চুয়াডাঙ্গায় দশম সংসদ নির্বাচনে দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিসাইডিং কর্মকর্তাদের কাছে প্রয়োজনীয় উপকরণ সরবরাহ

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গায় দশম সংসদ নির্বাচনে দুটি সংসদীয় আসনে আজ ৫ জানুয়ারি ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। ১৬৬টি কেন্দ্রের মাধ্যমে এ ভোটগ্রহণ করা হবে। এ উপলক্ষে গতকাল শনিবার বেলা ১০টায় সদর  উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সহকারী রিটানিং কর্মকর্তা আবুল আমিন উপজেলা চত্বরে বিভিন্ন কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তাদের হাতে ব্যালট পেপার, ভোটের বাক্স, সিলসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র তুলে দেন।

চুয়াডাঙ্গা-১ আসনে বর্তমান মোট ভোটার সংখ্যা তিন লাখ ৯৬ হাজার ৯০৩। যার মধ্যে পুরুষ এক লাখ ৯৬ হাজার ৮১০ এবং মহিলা দু লাখ ৯৩। এ আসনের ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ১৬৬ এবং বুথ ৯২৭। চুয়াডাঙ্গা-২ আসনে বর্তমান মোট ভোটার সংখ্যা তিন লাখ ৬৭ হাজার ৭৪২। এর মধ্যে পুরুষ এক লাখ ৮৩ হাজার ৬৪০ এবং মহিলা এক লাখ ৮৪ হাজার ১০২। ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ১৫২ এবং বুথ সংখ্যা ৯৪৫। চুয়াডাঙ্গা-১ আসনে দুজন ও চুয়াডাঙ্গা-২ আসনে দুজন করে নির্বাচনে প্রার্থী রয়েছেন।

আলকদিয়া প্রতিনিধি জানিয়েছেন, ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নেয়া হয়েছে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা। চুয়াডাঙ্গা সদরের আলুকদিয়া ইউনিয়নের প্রত্যেকটি মোড়ে মোড়ে নিরাপত্তা বাহিনীর টইল দিতে দেখা গেছে।

আলুকদিয়া ইউনিয়নে ৯টি ভোটকেন্দ্র রয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুরের মধ্যে প্রত্যেকটি ভোটকেন্দ্রে সকল মালামাল কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে পাঠানো হয়েছে। ভোটকেন্দ্রে কর্তব্যরতদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ, র‌্যাব , বিজিবি ও সেনা সদস্যদের টহল দিতে দেখা গেছে। এসআই খালেকের সাথে কথা বলে জানা গেছে, তারা সারারাত এভাবে তাদের টহল চালিয়ে যাবেন। যাতে কোনো রকমের সহিংসতা না ঘটে সেদিকে তারা কঠোর নজরদারি রাখবে। তিনি আরো জানান, ভোটের কাজ শেষ হওয়া পর্যন্ত মোবাইল টিম-৩ এ এলাকার নিরাপত্তায় নিয়োজিত থাকবে।

জীবননগর ব্যুরো জানিয়েছেন, ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচন চুয়াডাঙ্গা-২ আসনে জীবননগর উপজেলার ১টি পৌরসভা ও ৬টি ইউনিয়নের ৫৩টি ভোটকেন্দ্রে লোকবলসহ ভোটার সংশ্লিষ্ট সকল উপকরণ প্রেরণ করা হয়েছে। প্রশাসন উপজেলার ৫৩টি কেন্দ্রের মধ্যে ৪৪টি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ হিসাবে চিহ্নিত করেছে। এর মধ্যে ১৬টি কম, ৮টি অধিকতর এবং ২০টি মারাত্মক ঝুকিপূর্ণ কেন্দ্র হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে। ঝুকিপূর্ণ এসকল কেন্দ্রে নিরাপত্তা বিধানের জন্য আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর বিপুল সংখ্যক সদস্য নিয়োজিত থাকবে বলে প্রশাসনের পক্ষ হতে জানানো হয়েছে।

মেহেরপুর অফিস জানিয়েছে, আজ রোববার দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণের জন্য সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। মেহেরপুরের দুটি আসনের ১৭৮টি ভোট কেন্দ্রে গতকাল সকাল ১১টার দিকে ভোটের কাজে ব্যবহৃত সরঞ্জাম প্রেরণ শুরু হয়।

গতকাল শনিবার সদর উপজেলা রিটার্নিং অফিসার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ফরিদ হোসেন মেহেরপুর-১ আসনের (সদর-মুজিবনগর) ৯৮টি ভোট কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিসাইডিং অফিসারদের কাছে ব্যালটবাক্স, ব্যালট পেপারসহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র প্রদান করেন। অন্যদিকে গাংনী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আব্দুস সালামের নিকট থেকে মেহেরপুর-২ (গাংনী) আসনের ৮০টি কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিসাইডিং অফিসারবৃন্দ বুঝে নিয়েছেন ভোট কেন্দ্রের যাবতীয় সরঞ্জাম।

সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন পরিচালনার পাশাপাশি ভোটকেন্দ্র এলাকার আইনশৃঙ্খলা রক্ষার্থে প্রতিটি কেন্দ্রে একজন পুলিশ সদস্য, একজন অস্ত্রধারী আনছার সদস্য ও ১০ জন আনছার সদস্য (নিরস্ত্র) দায়িত্ব পালন করবেন। গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রগুলোতে বাড়তি আরো একজন আনছার সদস্য দেয়া হয়েছে। নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত করতে কয়েক স্তরের নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা হয়েছে বলে জেলা পুলিশসূত্রে জানা গেছে।

গাংনী প্রতিনিধি জানিয়েছেন, আজ রোববার দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণের জন্য প্রস্তুত হয়েছে ৮০টি ভোট কেন্দ্র। গতকাল শনিবার সকাল ১১টার দিকে ভোটের সরঞ্জাম প্রেরণ শুরু হয়। দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিসাইডিং অফিসারবৃন্দ বুঝে নিয়েছেন ভোটের সরঞ্জাম। গাংনী উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে ভোটের সরঞ্জাম প্রদান করেন সহকারী রিটার্নিং অফিসার গাংনী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুস সালাম। প্রতিটি কেন্দ্রে ১ জন পুলিশ সদস্য, ১ জন অস্ত্রধারী আনছার সদস্য ও ১০ জন আনছার সদস্য (নিরস্ত্র) দায়িত্ব পালন করবেন। গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রগুলোতে বাড়তি আরো একজন আনছার সদস্য দেয়া হয়েছে। নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত করতে কয়েক স্তরের নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা হয়েছে বলে জেলা পুলিশসূত্রে জানা গেছে। গতকাল সন্ধ্যা থেকেই কেন্দ্রের দায়িত্ব নিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *