চুয়াডাঙ্গায় ডায়রিয়া পরিস্থিতি অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে

 

পানি পরীক্ষার রিপোর্ট প্রকাশ করেনি স্বাস্থ্য বিভাগ

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গায় ডায়রিয়ার প্রকোপ আরো কমেছে। স্বাস্থ্য বিভাগ গতকালও পৌর সরবরাহকৃত পানি পরীক্ষার রিপোর্ট প্রকাশ করেনি। ডায়রিয়া পরিস্থিতি ও হাসপাতালের পরিবেশ পর্যবেক্ষণের জন্য গতকাল দ্বিতীয় বারের মতো চুয়াডাঙ্গায় এসে স্বাস্থ্য বিভাগের খুলনা বিভাগীয় পরিচালক ডা. মামুন পারভেন বলেছেন, চুয়াডাঙ্গায় ডায়রিয়ার প্র্রাদুর্ভাবের পর সংশ্লিষ্ট এলাকার পানি, রোগাক্রান্তের স্টুলসহ তিনটি পরীক্ষা করানো হয়েছে। সকল পরীক্ষার রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পরই এলাকাবাসীর করণীয় বিষয়টিসহ পরীক্ষার রিপোর্ট প্রকাশ করা হবে। তিনি গতকালও হাসপাতালে ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগীদের সাথে কথা বলেন। হাসপাতালের পরিবেশও পর্যবেক্ষণ করেন।

চুয়াডাঙ্গায় গত ১ আগস্ট থেকে ডায়রিয়ার প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। ৬ আগস্ট পর্যন্ত পরিস্থিতি ছিলো ভয়াবহ। পরদিন থেকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের দিকে আসতে শুরু করে। গতকালও চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ৪২ জন ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগী ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে পৌর এলাকার ২৮ জন। বাকিরা বিভিন্ন গ্রামের। গতকাল পৌরসভার তরফে পৌর সবরাহকৃত পানি জীবাণুমুক্ত করার জন্য গ্রাহকদের পানি ব্যবহার থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানিয়েছিলো। তবে আজ মঙ্গলবার থেকে পানি পূর্বের মতো ব্যবহার করা যাবে বলে পূর্বেই ঘোষণা দিয়ে রেখেছে। গতকাল পৌর কর্তৃপক্ষ নতুন কোনো বিজ্ঞপ্তি জারি করেনি। অপরদিকে চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার অনেকেই রয়েছে যারা তাদের বাড়ির টয়লেটের পাইপ সরাসরি পৌর ড্রেনের সাথে যুক্ত করেছেন। তাদেরকে আগামী ১৪ আগস্টের মধ্যে নিজ উদ্যোগে ড্রেনের সাথে টয়লেটের পাইপ সংযোগ বিছিন্ন করার জন্য বলা হয়েছে। অন্যথায় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানানো হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গায় গতকাল পর্যন্ত ডায়রিয়ার আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় দেড় হাজার। অধিকাংশই হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন। অনেকেই বাড়িতেই চিকিৎসা নিয়েছেন। ডায়রিয়ার ভয়াবহ প্রকোপের মাঝেও প্রাণহানি রুখতে পারায় চুয়াডাঙ্গা স্বাস্থ্য বিভাগকে সাধারণ মানুষের পক্ষেও অনেকে সাধুবাদ জানিয়েছেন।

Leave a comment

Your email address will not be published.