এমপিরা সংবিধানের অবমাননা করেছেন- ষোড়শ সংশোধনীর রায় নিয়ে বারের সংবাদ সম্মেলন

 

 

স্টাফ রিপোর্টার: সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় নিয়ে প্রধান বিচারপতি ও বিচার বিভাগকে নিয়ে জাতীয় সংসদে সংসদ সদস্যরা যে আপত্তিকর বক্তব্য দিয়েছেন তা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি। এক সংবাদ সম্মেলনে সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন বলেছেন, সংবিধানের অভিভাবক হচ্ছে সুপ্রিম কোর্ট। ষোড়শ সংশোধনীর রায় নিয়ে সংসদ সদস্যরা সংসদে কটূক্তিপূর্ণ বক্তব্য দিয়ে সংবিধানেরই অবমাননা করেছেন। খাটো করেছেন বিচার বিভাগের মর্যাদাকে। পূর্ণাঙ্গ রায় না পড়ে এভাবে মন্তব্য করায় অনেকেই সংসদ সদস্য পদে থাকার যোগ্যতা হারিয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে বার সভাপতি এ সব কথা বলেন। সম্মেলনে সমিতির সাবেক সভাপতি খন্দকার মাহবুব হোসেন, অ্যাডভোকেট নিতাই রায় চৌধুরী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বার সভাপতি বলেন, সংসদ সদস্যরা এ ধরনের আলোচনায় অংশ নেয়ার পূর্বে সংসদ পরিচালনার বিধি-বিধান সম্ভবত ভুলে গিয়েছিলেন। কারণ যে ব্যক্তি সংসদে উপস্থিত নেই, তার সম্পর্কে সংসদে কোনো আলোচনা করা যায় না। এরপরেও দুজন প্রবীণ আইনজীবী ড. কামাল হোসেন ও ব্যারিস্টার এম আমীর উল ইসলামের সম্পর্কে আপত্তিকর বক্তব্য দেয়া হয়েছে। এমনকি প্রধান বিচারপতির সমালোচনা করেও বক্তব্য দিয়েছেন তারা। যা সুস্পষ্টভাবে আদালত অবমাননার শামিল। তিনি বলেন, নিজেদের স্বার্থে ক্ষমতাকে টিকিয়ে রাখার জন্য বিচার বিভাগকে ধ্বংস করে দেশ ও জাতির ক্ষতি করবেন না।

বার সম্পাদক ব্যারিস্টার এম মাহবুবউদ্দিন খোকন বলেন, সর্বোচ্চ আদালতের রায় পছন্দ না হলেই বিচার বিভাগ নিয়ে কটূক্তিপূর্ণ মন্তব্য করা হচ্ছে। এটা কি গণতন্ত্রের নমুনা? সংবিধানের ১১১ অনুচ্ছেদ পড়লে যে কোনো মন্ত্রী বা সংসদ সদস্য ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় নিয়ে কোনো মন্তব্য করতেন না।

রায়ের পক্ষেবিপক্ষে আলোচনা স্বাভাবিক : বার সহসভাপতি: সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও সম্পাদকের পর পৃথক আরেকটি সংবাদ সম্মেলন করেন বারের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট মো. অজিউল্লাহ। তিনি বলেছেন, ষোড়শ সংশোধনী বাতিল করে রায় দিয়েছে আপিল বিভাগ।

 

Leave a comment

Your email address will not be published.