চুয়াডাঙ্গায় ব্যবসায়ীদের অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট স্থগিত : এসপি অপসারণ না হলে ঈদের পর নতুন কর্মসূচি

স্টাফ রিপোর্টার: দু দিন দোকানপাট বন্ধ রাখার পর অবশেষে ধর্মঘট স্থগিত করেছে চুয়াডাঙ্গা দোকান মালিক সমিতি। জাতীয় সংসদের হুইপ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন এমপি জেলা প্রশাসক জিয়াউদ্দীন আহমেদের সাথে রুদ্ধদ্বার বৈঠকের পর সোমবার বেলা ৫টায় এ সিদ্ধান্ত নেন তারা। তবে ঈদের আগে পুলিশ সুপারকে অপসারণ করা না হলে ঈদের পর আবারও তারা নতুন কর্মসূচি দেবেন বলে জানান ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ। এ সিদ্ধান্তের পর জেলা শহরের দোকানপাট খুলতে শুরু করেন ব্যবসায়ীরা। আজ মঙ্গলবার সকাল থেকে দোকানপাট স্বাভাবিকভাবে চলবে বলে জানান ব্যবসায়ীরা।

জানা গেছে, গত রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে জেলা শহরের রেল বাজারের দুটি দোকানে ভ্রাম্যমাণ আদালত জরিমানা করেন। ব্যবসায়ীরা এ জরিমানাকে হয়রানির আখ্যা দিয়ে পুলিশ ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে অবরুদ্ধ করে রাখেন। এ ঘটনার পর সেখানে পুলিশ সুপার নিজাম উদ্দীন উপস্থিত হন। উচ্চবাক্য বিনিময়ের সময় এসপি নিজে দোকান মালিক সমিতির সভাপতি আশাদুল হক লেমনের গালে চড়-থাপ্পড় মারেন। এরপরই পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। পরে বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার নেতৃবৃন্দ এসপির অপসারণ দাবিতে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ডাক দেন। সোমবার জেলা শহরের কোনো দোকান খোলা হয়নি। এমনকি সবজির দোকানপাটও বন্ধ ছিলো। সাধারণ ক্রেতারা শহরে এসে চরম ভোগান্তির শিকার হন। বেলা ৪টায় জাতীয় সংসদের হুইপ সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন এমপির চুয়াডাঙ্গা কবরী রোডস্থ বাসভবনে বৈঠকে বসেন দোকান মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ। হুইপ ছেলুন জোয়ার্দ্দার ছাড়াও জেলা প্রশাসক জিয়াউদ্দীন আহমেদ ও ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ প্রায় এক ঘণ্টা রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন। এ বৈঠকে চুয়াডাঙ্গা চেম্বার অব কমার্স, দোকান মালিক সমিতি, চুয়াডাঙ্গা পরিবেশক সমিতি, সমবায় নিউমার্কেট সমিতি, ইটভাটা মালিক সমিতি, কেদারগঞ্জ বাজার মালিক সমিতি, রেলবাজার মালিক সমিতি, পুরাতন বড় বাজার মালিক সমিতি, ওষুধ ব্যবসায়ী সমিতি, পেট্রোল পাম্প মালিক সমিতিসহ বিভিন্ন সমিতির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক থেকে বেরিয়ে হুইপ ছেলুন জোয়ার্দ্দার সাংবাদিকদের জানান, আসন্ন ঈদের কথা বিবেচনা করে ব্যবসায়ীদেরকে অনুরোধ করেছি তাদের আন্দোলন কর্মসূচি প্রত্যাহার করতে। তাদের দাবির বিষয়টি আমি মাথায় নিয়েছি। তারা অনুরোধের প্রেক্ষিতে আন্দোলন কর্মসূচি স্থগিত করতে রাজি হয়েছেন। বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ইবরুল হাসান জোয়ার্দ্দার ইবু মাথাভাঙ্গাকে বলেন, ধর্মঘট প্রত্যাহার নয়, পবিত্র রমজান মাসকে বিবেচনায় রেখে আন্দোলন কর্মসূচি স্থগিত করা হয়েছে। পুলিশ সুপারকে যদি ঈদের আগে অপসারণ করা না হয় তাহলে ঈদের পর আন্দোলনের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। এর আগে দুপুরে চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে দোকান মালিক সমিতি। ওই সংবাদ সম্মেলনে ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ আগামী ৭২ ঘটনার মধ্যে পুলিশ সুপারের অপসারণের দাবি জানান।

 

Leave a comment

Your email address will not be published.