস্থিত ছিলেন, আ.লীগ নেতা হাজি জয়নাল আবেদীন, গোলাম ফারুক আরিফ, জাহিদুল ইসলাম, যুবলীগ নেতা মামুন খান, দিপু রেজা, শফি কামাল, হায়দার আলী, তপন, আমিরুল ইসলাম, দামুড়হুদা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আরিফ মল্লিক, দর্শনা পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম ববি, কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি নাহিদ পারভেজ, সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জেল হোসেন তপু, লোমান, অপু সরকার, রায়হান, আলামিন, প্রভাত প্রমুখ। রাত ১২টা ১ মিনিটে দর্শনা পৌর আ.লীগের কার্যালয়ে চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য হাজি আলী আজগার টগরের নেতৃত্বে আ.লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের নিয়ে তপধ্বনি করা হয়।
দামুড়হুদা প্রতিনিধি জানিয়েছেন, দামুড়হুদায় ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে আলোচনাসভা অনষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল রোববার সকাল ১০টায় উপজেলা পরিষদ হলরুমে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ওই আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো.রফিকুল হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনাসভায় উপস্থিত ছিলেন দামুড়হুদা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজুল আলম ঝন্টু, উপজেলা কৃষি অফিসার সুফী মোহা. রফিকুজ্জামান, উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মশিউর রহমান, মৎস্য অফিসার আইয়ুব আলী, সমাজসেবা অফিসার ছানোয়ার হোসেন, উপজেলা প্রকৌশলী মাহবুব উল হক, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা হোসনে জাহান ববি, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুল মতিন, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আয়েশা খাতুন, সমবায় অফিসার অশোক কুমার বিশ্বাস, কুড়–লগাছি ইউপি চেয়ারম্যান শাহ মোহা. এনামুল করীম ইনু, সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার এসএম তাজকীর আহমেদ প্রমুখ।
কার্পাসডাঙ্গা প্রতিনিধি জানিয়েছেন, দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ( হুইপ গ্রুপ) এর পক্ষ থেকে রাত ১২টার পর তপধ্বনি করা হয়। এরপর ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবসের স্বীকৃতের দাবিতে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। আরামডাঙ্গা বটতলা প্রাঙ্গণে শিক্ষক আলাউদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা মজিবর রহমান, গোলাম রসুল, শহিদুল মালিতা, বদিউজ্জামান, সাজেদুল বিশ্বাস মিঠু, আ. হাকিম, সাইদুল, আমির হোসেন, জহির হোসেন, দেলোয়ার হোসেন, সামসুল হক, সুমন, লিয়াকত আলী, নওসাদ আলী, রহমত আলী, আব্দুল গনি, আকমান, আ. আলীম, মধু বিশ্বাস, মনতাজ, রবিউল, বুলবুল, সামসুল, নজরুল, রফিক, তুহিন, ফারুক, জসিম, সাদিকুল, মামুন, শহিন, জিয়ার, খোরশেদ, মিরাজ, সফিকুল, হারুন অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন যুবলীগনেতা সাজেদুল বিশ্বাস মিঠু।
মেহেরপুর অফিস জানিয়েছে, ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস পালন উপলক্ষে সকল শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করা হয়েছে। মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক ফরহাদ হোসেনের নেতৃত্বে গতকাল রোববার সন্ধ্যায় শহীদ ড. সামসুজ্জোহা পার্কের শহীদ বেদীতে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করা হয়। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুল হালিম, আব্দুস সামাদ বাবলু বিশ^াস, বাংলাদেশ যুব মহিলা লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সৈয়দা মোনালিসা ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক কেএম আতাউল হাকিম লাল মিয়া, আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. পল্লব ভট্টাচার্য, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. ইব্রাহীম শাহীন, অধ্যাপক হাসানুজ্জামান মালেক, জেলা আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার সম্পাদক শাশ্বত নিপ্পন, উপ-দফতর সম্পাদক গোলাম কিবরীয়া বুলু, জেলা যুব মহিলালীগের সভাপতি সামিউন বাসিরা পলি, সদর উপজেলা যুব মহিলালীগের সভাপতি লতিফন নেছা লতা প্রমুখ। এছাড়া শহীদ সামসুজ্জোহা পার্কে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে গণহত্যা দিবস পালন উপলক্ষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
এদিকে গণহত্যা দিবস উপলক্ষে এদিন সকাল ১০টার দিকে জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত আলোচনাসভায় প্রধান অতিথি ছিলেন মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক ফরহাদ হোসেন। সভাপতিত্ব করেন মেহেরপুরের জেলা প্রশাসক পরিমল সিংহ। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার আনিছুর রহমান, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ গোলাম রসুল, মেহেরপুর সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ একেএম সোলাইমান আলী, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শেখ ফরিদ আহমদ, মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আব্দুল হালিম, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক কেএম আতাউল হাকিম এবং সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বশির আহম্মেদ প্রমুখ।
এদিকে গণহত্যা দিবস পালন উপলক্ষে শহীদ স্মৃতিসৌধে পুষ্পমাল্য অর্পণ করলেন জেলার মুক্তিযোদ্ধারা। এদিন সকালে শহরের কলেজ মোড়ে শহীদ স্মৃতিসৌধে এ পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। মুক্তিযোদ্ধার পক্ষে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুল হালিম, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক কেএম আতাউল হাকিম লাল মিয়াসহ অন্যান্য মুক্তিযোদ্ধাবৃন্দ। এছাড়াও গতকাল রোববার সন্ধ্যায় মেহেরপুর শহীদ ড. সামসুজ্জোহা পার্কে চিত্র প্রদর্শনী শুরু হয়। প্রদর্শনীতে মুক্তিযুদ্ধকালীন বিভিন্ন ছবি স্থান পেয়েছে।
গাংনী প্রতিনিধি জানিয়েছেন, একাত্তরের ২৫ মার্চ কালোরাত্রির ভয়াবহতা স্মরণ করছে গোটা জাতি। এরই আলোকে মেহেরপুর গাংনী উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আলোচনাসভা ও প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল রোববার সকালে উপজেলা পরিষদ চত্বরে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ইউএনও বিষ্ণুপদ পাল। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মেহেরপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এমএ খালেক, গাংনী উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সাহিদুজ্জামান খোকন, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মুন্তাজ আলী ও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মীর হাবিবুল বাসার।
মুজিবনগর প্রতিনিধি জানিয়েছেন, মেহেরপুরের মুজিবনগর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ২৫মার্চ গণহত্যা দিবস পালন করা হয়েছে। গতকাল রোবববার ১০টায় মুজিবনগর উপজেলা মিলনায়তনে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদা আক্তারের সভাপতিত্বে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আনোয়ার হোসেনের সঞ্চলানায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মুজিবনগর থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই সুব্রত কুমার পাল, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও বাগোয়ান ইউপি চেয়ারম্যান আয়ূব হোসেন, উপজেলা কৃষি অফিসার মুহ. মোফাক্খারুল ইসলাম, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান, উপজেলা যুব উন্নয়ন অফিসার বিপ্লব কুমার কুন্ডু, বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাড. কলিমউদ্দীন, হাজি আহসান আলী খাঁন, আফজাল হোসেন। বিকেল উপজেলা মিলনায়তনে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।
আমঝুপি প্রতিনিধি জানিয়েজেন, আমঝুপি ইউনিয়নের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের আয়োজনে র‌্যালি ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। আমঝুপি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের আয়োজনে সকাল ১০টার দিকে বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে জাতীয় গণহত্যা দিবসের করুণ চিত্র তুলে ধরা হয়। আলোচনাসভায় সভাপতিত্ব করেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আহাম্মদ আলী। প্রধান অতিথি ছিলেন আমঝুপি ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বোরহান উদ্দিন আহাম্মদ। মুক্তিযোদ্ধাদের বিভিন্ন যুদ্ধকালীন ইতিহাস তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মতিউর রহমান। এদিকে মোমিনপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের আয়োজনে প্রধান শিক্ষক মীর মাহাবুবুর রহমান খোকনের নেতৃত্বে এক র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়। পরে বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। এখানে বিদ্যালয়ের শিক্ষক, ছাত্রছাত্রী অংশগ্রহণ করে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *