গাইবান্ধায় জামায়াত-পুলিশ সংঘর্ষে আহত অর্ধশতাধিক

নির্বাচনে সহিংসতাসহ বিভিন্ন অভিযোগে যৌথবাহিনীর অভিযান : মেহেরপুরসহ সারাদেশে দু শতাধিক আটক

 

স্টাফ রিপোর্টার: গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে শনিবার রাতে আসামি ধরতে গিয়ে জামায়াত-শিবিরের সাথে পুলিশের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। এতে ২২ পুলিশ সদস্যসহ আহত হয়েছেন অর্ধশতাধিক ব্যক্তি। এদিকে গতকাল রোববার সীতাকুণ্ডে এক শিবির নেতার গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এর আগে শনিবার রাতে এক ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করার প্রতিবাদে জামায়াত ও স্বেচ্ছাসেবক দলের কয়েকজনের বাড়িতে আগুন দেয় সরকার দলীয় নেতাকর্মীরা। এছাড়া নির্বাচনে সহিংসতাসহ বিভিন্ন অভিযোগে দেশের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ১৮ দলের ১২৪ জনকে আটক করেছে যৌথবাহিনী। পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, বামনডাঙ্গা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র ও সুন্দরগঞ্জ থানা পুলিশ যৌথভাবে সর্বানন্দ ইউনিয়নের রামভদ্র খানাবাড়ি গ্রামে নাশকতা ও পুলিশ হত্যা মামলার আসামি আজাদুলসহ অন্য আসামিদের গ্রেফতার করতে শনিবার রাতে অভিযান চালায়। এ সময় ওই এলাকায় একটি মাদরাসা ও মসজিদের মাইক থেকে গ্রামে সশস্ত্র ডাকাতরা হামলা চালিয়েছে বলে গ্রামবাসীকে সংঘবদ্ধ করে তাদের প্রতিরোধ করার আহ্বান জানিয়ে প্রচারণা চালানো হয়। এছাড়া আরও ঘোষণা করা হয়- আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের ক্যাডাররা ডাকাত সেজে হামলা চালিয়েছে। এতে বিক্ষুব্ধ গ্রামবাসী জামায়াত-শিবিরের ক্যাডারদের সাথে যুক্ত হয়ে পুলিশের ওপর হামলা চালায় এবং তাদের চারদিক থেকে অবরুদ্ধ করে ফেলে। এ অবস্থায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও সুন্দরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নেতৃত্বে যৌথবাহিনীর সদস্যরা ঘেরাও হওয়া পুলিশ সদস্যদের উদ্ধারে অভিযান চালায়। সে সময় যৌথবাহিনীর সাথে জামায়াত-শিবির নেতাকর্মী ও গ্রামবাসীর ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। শনিবার রাত ১২টা থেকে রোববার ভোর ৬টা পর্যন্ত ব্যাপক গোলাগুলি ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় ২২ পুলিশ সদস্যসহ আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৫৫ জন। সংঘর্ষের সময় জামায়াত-শিবির সমর্থকরা সুন্দরগঞ্জ-বামনডাঙ্গা সড়কের কানারমোড়ে পুলিশ সদস্যদের বহনকারী পিকআপ ভ্যানে আগুন দেয়। খানাবাড়ির ১২টি বসতবাড়িতে ভাঙচুর এবং ৭টি গবাদিপশুর জন্য সংরক্ষিত খড়ের গাদা পুড়িয়ে দেয়। ছাইতানতলা ও কদমতলীর একাধিক পয়েন্টে রাস্তার ওপর গাছ ফেলে যৌথবাহিনীর চলাচলে ব্যারিকেড সৃষ্টি করা হয়। গ্রেফতার করা হয় জামায়াত-শিবিরের আল আমিন, শাহজাহান ভুট্টু, মফিজুল হক, আশিকুর রহমান ও দুলা মিয়াকে।

সীতাকুণ্ড পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ড শিবির সভাপতি মোশাররফ হোসেনের গুলিবিদ্ধ লাশ রোববার সকালে ছোট দারোগাহাট গুলগুলা বাজার এলাকা থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। অন্যদিকে শনিবার রাতে ৪নং মধ্যম সোনাইছড়ি ওয়ার্ড ছাত্রলীগ সভাপতি মো. আযমকে কুপিয়ে জখম করে দুর্বৃত্তরা। প্রতিবাদে ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা জামায়াত সমর্থিত আবদুল কাদের ও তার ভাই রওশনুজ্জামান এবং স্বেচ্ছাসেবক দলের সোনাইছড়ি ইউনিয়ন সহ-সভাপতি নুর উদ্দীনের বাড়িতে আগুন দেয়। শাহাজাহান, ইউনুছের ঘর ভাঙচুর করে। রাত ১১টার দিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ব্যারিকেড দেয়। আধা ঘণ্টা পর পুলিশ এসে ব্যারিকেড তুলে নেয়।

সিলেট জেলা ও মহানগর পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৬৬ জনকে গ্রেফতার করেছে। মেহেরপুরে নাশকতার অভিযোগে জেলা জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি তারিক মোহাম্মদ সাইফুল ইসলামকে ডিবি পুলিশ আটক করেছে। গলাচিপায় শনিবার সন্ধ্যায় ৪টি অস্ত্র ও ৪ রাউন্ড গুলিসহ ২ জনকে গ্রেফতার করেছে ৱ্যাব। দিনাজপুরে সহিংসতায় জড়িত থাকার অভিযোগে বিভিন্ন স্থানে ১৪ জনকে আটক করেছে যৌথবাহিনী। জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে উপজেলা ১৮ দলের আহ্বায়ক উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল গফুর মণ্ডলের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে আজ আধা বেলা হরতাল ডেকেছে উপজেলা ১৮ দল।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *