চুয়াডাঙ্গা ভি.জে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক এসএম মসলেম উদ্দীনের ইন্তেকাল : আজ দাফন

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গা ভি.জে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক এসএম মসলেম উদ্দীন আর নেই। গতরাত সোয়া ৯টার দিকে তিনি চুয়াডাঙ্গা সিনেমাহলপাড়াস্থ নিজ বাসভবনে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি (ইন্নালিল্লাহে…. রাজেউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৭৭ বছর। দুর্ঘটনায় আহত হয়ে দীর্ঘ প্রায় ৫ বছর ধরে তিনি অসুস্থ জীবনযাপন করছিলেন তিনি। আজ বাদ জুম্মা চুয়াডাঙ্গা জান্নাতুল মওলা কবরস্থান জামে মসজিদে জানাজা শেষে দাফনকাজ সম্পন্ন করা হবে।

এসএম মসলেম উদ্দীন ১৯৯৪ সালে চুয়াডাঙ্গা ভি.জে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্বপালন শেষে অবসর গ্রহণ করেন। তিনি বাংলাদেশ স্কাউটসের চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি হিসেবে দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করেন। শিক্ষক হিসেবে তিনি সর্বজন শ্রদ্ধেয়। তার মৃত্যুর খবর গতরাতে ছড়িয়ে পড়লে তার ছাত্রসহ নিকটজনদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। প্রিয় শিক্ষককে শেষবারের মতো দেখতে রাতেই অনেকে তার সিনেমহালপাড়াস্থ বাসায় ছুটে যান।

কুষ্টিয়া কুমারখালীর মরহুম ঝড়ু শেখের ছেলে এসএম মসলেম উদ্দীন শিক্ষকতা দিয়েই কর্মজীবন শুরু করেন। তিনি কর্মজীবনের অধিকাংশ সময়ই ভি.জে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। সহকারী শিক্ষক হিসেবে শিক্ষকতা শুরু করে তিনি সহকারী প্রধান শিক্ষক ও দীর্ঘদিন ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করেন। অবসর গ্রহণের আগে তাকে প্রধান শিক্ষক হিসেবে পদোন্নতি দিয়ে সাতক্ষীরায় বদলির আদেশ দিলেও তিনি সে পদোন্নতি না নিয়ে ভি.জে স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালনের মধ্যদিয়ে কর্মজীবনের ইতি টানেন।

মৃত্যুকালে এসএম মসলেম উদ্দীন দু মেয়ে, দু ছেলে ও স্ত্রী রেখে গেছেন। বড় মেয়ে রেহেনা ইয়াসমিন ছিলেন কণ্ঠ শিল্পী। তিনি বছরখানেক আগে ইহকাল ত্যাগ করেন। বড় ছেলে ফয়েজ বিন মসলেম সুমন চুয়াডাঙ্গা পৌর কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক, অপর ছেলে এজাজ বিন মসলেম ইমন বেসরকারি একটি কোম্পানিতে চাকরি করেন। চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম যুগ্মসাধারণ সম্পাদক মুন্সি আলমগীর হান্নানের বড় ভগ্নিপতি ছিলেন শিক্ষক এসএম মসলেম উদ্দীন। তার মৃত্যুতে অনেকেই শোক প্রকাশ করে মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেছেন। একই সাথে শোকসন্তুপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন।

এসএম মসলেম উদ্দীনের ছেলে সুমন জানিয়েছেন, তার পিতা মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় মাঝদিয়া ক্যাম্পে দায়িত্ব পালন করেন। তার প্রমাণ থাকলেও তিনি মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি পাননি। পরবর্তীতে তিনি স্বীকৃতির জন্য তেমন চেষ্টাও করেননি।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *