একজনের সিল সাপ্পড়ে অন্যদের কাজিগিরি : আদালতে বক্তব্য উপস্থাপনে অসঙ্গতি

 

 

কাজি নাসিরসহ তার তিন সহযোগীকে জেলহাজতে প্রেরণ

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গা পলাশপাড়ার কাজি নাসির উদ্দীনসহ তিন সহকারী কাজিকে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। চুয়াডাঙ্গার শিশু ও নারী নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল ১ম’র বিজ্ঞ বিচারকের আদেশে গতকাল বৃহস্পতিবার তাদেরকে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়।

ট্রাইব্যুনাল চুয়াডাঙ্গা পলাশপাড়ার হাজি আব্দুল ছাত্তারের ছেলে কাজি নাসির উদ্দীন, আরামপাড়ার মৃত দাউদ হোসেনের ছেলে নাজমুল হক হিরা, গুলশানপাড়ার নূর ইসলামের ছেলে আকরাম হোসেন ও পলাশপাড়ার সুবাদ আলীর ছেলে আব্দুল হালিমের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা রুজুর জন্য সদর থানার ওসিকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গা জেলা সদরের ফুলবাড়িয়ার শিপন আলীর মেয়ে শিরিনা খাতুনের সাথে একই গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে হাবিবার রহমান বিয়ে করে। বিয়ের পর যৌতুকের দাবিতে নির্যাতন করতে থাকে হাবিবুর রহমান ও তার পিতা মাতাসহ নিকটজনেরা। এ অভিযোগ তুলে শিরিনা মামলা দায়ের করেন। মামলাটি চুয়াডাঙ্গার শিশু ও নারী নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন। হাবিবার রহমান আদালতে শিরিনা খাতুনের সাথে বিয়ে অস্বীকার করে। শিরিনা খাতুন বিয়ের প্রয়োজনীয় প্রমাণপত্র আদালতে উপস্থাপন করেন। তাতে কাজী নাসির উদ্দীনের নামসহ সিল সাপ্পড় রয়েছে। কাবিন নামায় নাজমুল হক হিরা হাতের লেখা। এরই এক পর্যায়ে আদালত কাজি নাসির উদ্দীনকে আদালতে হাজির হওয়ার আদেশ দেন। আদালতে তিনি বিয়ে পড়াননি বলে জানিয়ে বলেন, বিয়ে পড়িয়েছে হিরা। আমার নাম ব্যবহার করেছে। এরকম আর কে কে করে? নাসির উদ্দীন কাজি জানান, আকরাম ও হালিমও আমার নাম সিল ব্যবহার করে বিয়ে পড়ায়। তা হলে ওদের বিরুদ্ধে আইনানগ ব্যবস্থা নিচ্ছেন না কেনো? দ্রুত আইনানুগ ব্যবস্থা নিন। এ নির্দেশনা দেয়ার পরও কাজি নাসির উদ্দীন যেমন হিরা, হালিম ও আকরামের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেননি, তেমনই আদালতে গতকাল বৃহস্পতিবার হাজির হয়ে হিরা, আকরাম ও হালিম অসঙ্গতিপূর্ণ বক্তব্য উপস্থাপন করেন। কাজি নাসিরের কথায়ও অসঙ্গতি পরিলক্ষিত হয়। এরই প্রেক্ষিতে বিজ্ঞ ট্রাইব্যুনাল কাজি নাসির উদ্দীন, হিরা, আকরাম ও আব্দুল হালিমকে জেলহাজতে প্রেরণের আদেশ দেন। একই সাথে এদের বিরুদ্ধে প্রতারণাসহ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে নিয়মিত মামলা রুজুর জন্য চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে আদেশ দেন।

Leave a comment

Your email address will not be published.