চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে চোর ছিনতাইকারীর উৎপাত লেগেই আছে

শিশুর গলা থেকে চেন ছিড়ে নিয়ে চম্পট মহিলা

 

স্টাফ রিপোর্টার: এবার ওষুধ বা টাকা নয়, ছিনতাই হয়েছে শিশুর গলায় থাকা সোনার চেন। গতপরশু দুপুরে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে শিশুকে একা পেয়ে তার গলায় থাকা সোনার চেন এক মহিলা ছিনিয়ে নিয়ে সটকে পড়ে।

সোনার চেন গলায় দেয়া শিশু একা কেন? সোনার চেনের সাথে সাথে শিশুর জীবনটাও তো বিপন্ন হতে পারতো? ভাগ্যিস পাষানি শিশুর প্রাণটা নেয়নি। গতপরশু দুপুরে শিশুর গোলা থেকে সোনার চেন ছিনতাইয়ের খবর জানাজানি হলে স্থানীয়দের অনেকেই এসব মন্তব্য করেন।

জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গা দামুড়হুদার কানাইডাঙ্গার আজিজুল হক অসুস্থ। চিকিৎসার জন্য গত ১৩ নভেম্বর চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ১৫ নভেম্বর ৪ বছরের শিশু মিমকে সাথে নিয়ে তার মা আসনে শিশুর দাদা আজিজুলকে দেখতে। সাথে আরো আত্মীয়স্বজন ছিলো। রোগীর পাশে বড়রা যখন আলোচনায় ব্যস্ত, তখন শিশু মিম তার এক ফুফাতো ভাইয়ের সাথে খেলতে গিয়ে বাইরে বের হয়। ফুফাতোভাইও ছোট। শিশুর গলায় সোনার চেন, পাশে বড় কেউ নেই। সুযোগ পেয়ে মহিলা ছিনতাইকারী শিশুকে হাসপাতালের দোতালায় তুলে নেয়। সেখানে নেয়ার পর গলায় থাকা ৫ আনা সোনার চেনটি ছিড়ে নিয়ে সটকে পড়ে। শিশু কাঁদতে শুরু করে। শিশুর কান্না শুনে তার মাসহ সাথে থাকা নিকটজনদের টনক নড়ে। খোঁজ খোঁজ করে আর খুঁজে পাওয়া যায়নি ছিনতাইকারী মহিলাকে।

উল্লেখ্য, চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে দীর্ঘদিন ধরেই ওষুধপথ্য টাকাসহ মূল্যবান মালামাল চুরির ঘটনা ঘটছে। এবার ঘটলো শিশুর গলায় থাকা সোনার চেন ছিনতাইয়ের ঘটনা।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *