চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অহিদুল ইসলাম

 

স্বচ্ছতার সাথে সর্বসম্মতিক্রমেই গঠিত হচ্ছে কমিটি : ঐক্যবদ্ধর জন্য সকলের সহযোগিতা প্রত্যাশী

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গায় জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ করতে সাংবাদিকদের সর্বাত্মক সহযোগিতা চেয়েছেন জেলা বিএনপি নেতৃবৃন্দ। গতকাল রোববার সন্ধ্যায় চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে জেলা বিএনপির আহ্বায়ক মুহা. অহিদুল ইসলাম বিশ্বাস এ আহ্বান জানিয়ে বলেন, স্বচ্ছতার সাথে ইউনিয়ন, পৌর ও উপজেলা বিএনপির সম্মেলনের অয়োজন করা হচ্ছে। সর্বসম্মতিক্রমেই গঠন করা হচ্ছে কমিটি। এরপরও যারা কমিটি গঠন নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন তারা ঐক্যবদ্ধ বিএনপি দেখতে চান না। ফলে তাদের সংবাদ বর্জনেরও আহ্বান জানাচ্ছি।

এক প্রশ্নের জবাবে জেলা বিএনপির ১ম যুগ্মআহ্বায়ক মাহমুদ হাসান খান বাবু বলেন, যারা দীর্ঘদিন ধরে একই পদে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন তাদেরকে উচ্চ পদে নেয়া হচ্ছে। তৃণমূলে নতুন মুখকে অধিক গুরুত্ব দেয়া না হলে নেতৃত্বে নতুনরা আসবেন কীভাবে? নেতৃত্ব নিতে বিভেদ নয়, সর্বসম্মতিক্রমে নেতৃত্ব পাওয়ার পথে হাঁটাই ভালো। সে লক্ষ্যে আমরা সকলকে সাথে নিয়েই চুয়াডাঙ্গা বিএনপির ভিত মজবুত করার সর্বাত্মক চেষ্টা চলছে। এরপরও কেউ সংগঠন বিরোধী কোনো পদক্ষেপ নিলে সংগঠনের গঠনতন্ত্র মোতাবেক সংগঠনই ব্যবস্থা নেবে।

সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে জেলা বিএনপির যুগ্মআহ্বায়ক খন্দকার আব্দুল জব্বার সোনা, মজিবুল হক মালিক মজু উপস্থিত ছিলেন। খন্দকার আব্দুল জব্বার সোনা বিগত দিনে চুয়াডাঙ্গা বিএনপির সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডের বর্ণনা দিতে গিয়ে বলেন, বিস্কুট কারখানায় বিস্কুট উৎপাদন হয়, সেখানে বিএনপি উৎপাদন হয় না। এরপরও তারা যখন বিস্কুট ফ্যাক্টরিতে বসে মনগড়া কমিটি গঠন করেছিলেন তখন চুয়াডাঙ্গার প্রকৃত বিএনপি যথাযথভাবেই প্রতিবাদ জানিয়েছিলো। বর্তমান জেলা বিএনপি কারো কারখানায় নয়, প্রকাশ্যে নেতাকর্মীদের উপস্থিতিতেই কমিটি গঠন করা হয়েছে, হচ্ছে। কেউ অভিযোগ উত্থাপন করলে আপনাদের দৃষ্টিতেই বিচার করা উচিত।

যুগ্মআহ্বায়ক মজিবুল হক মালিক মজু বলেন, চুয়াডাঙ্গা বিএনপির সর্বস্তরে সাড়া জেগেছে। শতস্ফূর্তভাবে কমিটি গঠন করা হচ্ছে। সম্মেলন হচ্ছে। এরপরও কেউ চক্রান্ত করলে দলই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে। অবশ্যই চুয়াডাঙ্গা বিএনপি গণমাধ্যম তথা সাংবাদিক বন্ধুদের সর্বাত্মক সহযোগিতা আশা করে। বিগত দিনেও সহযোগিতা করেছে। বিএনপির তরফে ও ব্যক্তিগতভাবে চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের উন্নয়নে সহযোগিতায় কমতি থাকবে না।

বিগত দিনে আপনি যেভাবে পাল্টা কমিটি গঠন করে যে পথে হেঁটেছেন, এখন অন্যরা সেই পথে হাঁটছে। এটা কি আপনার চেনানো পথ নয়? এ প্রশ্নের জবাবে জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অহিদুল ইসলাম বিশ্বাস বলেন, তখন আমাদের না ডেকে পকেট কমিটি গঠন করা হয়েছিলো। এখন সকলকে ডেকে সাথে নিয়ে স্বচ্ছতার সাথে বিএনপির সকল ইউনিটের কমিটি গঠন করা হচ্ছে। তা হলে আর একই পথে হাঁটা হলো কীভাবে? তারা নিজেদের মতো করে চলেছে, আমি সকলকে সাথে নিয়ে বিএনপির মতো করে চলছি। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, অভিযোগ উত্থাপন, তদন্ত কমিটি গঠন সম্পর্কে কিছু জানি না। কারণ আমাকে এ বিষয়ে কেউ কোনো চিঠি বা নোটিশ দেয়নি। ফলে এ বিষয়ে কিছু বলতে পারবো না।

সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভায় চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাব সভাপতি মাহতাব উদ্দীন, সাধারণ সম্পাদক সরদার আল আমিন, সহসভাপতি জেড আলম, সাংবাদিক সমিতি চুয়াডাঙ্গা জেলা ইউনিটের সভাপতি অ্যাড. এসএম শরিফ উদ্দীন হাসু, সাধারণ সম্পাদক শাহার আলী, সহসভাপতি অ্যাড. রফিকুল ইসলামসহ সাংবাদিক আব্দুল মজিদ জিল্লু, অ্যাড. মানিক আকবর, রাজীব হাসান কচি, শাহ আলম সনি, রাজন রাশেদ, রফিক রহমান, মরিয়ম শেলী, এমএ মামুন, রিচার্ড রহমান, আব্দুস সালাম, আরিফুল ইসলাম ডালিম, জামান আখতার, জাহিদ জীবন, জাহিদুল ইসলাম, আনজাম খালেক, খাইরুজ্জামান সেতু, হোসেন জাকির, উজ্জ্বল মাসুদ, কামরুজ্জামান সেলিম, এসএম পারভেজ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। সভায় সাংবাদিকদের পক্ষে এক প্রশ্নের জবাবে বিএনপি নেতৃবৃন্দ বলেন, বিএনপি কখনোই কারো নিরাপত্তা বিঘ্নিত করে না। ক্ষমতায় এসে বিএনপি সাংবাদিকদের নিরাপত্তার বিষয়টি সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়েই দেখবে ইনশাল্লাহ।

Leave a comment

Your email address will not be published.