আলমডাঙ্গা-কুষ্টিয়া সড়কের আসাননগরে রাস্তায় গাছ ফেলে যানবাহনে ডাকাতি : বোমার আঘাতে আহত ১০

আলমডাঙ্গা ব্যুরো: আলমডাঙ্গা-কুষ্টিয়া সড়ক ডাকাতচক্রের কাছে অসহায় হয়ে পড়েছে পুলিশ প্রশাসন। আবারও আলমডাঙ্গা-কুষ্টিয়া সড়কে আলমডাঙ্গা শহরের নিকটবর্তী স্থানে রোডে গাছ ফেলে ডাকাতি সংঘটিত হয়েছে। বেশ কয়েকটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করে গরু ব্যবসায়ীদের তিনটি ট্রাক থামিয়ে সঙ্ঘবদ্ধ ডাকাতচক্র হাতিয়ে নিয়েছে ২ লাখ ৮০ হাজার টাকা। এ সময় ডাকাতচক্রের হামলায় বোমার স্প্লিন্টারের আঘাতে অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। ভাঙচুর করা হয় ২টি ট্রাক ও মিনি ট্রাক।

জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গার বেগমপুর, দোস্তগ্রাম, দুধপাতিলা ও কেষ্টপুর এলাকার ১৯ জন গরু ব্যবসায়ী গত শনিবার রাজশাহীর জয়পুরহাট থেকে গরু কিনে ট্রাকযোগে বাড়ি ফিরছিলেন। রাত প্রায় ১২টা ৪০ মিনিটে ট্রাকটি আলমডাঙ্গা-কুষ্টিয়া সড়কের আসাননগর গ্রাম বরাবর পৌঁছায়। ওই সময় রোডের ওপর আড়াআড়ি গাছ ফেলে রাখা দেখতে পেয়ে তাদের ট্রাকের গতি কমিয়ে দেন ট্রাকড্রাইভার। তাদের ট্রাকের পেছনে আরেকটি মিনি ট্রাক এসে হাজির হয়। ঘটনাস্থলে চুয়াডাঙ্গা থেকে কুষ্টিয়া পানে ছেড়ে যাওয়া একটি ১০ চাকার ট্রাককেও দাঁড় করিয়ে রাখা ছিলো। এ সময় আকস্মিকভাবে ডাকাতচক্র পরপর ৪টি বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতঙ্কগ্রস্ত করে তোলে পরিবেশ। পরে ট্রাকে উঠে গরু ব্যবসায়ীদের কাউকে কাউকে কুপিয়ে জখম করে নিকট থেকে নগদ ২ লাখ ৮০ হাজার টাকা কেড়ে নেয়। বেগমপুরের গরু ব্যবসায়ী জমির উদ্দীনের নিকট থেকে ৮০ হাজার, দুধপাতিলা গ্রামের মিসির আলীর নিকট থেকে ৫৫ হাজার টাকাসহ বিভিন্ন ব্যবসায়ীর নিকট থেকে ২ লাখ ৮০ হাজার টাকা কেড়ে নেয়া হয়েছে। ডাকাতদের হামলায় ও বোমার স্প্লিন্টারের আঘাতে আহত হয়েছেন কেষ্টপুরের আব্দুল লতিফের ছেলে মফিজুল ইসলাম, শুকুর আলীর ছেলে হারুন, বেগমপুরের ইদ্রিস আলীর ছেলে নুরু, বড় দুধপাতিলার জয়নালের ছেলে কামরুল, মিশির, দোস্ত গ্রামের জামাল ব্যাপারী, বদু ব্যাপারী, ডুগডুগি বাজারের শামসুলের ছেলে আমজাদসহ ৮/১০ জন। এদের মধ্যে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন ৫ জন। এছাড়া অন্যরা বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

এদিকে আলমডাঙ্গা-কুষ্টিয়া সড়কের একই স্থানে মাঝে-মধ্যেই ডাকাতির ঘটনা ঘটে। একটা ডাকাতির ঘটনার পর পুলিশ কয়েক দিন তৎপরতা বাড়ালেও ধীরে ধীরে আবার নিষ্ক্রীয় হয়ে পড়ে। এই সড়কে ডাকাতির ঘটনা নিয়মিত ঘটনায় পরিণত হয়েছে বলে অনেকে মন্তব্য করেছেন।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *