চুয়াডাঙ্গা দামুড়হুদার গোপালপুরে পৈত্রিক জমি নিয়ে বিরোধের পরিনাম -ছোটবোনকে কুপিয়ে খুন করা বড় বোন মিনির আত্মসমর্পণ

স্টাফ রিপোর্টার: দামুড়হুদা গোপালপুরের হোসনে আরা ছবি খুন মামলায় বোন মিনি বেগমকে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। গতকাল রোববার মিনি আদালতে আত্মসমর্পণ করে। আদালত তাকে জেলহাজতে প্রেরণের আদেশ দেন।
মিনি তার বোন ছবিকে খুন করা মামলার একমাত্র আসামি। তিনি কুষ্টিয়া জেলার ভেড়ামারা উপজেলার বাহিরচর ষোলদাগ গ্রামের দুলাল আলীর স্ত্রী। আর খুন হওয়া ছবি খাতুনের শ্বশুরবাড়িও কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায়।
জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার গোপালপুর গ্রামের মৃত মনোয়ার হোসেনের ৫ মেয়ের মধ্যে ছবি ছিলো ৪র্থ। মিনি খাতুন দ্বিতীয়। গত ৩ আগস্ট বৃহস্পতিবার সকালে জমিজমা বিষয় নিয়ে পিতার বাড়ি গোপালপুর গ্রামে এ দু বোনের মধ্যে বিরোধ দানা বাধে। তাছাড়া ছবি তার ভাইয়ের নিকট পাওনা টাকাও আদায় করতে আসে। ৬ বছর বয়সী শিশু সন্তানকে সাথে নিয়ে পিতার বাড়িতে তর্কের এক পর্যায়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে ছবি খাতুনের পেছনে কোপ মারে। রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। দ্রুত তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শ দেয়া হয় বলে জানা যায়। রাজশাহী নেয়ার পথেই তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় নিহতের স্বামী বাদী হয়ে ঘটনার পরের দিন মিলি বেগমকে আসামী করে দামুড়হুদা মডেল থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। ছবির শিশু সন্তানই তার পিতার কাছে খুনের সব ঘটনা খুলে বলেছে বলে জানা গেছে। ময়নাতদন্তের পর মৃতদেহ নেয়া হয় তার স্বামীর বাড়ি। সেখানেই দাফন কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে।
পুলিশ বলেছে, মামলায় একমাত্র আসামি করা হয়েছে মিনি খাতুনকে। গতকাল রোববার মিনি খাতুন আদালতে আত্মসমর্পণ করে। আদালত তাকে জেলহাজতে প্রেরণের আদেশ দেন। পুলিশি প্রহরায় তাকে জেলহাজতে নেয়া হয়েছে।

 

Leave a comment

Your email address will not be published.