একই রাতে আলমডাঙ্গার ৪ ইটভাটায় ২০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি

শ্রমিকদের পিটিয়ে জখম করে ২৩টি মোবাইলফোন লুট

 

আলমডাঙ্গা ব্যুরো: একই রাতে আলমডাঙ্গার ৪ ইটভাটায় ২০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করা হয়েছে। সে সময় ইটভাটাগুলোর বেশ কয়েকজন শ্রমিককে বেধড়ক পিটিয়ে ২৩টি মোবাইলসহ নগদ টাকা নিয়ে গেছে। গত বুধবার মধ্যরাতে পূর্ববাংলা কমিউনিস্ট পার্টি এমএলএ জনযুদ্ধের পরিচয় দিয়ে ৭/৮ জনের একটি সশস্ত্র দল ওই ঘটনা ঘটায়।

জানা গেছে, গত বুধবার রাত ১টার দিকে আলমডাঙ্গার ফরিদপুর গ্রামে অবস্থিত চাঁদ আলীর ইটভাটায় আগ্নেয়াস্ত্রসহ ৭/৮ জনের একটি সন্ত্রাসীদল হানা দেয়। এ সময় তারা নিজেদেরকে পূর্ববাংলা কমিউনিস্ট পার্টি এমএলএ (জনযুদ্ধ)’র নেতা বলে দাবি করে। তারা ইটভাটার বেশ কয়েকজন শ্রমিককে পিটিয়ে আহত করে ৭টি মোবাইল ছিনিয়ে নেয়। যাওয়ার সময় ৪ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে একটি চিঠি লিখে যায়। এরপর চাঁদাবাজগ্রুপ পাশের আরেকটি ইটভাটায় যায়, যার মালিক সেলিম হোসেন। এ ইটভাটার শ্রমিকদেরও একইভাবে মারধর করে তাদের নিকট থেকে ৬টি মোবাইলফোন নিয়ে যায়। শেষে ইটভাটা মালিকের নিকট ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে একটি চিঠি লিখে যায়। এরপর তারা বণ্ডবিলে অবস্থিত ঠাণ্ডু মিয়ার ইটভাটায় গিয়ে চড়াও হয়। সেখানকার কয়েকজন শ্রমিককেও বেদম পিটিয়ে জখম করে ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করে ৬টি মোবাইল ফোন কেড়ে নেয়া হয়। শেষে ভাটা ৬ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে মালিক বরাবর চিঠি লিখে রেখে যায়। সবশেষে একেবারে ভোররাতে একটু দূরে অবস্থিত বাবু মুন্সির ইটভাটায় গিয়ে চড়াও হয়। একইভাবে সেখানেও শ্রমিকদের পিটিয়ে জখম করে ভীত-সন্ত্রস্ত শ্রমিকদের নিকট থেকে ৪টি মোবাইলফোন ছিনিয়ে নেয়। সে সময় এক শ্রমিকের নিকট থেকে নগদ ৩ হাজার টাকাও কেড়ে নেয়া হয়। চলে যাওয়ার সময় পূর্বের মতো ৫ লাখ টাকা চাঁদা চেয়ে মালিক বরাবর চিঠি লিখে যায়। প্রত্যেক চিঠিতে জনৈক ব্যক্তি নিজেকে পূর্ববাংলা কমিউনিস্ট পার্টি এমএলএ (জনযুদ্ধ)’র নেতা রাজু আহমেদ দাবি করে চিঠিতে একটি মোবাইল নম্বর লিখে সে নম্বরে মালিকদেরকে যোগাযোগ করতে নির্দেশ দিয়েছেন।

এদিকে, ওই সিরিজ চাঁদা দাবি পিটিয়ে জখম করে গণহারে মোবাইলফোনসহ নগদ টাকা কেড়ে নেয়ার ঘটনায় ভাটা মালিকসহ শ্রমিকদের মাঝে চরম আতঙ্ক ছড়িয়েছে। ওই ঘটনায় ইটভাটা মালিক সেলিম হোসেনের ভাই জাবুর হোসেন বাদী হয়ে গতকাল আলমডাঙ্গা থানায় জিডি করেছেন।

 

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *