আলমডাঙ্গার পাইকপাড়ায় বিয়ের দাবিতে প্রেমিকা তার প্রেমিকের বাড়িতে অপর প্রেমিক অন্য প্রেমিকার বাড়িতে অবস্থান

আলমডাঙ্গা ব্যুরো: আলমডাঙ্গা পাইকপাড়া গ্রামে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকা তার প্রেমিকের বাড়িতে এবং প্রেমিক তার প্রেমিকার বাড়িতে অবস্থান নিয়েছে। গত শুক্রবার প্রেমিক রনি রাতে বিয়ের দাবিতে একই গ্রামে প্রেমিকা বিউটির বাড়িতে উঠেছে। গতকাল শনিবার বিকেলে হালসা শাকদারচর থেকে প্রেমিকা ১০ শেণির ছাত্রী ডলি পাইকপাড়া গ্রামের প্রেমিক মানিকের বাড়িতে উঠেছে। একই গ্রামে উল্টো দুটি ঘটনা এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে।
জানা গেছে, আলমডাঙ্গার পাইকপাড়া গ্রামের মৃত রাহাত আলীর ছেলে কুষ্টিয়া ইসলামিয়া কলেজের অনার্স ফাইনাল পরীক্ষার্থী মানিক। প্রায় ৭ মাস আগে মোবাইলের রং নাম্বারে যোগাযোগের সূত্রপাত করে হালসার শাকদারচর গ্রামের রেজাউলের মেয়ে দশম শ্রেণির ছাত্রী ডলির সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলে। মানিক বিভিন্ন এলাকায় ডলিকে নিয়ে গিয়ে পার্কে ঘুরেবেড়ানোসহ বিভিন্নস্থানে মেলামেশা করে। সবশেষে গত মাসে মানিক মেহেরপুরে একটি বাড়িতে নিয়ে যায় ডলিকে। সেখানে সে কিছু লোকজনের সামনে ডলিকে বিয়ের সাজে সাজিয়ে তাকে স্ত্রীর মর্যাদাও দেয়। ডলি অনানুষ্ঠানিক বিয়ের সেই পোশাক-পরিচ্ছদ প্রমাণ হিসেবে নিয়ে গতকাল বিকেলে প্রেমিক মানিকের পাইকপাড়ার বাড়িতে এসে ওঠে। মানিকের সাথে কোনো আলোচনা ছাড়াই বিয়ের দাবি নিয়ে ডলি অনড় অবস্থান নেয়। এ পর্যায়ে খবর পাঠানো হয় ডলির পরিবারের কাছে। তার পরিবারের লোকজন এসে পরবর্তীতে বিয়ের শর্তে ডলিকে নিয়ে বাড়ি ফিরে যান। প্রেমিক মানিক আপাততো হাফ ছেড়ে বাঁচে।
অপরদিকে, একই গ্রাম পাইকপাড়ার মৃত কছিম উদ্দিনের মেয়ে আলমডাঙ্গা মহিলা কলেজের এইচএসসি প্রথম বর্ষের ছাত্রী প্রেমিকা বিউটির বাড়িতে বিয়ের দাবি তুলে অবস্থান নেয় একই গ্রামের বাদলের ছেলে রনি। রনি আলমডাঙ্গা ডিগ্রি কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। সে গত শুক্রবার রাতে বিউটির বাড়িতে বিয়ের দাবি নিয়ে হাজির হয়। বিউটির পরিবারের লোকজন কিছুতেই রনিকে বিয়ে ছাড়া তাদের বাড়ি থেকে সরাতে পারেনি। একই গ্রামে প্রেমিকা তার প্রেমিকের বাড়িতে ও প্রেমিক তার প্রেমিকার বাড়িতে বিয়ের দাবি নিয়ে অবস্থান নেয়ার ঘটনায় এলাকায় মুখরোচক আলোচনার জন্ম দিয়েছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *