চুয়াডাঙ্গার সাবেক ভূমি উপসহকারী কর্মকর্তা হাফিজ উদ্দীনের ছেলেকে কুপিয়ে খুন

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গার বহুল পরিচিতমুখ নরসিংদী পলাশের বাসিন্দা হাফিজ উদ্দীনের কলেজপড়ুয়া ছেলে খায়রুল ইসলাম (২২) খুন হয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে কান্দাপাড়ায় এ খুনের ঘটনা ঘটে।
            নরসিংদী সরকারি কলেজের অর্থনীতি বিভাগের অনার্স তৃতীয় বর্ষের ছাত্র খায়রুল ইসলাম পাইভেট টিউশনির জন্য বাড়ি থেকে বের হয়ে পথিমধ্যে ওৎপেতে থাকা সন্ত্রাসীর কবলে পড়ে। চিহ্নিত কয়েক সন্ত্রাসী ধারালো অস্ত্র দিয়ে প্রকাশ্যে কুপিয়ে খুন করে সটকে পড়ে। স্থানীয়দের সহযোগিতায় একরাম নামের একজনকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে।
            জানা গেছে, নরসিংদীর পলাশ উপজেলার ডাঙ্গা ইউনিয়নের কান্দাপড়ার বাসিন্দা হাফিজ উদ্দীন চুয়াডাঙ্গায় ভূমি উপসহকারী কর্মকর্তা হিসেবে দীর্ঘদিন কর্মরত ছিলেন। চুয়াডাঙ্গা বড়বাজারে বসবাস করতেন। সদালাপী মানুষটি কয়েক বছর আগে অবসর গ্রহণ করেছেন। তার তিন ছেলের মধ্যে ছোট ছেলে নরসিংদী সরকারি কলেজের অনার্স তৃতীয় বর্ষের ছাত্র ছিলো। মেধাবী ছাত্র খায়রুল ইসলাম টিউশনিও করতেন। তার পিতা হাফিজ উদ্দীন মাথাভাঙ্গাকে বলেছেন, দুপুরে আমরা একই সাথে খাওয়া দাও করলাম। বিকেলে বাইসাইকেলযোগে প্রাইভেট পড়ানোর জন্য বাড়ি থেকে বের হলো। আমি একে তাড়াতাড়ি ফিরতে বললাম। কিছুক্ষণ পরই শুনি হামলার শিকার হয়েছে। ছুটে গিয়ে দেখি ছেলে আর নেই। স্থানীয় কয়েক যুবক খায়রুলের প্রতি ঈর্ষান্বিত হয়ে এ খুনের ঘটনা ঘটিয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে সন্দেহ করা হচ্ছে। ঘটনার পর পরই একরাম (২৫) নামের একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তার প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ অব্যাহত রয়েছে। 
            খায়রুল ইসলামের লাশ গতরাতে নরসিংদী হাসপাতালমর্গে রাখা ছিলো। আজ বুধবার সকালে ময়নাতদন্ত সম্পন্ন করা হবে। দুপুরেই নিজ গ্রামে দাফন কাজ সম্পন্ন  করা হতে পারে। পুলিশ বলেছে, খুনের আড়ালে পূর্ব কোনো বিরোধ নাকি প্রেমজ কোনো সম্পর্ক নিহিত রয়েছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *