একাদশে ভর্তির সময় ফের বাড়লো

 

স্টাফ রিপোর্টার: একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির জন্য তিন দফায় সময় বাড়ানোর পর আবারও ৫ থেকে ৮ জুলাই পর্যন্ত সময় বাড়ানো হয়েছে। যেসব ছাত্রছাত্রী এর আগে ভর্তির জন্য আবেদন করেও ভর্তি হয়নি বা নিশ্চায়ন করেনি তারা এই চার দিনের মধ্যে নির্বাচিত কলেজে ভর্তি হতে পারবে। এই চারদিনের মধ্যে কোনো শিক্ষার্থী যদি ভর্তি বাতিল করতে চায় সেই সুযোগও রয়েছে। বুধবার আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়েছে।
ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের কর্মকর্তারা বলেন, এবার তিন ধাপে সময় বাড়ানোর পরও কোনো কলেজেই ভর্তি হয়নি দুই লাখের বেশি শিক্ষার্থী। ফলে এসব শিক্ষার্থী ভর্তির বাইরে রয়ে গেছেন। তাই বাদ পড়া শিক্ষার্থীদের আবারও ভর্তির সুযোগ দেয়ার জন্য বুধবার আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করবেন ঢাকা শিক্ষা বোর্ডর চেয়ারম্যান ও আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সম্বনয় সাব-কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মো. মাহাবুবুর রহমান।

জানা যায়, শেষ ধাপের এই ভর্তি কার্যক্রমের পর আগামী ৮ জুলাই বোঝা যাবে ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে মোট কতজন শিক্ষার্থী এবার একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হয়েছে। এছাড়া কতজন ভর্তি বাতিল করেছে তাও বোঝা যাবে। ৯ জুলাই থেকে দেখা যাবে কোন কলেজে কত আসন খালি আছে। এরপর ১০ থেকে ১৫ জুলাই পর্যন্ত সবার জন্য ভর্তি উন্মুক্ত করে দেয়া হবে। ইতোপূর্বে যেসব শিক্ষার্থী ভর্তির জন্য কোনো আবেদনই করে নাই, যারা আবেদন করে নিশ্চায়ন করেনি, যারা ভর্তি বাতিল করেছে এবং যেসব শিক্ষার্থী আবেদন করেও ভর্তি হতে পারেনি তাদের এই ৬ দিন ভর্তির সুযোগ দেয়া হবে। এরপর ১৭ জুলাই চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করা হবে। বৈঠক শেষে এ বিষয়ে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান ও আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মো. মাহাবুবুর রহমান বলেন, শিক্ষার্থীদের কল্যাণে একাদশ শ্রেণির ভর্তির সময়সীমা আবারও ৫ থেকে ৮ জুলাই পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। যারা এখনো ভর্তি হয়নি বা নিশ্চায়ন করেনি সেসব শিক্ষার্থী এ সময়ের মধ্যে ভর্তি হতে পারবে। তিনি বলেন, ভর্তির জন্য নির্বাচিত হয়েও যেসব শিক্ষার্থী এখনো ভর্তির জন্য ১৮৫ টাকা জমা দেয়নি তারা অনলাইনে উক্ত ফি জমা দিয়ে নির্বাচিত প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে পারবে। অধ্যাপক মো. মাহাবুবুর রহমান বলেন, এরপর ১০ থেকে ১৫ জুলাই পর্যন্ত সবার জন্য ভর্তি উন্মুক্ত করে দেয়া হবে। এ সময় যারা এখনো আবেদনই করেনি তারাও ভর্তি হতে পারবে।
আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সূত্রে জানা যায়, ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে এসএসসি পরীক্ষায় ১৪ লাখ ৩১ হাজার ৭২২ জন শিক্ষার্থী পাস করেছে। এরপর এবার ১৩ লক্ষাধিক শিক্ষার্থীকে ভর্তির জন্য তিন ধাপে কলেজ নির্ধারণ করে দেয়া হয়। এদের মধ্যে ভর্তি কার্যক্রম সম্পন্ন করেছে মাত্র ১১ লাখ ৫৬ হাজার শিক্ষার্থী। কারণ, পছন্দের কলেজ না পাওয়া, ভুল করে কিংবা অন্য কারণে লক্ষাধিক শিক্ষার্থী কলেজ নিশ্চায়ন করেনি। অনেকে নিশ্চায়ন করার পরও ভর্তি হয়নি। এছাড়া প্রায় ২৭ শিক্ষার্থী বিভিন্ন কলেজে আবেদন করার পরও ভর্তি হওয়ার সুযোগ পায়নি। এদের মধ্যে জিপিএ-৫ পাওয়া ছাত্রছাত্রী রয়েছে কয়েক হাজার। ঢাকা বোর্ডের কলেজ পরিদর্শক আশফাকুস সালেহীন যায়যায়দিনকে বলেন, ‘এবার আবেদনের টাকা জমা দিয়েও অনেক শিক্ষার্থী ভর্তি হয়নি। এ জন্য বিশেষ বিবেচনায় আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আবারও ভর্তির সময় বাড়ানো হয়েছে। কারণ, আমাদের উদ্দেশ্য হলো একটি শিক্ষার্থীও যেন কলেজে ভর্তি থেকে বাদ না পড়ে। এ কথা শিক্ষামন্ত্রীও বারবার বলে আসছেন বলে জানান তিনি।’
উল্লেখ্য, গত ৯ মে থেকে অনলাইন ও এসএমএসে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন গ্রহণ করা হয়। প্রায় ২৫ দিন পর ৫ জুন প্রথম পর্যায়ের ফল প্রকাশ করা হয়। পরবর্তীতে সময় বাড়িয়ে তিন দফায় আবেদন নেয়া হয়। আর ভর্তি শুরু হয় ২০ জুন থেকে যা শেষ হয় ২৯ জুন। পরবর্তীতে শিক্ষার্থীদের বিষয়টি বিবেচনা করে ৪ জুলাই পর্যন্ত ভর্তির সময় বাড়ানোর নির্দেশ দেয় কর্তৃপক্ষ। চলতি বছর এসএসসি পরীক্ষায় সারাদেশে পাস করা শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১৪ লাখ ৩১ হাজার ৭২২। এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে এক লাখ ৪ হাজার ৭৬১।

 

Leave a comment

Your email address will not be published.