আলমডাঙ্গার মুন্সিগঞ্জের মাদারহুদা গ্রামে বিচারের নামে প্রহসন সালিস বৈঠকের নির্দেশে ২৩ কাঠা জমির পানবরজ কেটে দেয়া হয়

???????????????????????????????

মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি: আলমডাঙ্গার জেহালা ইউনিয়নের মাদারহুদা গ্রামে পান চুরির অপবাদ দিয়ে সালিসের মাধ্যমে ২৩ কাঠা জমির পানবরজ কেটে সাবাড় করে দিয়েছে গ্রামের নামধারী কতিপয় মাতব্বর। থানায় মামলা করার পর থানা পুলিশ একজন আসামিকে আটক করলেও আপস মীমাংসার পরে ছেড়ে দিয়েছে। পরে আবারো সালিস করে পানবরজ কাটার অপরাধে কয়েকজনকে ১ লাখ টাকা জরিমানা করে আপস করেছে গ্রাম্য সালিস।

জানা গেছে, গত শুক্রবার আলমডাঙ্গার জেহালা ইউনিয়নের মাদারহুদা গ্রামের মৃত ইছাহকের ছেলে শামিমের পানবরজ থেকে ২ পন পান চুরির অপবাদ দেয়া হয় নৈমদ্দিনের ছেলে লাল্টুকে। বিকেলে সালিসের আয়োজন করা হয়। সালিসে ১ লাখ ২০ হাজার টাকা জমিমানা করা হয়। টাকা না দিলে বাড়ির গরু খুলে আনা হবে বলে জানানো হয়। এব্যাপারে কেউ কথা বললে তাকেও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হবে বলে জানানো হয়। লাল্টু টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে গ্রামের কতিপয় মাতব্বরের নির্দেশে একই গ্রামের তারাচাঁদের ছেলে আলেফ মেম্বার, বিল্লালের ছেলে সোনামিয়া, মুরাদের ছেলে সালাম, ফেলুর ছেলে কালু ও সমির উদ্দিনের ছেলে হুমায়ন ধারালো দা নিয়ে দ্রুত মাঠে গিয়ে ৩টি জমির ২৩ কাটা পানবরজ সম্পূর্ণ কেটে দেয়। তাদের বাধা দিতে গেলে দা নিয়ে তেড়ে আসে ও খুনের হুমকি দেয়।

এ ব্যাপারে লাল্টু অভিযোগ করে জানায়, গত শুক্রবার বিকেল ৩টার দিকে গ্রামের কয়েকজন মাতব্বরের নির্দেশে কতিপয় যুবক সালিস বৈঠক থেকে উঠে বাড়ির গরু জোরপূর্বক ছিনিয়ে আনতে যায়। বাড়ির লোকজন তাদের বাধা দিলে দ্রুত গ্রামের মাঠে গিয়ে ধারালো দা দিয়ে পানবরজ কাটতে থাকে। তাদের বাধা দিতে গেলে ধারালো দা নিয়ে ছুটে আসে এবং খুনের হুমকি দেয়। বর্তমানে পরিবার নিয়ে পথে বসে গিয়েছি। আমি পান চুরি না করলেও আমাকে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে পান চুরির অপবাদ দিয়ে বিচারের নামে আমাকে ১ লাখ টাকা জরিমানা করে। টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে আমার বাড়ির গরু খুলে নিতে চেয়েছিলো। পরে আমার পানবরজ কেটে দেয়।

এ ব্যপারে গতকাল লাল্টুর পিতা নৈমদ্দিন বাদী হয়ে আলমডাঙ্গা থানায় মামলা করলে আলমডাঙ্গা থানা পুলিশ সোনামিয়া নামে একজনকে আটক করে। গতকাল বিকেলে আবারো গ্রাম্য সালিস বসে। গ্রাম্য সালিসে পানবরজ কাটা ব্যক্তিদের ১ লাখ টাকা জরিমানা করে আপস হয়। পরে লাল্টুর পিতা নৈমদ্দিন মামলা তুলে নিলে থানা পুলিশ সোনামিয়াকে ছেড়ে দিয়েছে।

এলাকার সচেতন মহল জানায়, গ্রামের মাতব্বরেরা বিচারের নামে প্রহসন করে অন্যায়ভাবে একজন দরিদ্র চাষির পানবরজ কেটে দিয়েছে। থানায় মামলা হলে অবস্থা বেগতিক দেখে সেই মাতব্বারেরা আবারো সালিসের মাধ্যমে উল্টো ১ লাখ টাকা জরিমানা করে আপস করে। যা এলাকায় বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করেছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *