এইচ৫এন১ ফ্লুতে কানাডায় প্রথম মৃত্যু

মাথাভাঙ্গা মনিটর: উত্তর আমেরিকায় এইচ৫এন১ বার্ড ফ্লুতে প্রথম একজনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে জানিয়েছেন কানাডার স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা। মারা যাওয়া ব্যক্তি কানাডার আলবের্তা রাজ্যের বাসিন্দা। সম্প্রতি তিনি বেইজিং গিয়েছিলেন। কানাডার স্বাস্থ্যমন্ত্রী রোনা অ্যামব্রোজ একথা জানিয়েছেন। তবে ফ্লুতে এ মৃত্যুকে বিচ্ছিন্ন ঘটনা আখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, এ থেকে সাধারণ মানুষের ঝুঁকির মুখে পড়ার তেমন আশঙ্কা নেই। আলবের্তায় এ মরসুমে সোয়াইন ফ্লু কিংবা এইচ১এন১ ফ্লুতে ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ডব্লিউএইচও বলছে, এইচ৫এন১ ভাইরাসটি মানুষ থেকে মানুষে ছড়ানো কঠিন। তবে এ ভাইরাসে মানুষ একবার আক্রান্ত হলে মৃতের হার প্রায় ৬০ শতাংশেও দাঁড়াতে পারে। কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, কানাডায় এ ফ্লুতে সর্বসাম্প্রতিক মৃত্যুর ঘটনায় আক্রান্ত ব্যক্তির দেহে প্রথম অসুস্থতার লক্ষণ ধরা পড়ে ২৭ ডিসেম্বরে বেইজিং থেকে ভ্যাঙ্কুভারগামী এয়ার কানাডা ফ্লাইটে। পরে অসুস্থতার কারণে ১ জানুয়ারিতে তাকে হাসপাতলে ভর্তি করার দুদিন পর তার মৃত্যু হয়। রোগীর পরিচয় সম্পর্কে স্বাস্থ্য কর্মকতারা বিস্তারিত কিছু জানান নি। ঘটনাটি নিয়ে কানাডার কর্মকর্তারা চীন কর্তৃপক্ষের সাথে কাজ করে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। ডব্লিউএইচও এর তথ্যমতে, ২০০৩ সাল থেকে ২০১৩ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে বিশ্বের ১৫টি দেশে এইচ৫এন১ এ আক্রান্ত হয়েছিলো ৬৪৮ জন। আর মারা যায় ৩৮৪ জন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এ ভাইরাসটি মানুষ থেকে মানুষে সহজেই ছড়িয়ে পড়লে জনস্বাস্থ্যের জন্য তা মারাত্মক পরিণতি ডেকে আনতে পারে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *