গাংনীতে বৃদ্ধাকে বেধড়ক মারপিঠ ॥ মামলা করলে বাড়িছাড়া

গাংনী প্রতিনিধি: মেহেরপুর গাংনী পৌরসভার শিশিরপাড়া গ্রামের মনোয়ারা খাতুন (৬০) নামের এক বৃদ্ধাকে বেধড়ক মারপিঠ করা হয়েছে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে শিশিরপাড়া গ্রামের ঠা-ু ও ঝন্টুসহ কয়েকজন তাকে মারধর করে। আহত মনোয়ারা খাতুন শিশিরপাড়া গ্রামের রইস উদ্দীনের স্ত্রী।
ভুক্তভোগী সূত্রে জানা গেছে, পারিবারিক বিষয় নিয়ে মনোয়ারা খাতুনের সাথে প্রতিবেশীদের বিরোধ চলছিলো। এর জের ধরে সন্ধ্যায় শিশিরপাড়া গ্রামের আয়ুব আলীর ছেলে ঠা-ু, ঝন্টু ও মেয়ে শেলী খাতুনসহ সঙ্গীয় আদরী এবং সোনাভানু লাঠিসোটা নিয়ে মনোয়ারা খাতুনের ওপর হামলা করে। বেধড়ক পিটুনিতে বৃদ্ধা মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। তারপরেও মারধর চলতে থাকে। এক পর্যায়ে লাঠির আঘাতে তার মাথা ফেটে যায়। মারধর ঠেকাতে গিয়ে আহত হন মনোয়ারা খাতুনের মেয়ে খালেদা খাতুন। স্থানীয়দের সহায়তায় মনোয়ারা খাতুনকে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। মাথায় জখম স্থানে কয়েকটি সেলাই দেয়া হয়েছে বলে জানান চিকিৎসক।
এদিকে মনোয়ারা খাতুন ও তার মেয়ে খালেদা খাতুনের পরিবারে তেমন কেউ নেই। তাই মা-মেয়ে অনেকটাই অসহায় অবস্থায় বসবাস করেন। তাদের চেয়ে প্রভাবশালী ঠা-ু, ঝন্টু ও সোনাভানুর রোষানলে পড়ে বৃদ্ধা মনোয়ারা চরম নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন। স্থানীয় লোকজনের অর্থে হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে দরিদ্র মনোয়ারার। এরপরেও মামলা করতে সাহস পাচ্ছেন না। মামলা করলে বাড়ি থাকতে দেয়া হবে না বলে হুমকি দিচ্ছে হামলাকারীরা। এ ভয়ে মামলা করতেও সাহস পাচ্ছে না মনোয়ারা। তাই সুবিচার চেয়ে পুলিশ প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন তিনি।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *