গাংনীর বামন্দীতে চাঁদার দাবিতে ইজিবাইক চালককেমারপিট

 

গাংনী প্রতিনিধি: চাঁদার দাবিতে বাবলু মিয়া (৩২) নামের এক ইজিবাইক চালককে বেধড়ক মারপিট ও গোপনাঙ্গে আঘাত করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার দুপুরে মেহেরপুর গাংনী উপজেলার বামন্দী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এঘটনা ঘটে। ভুক্তভোগীদের প্রতিবাদ ও পুলিশের ভয়ে আত্মগোপন করেছে অভিযুক্ত চাঁদাবাজ মিনা।

আহত সূত্রে জানা গেছে, গাংনী পৌরসভাধীন চৌগাছা গ্রামের ফটিক মিয়ার ছেলে বাবলু মিয়া গতকাল দুপুরে বামন্দী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় তার ইজিবাইক নিয়ে যাত্রীর অপেক্ষা করছিলেন। এসময় বামন্দীর মিনা নামের এক ব্যক্তি এসে তার কাছে চাঁদা দাবি করে। বামন্দী এলাকায় ইজিবাইক চালাতে হলে মিনাকে টাকা দিতে হবে বলে সে হুমকি দেয়। কিন্তু বাবলু রাজি না হলে মিনা তাকে লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারপিট শুরু করে। এক পর্যায়ে তার গোপনাঙ্গে লাঠি দিয়ে আঘাত করলে বাবলু মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। স্থানীয় লোকজনের সহায়তায়বাবুলকে ভর্তি করা হয় গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। তার অবস্থা তেমন ভালো নয় বলে জানান চিকিৎসক।

এদিকে খবর পেয়ে গাংনী ইজিবাইক মালিক সমিতির সভাপতি মাহবুবুর রহমান স্বপনসহ ইজিবাইক মালিক-চালকরা গতকাল দুপুরে গাংনী শহরের বাসস্ট্যান্ডে জড়ো হন। এই বর্বরোচিত ঘটনার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে মিনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন তারা। মাহবুবুর রহমান স্বপন জানান, বাবলুর গোপনাঙ্গে আঘাত করে মিনা জঘন্যতম কাজ করেছে। বিচার না পেলে আন্দোলন করা হবে বলেও জানান তিনি।

ভুক্তভোগী বাবলু মিয়াসহ কয়েকজন ইজিবাইক চালক জানান, মিনা বামন্দী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় লাঠি নিয়ে অবস্থান করে। বামন্দী এলাকার বাইরের কোনো ইজিবাইক কিংবা নসিমন পেলে চাঁদা দাবি করেন। চাঁদা না দেয়া চালকদের ভাগ্যে জোটে বাবলুর মতো ঘটনা। এছাড়াও নেশাসহ বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে মিনার নামে। তার নামে মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন ইজিবাইক চালকরা। পুলিশের একটি সূত্রে জানা গেছে, গতকালই মিনাকে আটকের জন্য পুলিশের একটি দল বিভিন্ন স্থানে খোঁজ নেয়। কিন্তু তার আগেই পালিয়েছে মিনা।

Leave a comment

Your email address will not be published.