চুয়াডাঙ্গা চেম্বার প্রতিনিধি দিলীপ কুমার বাংলাদেশের সকল জেলা চেম্বারের মধ্যে দ্বিতীয় বিজয়ী

দেশের শীর্ষ ব্যবসায়ীদের সংগঠন এফবিসিসিআই নির্বাচন : চেম্বার গ্রুপে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতায় মাতলুবের প্যানেল

স্টাফ রিপোর্টার: ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইর পরিচালনা পর্ষদের নির্বাচনে চেম্বার গ্রুপের ভোটের ফলে প্রাথমিকভাবে নিটল-নিলয় গ্রুপের চেয়ারম্যান আবদুল মাতলুব আহমেদ নেতৃত্বাধীন প্যানেল এগিয়ে রয়েছে। শীর্ষ ব্যবসায়ী সংগঠন এফবিসিসিআই’র ২০১৫-২০১৭ নির্বাচনে চুয়াডাঙ্গা চেম্বারের প্রতিনিধি হিসেবে দিলীপ কুমার আগরওয়ালা বাংলাদেশের সমগ্র জেলা চেম্বারগুলোর মধ্য দ্বিতীয় বিজয়ী হওয়ার গৌরব অর্জন করেছেন।
এফবিসিসিআই নির্বাচনে চুয়াডাঙ্গার ইতিহাসে এটাই প্রথম। দেশের সকল জেলা চেম্বারের ৪০৪ ভোটের মধ্যে ৩১৮ ভোট পেয়ে দিলীপ কুমার দ্বিতীয় হওয়ার গৌরব অর্জন করায় তাকে সর্বস্তর থেকেই অভিনন্দন জানানো হয়েছে। নির্বাচনী ফল প্রকাশের পর পরই ঢাকার এফবিসিসিআই নির্বাচন কেন্দ্রের সামনে দিলীপ কুমারকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গা চেম্বারের সভাপাতি ইয়াকুব হোসেন মালিক, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট শাহারিন হক মালিক, সহসভাপতি মঞ্জুরুল আলম মালিক লার্জ, পরিচালক সালাউদ্দীন মোহাম্মদ মর্তুজা, একেএম সালাউদ্দীন মিঠু, আরিফ হোসেন জোয়ার্দ্দার সোনা, জাহাঙ্গীর হোসেন জোয়ার্দ্দার বাদশা, এসএম তছলিম আরিফ বাবু, কামরুল ইসলাম হিরা প্রমুখ। তাৎক্ষণিক দিলীপ কুমারকে ফুল দিয়ে অভিনন্দন জানান ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ডের অন্যতম পরিচালক রিপনুল হাসান রিপন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এনামুল হক মুকুল প্রমুখ।

রাজধানীর মতিঝিলে ফেডারেশন ভবনে সকাল ৯টায় ভোট গ্রহণ শুরু হয়। কোনো রকম বিরতি ছাড়াই বিকাল ৫টা পর্যন্ত এ ভোট গ্রহণ চলে। মাতলুব নেতৃত্বাধীন ‘ব্যবসায়ী উন্নয়ন পরিষদের দিলীপ কুমার আগরওয়ালাসহ ১২ জন প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। আর ‘স্বাধীনতা ব্যবসায়ী পরিষদ’ থেকে চার জন পরিচালক নির্বাচিত হয়েছেন । চট্টগ্রাম ওমেন চেম্বারের সভাপতি ও এফবিসিসিআইয়ের বর্তমান পরিচালনা পর্ষদের প্রথম সহসভাপতি মনোয়ারা হাকিম আলী ‘স্বাধীনতা ব্যবসায়ী পরিষদের’ নেতৃত্বে রয়েছেন। গতকাল শনিবার সকাল ৯টা থেকে শুরু হয়ে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ভোট চলে। ৩৩৫ ভোট পেয়ে চেম্বার গ্রুপে সবচেয়ে বেশি ভোট পেয়েছেন আমিনূল হক শামীম, যিনি উন্নয়ন পরিষদের প্যানেল থেকে নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন। চেম্বার গ্রুপে মোট ৩২ জন প্রার্থী ছিলেন। এদের থেকে প্রতিনিধি বাছাইয়ে দেশের ৭৮টি চেম্বারের ৪১৮ জন ভোটার ভোট দিয়েছেন। এবার এ গ্রুপে ভোটার ছিলেন ৪৩৬ জন।

নির্বাচন পরিচালনা পরিষদ প্রধান তথা নির্বাচন কমিশনার আলী আশরাফ বলেন, চেম্বার গ্রুপে ৩২ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এদের মধ্যে দিলীপ কুমার আগারওয়ালা ৩১৮ দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছেন। তিনি চুয়াডাঙ্গা চেম্বারের প্রতিনিধি হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। গাজী গোলাম আশরিয়া ৩১২, শেখ ফজলে ফাহিম ২৯৬, নিজাম উদ্দিন ২৯৫, মনোয়ারা হাকিম আলী ২৯৩, প্রবীর কুমার সাহা ২৮৫, নূরুল হুদা মুকুট ২৬৪, হাসিনা নেওয়াজ ২৫৫, নাগিবুল ইসলাম দিপু ২৪৯, মাসুদ পারভেজ খান ইমরান ২৪৬, বজলুর রহমান ২৪০, মোহাম্মদ আনোয়ার সাদাত সরকার ২৩৯, তাবারাকুল তোসাদ্দেক হোসেন খান টিটো ২৩৩ ও রেজাউল করীম রেনজু ২১৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। এই ১৫ জনের মধ্যে মনোয়ারা হাকিম আলী, মাসুদ পারভেজ খান ইমরান ও তাবারাকুল তোসাদ্দেক হোসেন খান টিটো স্বাধীনতা ব্যবসায়ী পরিষদ থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। বাকীরা উন্নয়ন পরিষদ থেকে নির্বাচনে অংশ নেন। ১৬তম পরিচালক পদে সমান ভোট পেয়েছেন কোহিনুর ইসলাম ও মো. মাসুদ। এরা দুজনই মনোয়ারা হাকিম আলীর প্যানেলের প্রার্থী। দুজনই পেয়েছেন ২০৫ ভোট করে। এদের বিষয়ে নির্বাচন কমিশনার আলী আশরাফ বলেন, নির্বাচনী বিধি অনুযায়ী এ দুজনের বিষয়ে পরবর্তীতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জানা গেছে, নির্বাচনে চেম্বার গ্রুপ ও এসোসিয়েশন গ্রুপে মোট ২ হাজার ২০২ জন ভোটার ছিলেন। এদের মধ্যে ১৯৫১ জন ভোট দিয়েছেন। চেম্বার গ্রুপে ৪১৮ জন এবং অ্যাসোসিয়েশন গ্রুপে ১৫৩৩ ভোট পড়েছে। তাদের ভোটে চেম্বার গ্রুপ থেকে ১৬ জন ও অ্যাসোসিয়েশন গ্রুপ থেকে ১৬ জন করে মোট ৩২ পরিচালক নির্বাচিত হবেন। এছাড়া ১০টি করে বিশেষ চেম্বার ও অ্যাসোসিয়েশন রয়েছে, যেগুলোর প্রতিটি থেকে একজন করে প্রতিনিধি এফবিসিসিআইর পরিচালনা পর্ষদে মনোনীত পরিচালক হিসেবে থাকছেন। রাজশাহী চেম্বার থেকে মনোনীত হয়ে এরইমধ্যে এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক হয়েছেন মাতলুব আহমেদ। এই নির্বাচিত ও মনোনীত পরিচালকরাই পরবর্তীতে পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি, প্রথম সহ-সভাপতি ও সহ-সভাপতি নির্বাচন করবেন। এই মেয়াদে চেম্বার গ্রুপ থেকে সভাপতি, এসোসিয়েশন গ্রুপ থেকে প্রথম সহ-সভাপতি ও চেম্বার গ্রুপ থেকে সহ-সভাপতি নির্বাচিত হবেন। ২৫ মে এই তিনটি পদে নির্বাচন হবে। ২৮ মে নতুন কমিটি ঘোষণা করা হবে।

এফবিসিসিআই নির্বাচনে দিলীপ কুমার বিপুল ভোটে নির্বাচিত হওয়ায় তাৎক্ষণিকভাবে তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাব সেক্রেটারি দৈনিক মাথাভাঙ্গা সম্পাদক বাংলাভিশন প্রতিনিধি সরদার আল আমিন, প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক চ্যানেল আই প্রতিনিধি রাজিব হাসান কচি, দর্শনার গোলাম ফারুক আরিফসহ অনেকে। বিপুল ভোটে নির্বাচিত হওয়ার পর দিলীপ কুমার সকল ভোটারকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, চুয়াডাঙ্গা চেম্বার সভাপতি ইয়াকুব হোসেন মালিকসহ চুয়াডাঙ্গা চেম্বারের অগ্রণী ভূমিকা চুয়াডাঙ্গাবাসীর জন্য সুসংবাদ বয়ে এনেছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *