ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদলের ককটেল বিস্ফোরণ : শিক্ষকদের বাসে অগ্নিসংযোগ

ইবি প্রতিনিধি: ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ডরমিটরীর সামনে রাখা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি বাসে অগ্নিসংযোগ করেছে ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা। এ সময় দুটি ককটেল বিস্ফোরণের শব্দ পাওয়া গেছে। অগ্নিসংযোগের পর বিশ্ববিদ্যালয় থানার পুলিশ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আনে।

বিশ্ববিদ্যালয়সূত্রে জানা গেছে, পূর্ব ঘোষিত সূচি অনুযায়ী শীতকালীন ছুটি শেষে গতকাল বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কার্যক্রম শুরু হওয়ার কথা ছিলো। তবে হরতাল-অবরোধের কারণে তা সম্ভব না হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সহউপাচার্য অধ্যাপক শাহিনুর রহমানসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের অল্পসংখ্যক শিক্ষক-কর্মকর্তারা সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ে যান। বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রদলের সভাপতি ওমর ফারুক ও সাধারণ সম্পাদক রাশেদুল ইসলামের নেতৃত্বে ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা দলীয় টেন্ট থেকে একটি মিছিল বের করে প্রশাসন ভবন হয়ে ডায়না চত্বরের সামনে দিয়ে প্রধান ফটকের দিকে যাওয়ার সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের থানা পুলিশরা তাদেরকে ধাওয়া দেয়। এ সময় ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা সেখান থেকে পালিয়ে ভেতরে চলে যায়। বেলা পৌনে ১২টার দিকে ছাত্রদলের কিছু নেতাকর্মী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ডরমেটরী ভবনের সামনে রাখা শিক্ষক-কর্মকর্তাদের বহনকারী একটি বাসে অগ্নিসংযোগ করে পালিয়ে যায়। এ সময় দুটি ককটেল বিস্ফোরণের শব্দ পাওয়া গেছে। ঘটনার পরপর বিশ্ববিদ্যালয় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুজ্জামানের নেতৃত্বে পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে যান। ঘটনাস্থলে গিয়ে তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সহযোগিতায় বাসের আগুন নিয়ন্ত্রণে নেন। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য (বর্তমান সহউপাচার্য) অধ্যাপক শাহিনুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

এ ব্যাপারে ছাত্রদলের বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি ওমর ফারুক বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়ার ঘোষিত অবরোধ ও হরতালকে চ্যালেঞ্জ করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন গাড়ি নিয়ে ক্যাম্পাসে যায়। এতে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই গাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে। ককটেল বিস্ফোরণের ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘কে বা কারা ঘটিয়েছে এ ব্যাপারে আমার জানা নেই।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক জাহাঙ্গীর হোসেন  বলেন, ‘আমরা ঘটনা সম্পর্কে পুলিশ প্রশাসনকে অবহিত করে এ ব্যাপারে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ করেছি।’

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *