চুয়াডাঙ্গার তিনটি প্যাথলজির ৩ রকম রিপোর্ট : কোনটি সঠিক ?

 

স্টাফ রিপোর্টার: এক রোগীর ইউটিআই পরীক্ষা করে ৩ রকম রিপোর্ট দিয়েছে চুয়াডাঙ্গার সদর হাসপাতাল রোডের তিনটি প্যাথলজি প্রতিষ্ঠানপ্রতিষ্ঠানগুলো হলো স্মৃতি প্যাথলজি, আবদুল্লাহ ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও সনো ডায়াগনস্টিক সেন্টার লিমিটেডতিনটি প্যাথলজিতে তিন রকম রিপোটের কোনটি ঠিক?

          জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল এলাকার একজন গত ১ বছর ধরে ইউরিনারি ট্রাক ইনফেকশন রোগে ভগছেনডাক্তারের পরামর্শে তিনি তার রোগের জীবাণু অবস্থান জানতে প্রায়ই ইপিআই সেল ও মূত্র পরীক্ষা স্মৃতি প্যাথলজিতে পরীক্ষা করানদীর্ঘদিন ধরে ডাক্তারের ধ সেবনের পরও ইপিআই সেল ও পু সেল সাধারণ মাত্রায় না আসায় ডা. প্রফেসর হারুন আর রশীদের (নেফরোলজি কিডনি ফাউন্ডেশন ঢাকা) পরামর্শে অন্য দুটি প্যাথলজিতে ইপিআই সেল ও পুষ সেল পরীক্ষা করানরির্পোটে দেখা যায়, গতকাল শুক্রবার দুপুর ১২টায় আবদুল্লাহ ডায়াগনস্টিক সেন্টার করা পরীক্ষায় ইপিআই সেল ১-২ মাত্রায়, পুষ সেল ৩-৪ মাত্রায় অপরদিকে বেলা সোয়া ২টা স্মৃতি প্যাথলজিতে ইপিআই সেল ৮-১০ মাত্রায় আর পুষ সেল প্লান্টি (অগণিতক) মাত্রায় সর্বশেষ বিকল সাড়ে ৪টায় সনো ডায়াগনস্টিক সেন্টার লিমিটেডের রিপোর্টে ইপিআই সেল ০-২ মাত্রায়, পুষ সেল ৮-১০ মাত্রায়তিনটি প্রতিষ্ঠানের তিন রকম রিপোর্ট দেখে চমকে ঠেন রোগী ও রোগীর পরিবারের সদস্যরারোগীর স্বজনরা সনো ডায়াগনস্টিক সেন্টার ৩টি রিপোর্ট দেখালে তারা পুনর্বার পরীক্ষা করেনএ সময় ইপিআই সেল ০-২ মাত্রায়, পুষ সেল ৩-৫ মাত্রায় পাএ বিষয়ে দীর্ঘদিনের স্বনামধন্য স্মৃতি প্যাথলজির প্যাথলজিস্ট মো. আব্দুর রহমান বলেন, অগণিতক বলতে আমরা ২০ এর অধিক মাত্রাকে ধরিসে কারণে প্লান্টি লেখা হয়কিন্তু ওই প্রতিষ্ঠানের ৩০ অক্টেবর/১৩ ও ৩ নভেম্বর/১৩ তারিখের রিপোর্টে ২৫-২৭ ও ২৮-৩০ মাত্রায় দেখানো হলেও প্লান্টি লেখা হয়নিএ ব্যাপারে আব্দুর রহমান বলেন, কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে এ ধরনের রিপোর্ট হতে পারেতবে ডাক্তাদের অভিমত একই দিনে একই রোগীর ক্ষেত্রে এ ধরনের রিপোর্ট আসার কথা নয়কোথাও না কোথাও ত্রুটি হয়েছে

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *