অর্থপাচার মামলায় বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে বেকসুর খালাস

চুয়াডাঙ্গা-মেহেরপুর ও ঝিনইদহসহ সারাদেশে বিএনপির আনন্দ মিছিল

 

স্টাফ রিপোর্টার: অর্থপাচার মামলায় বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন আদালত। একই মামলায় ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন আল মামুনকে সাত বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। গতকাল দুপুরে ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ আদালতের বিচারক মোতাহার হোসেন জনাকীর্ণ আদালতে এ রায় দেন।

রায়ে তিনি উল্লেখ করেন, গিয়াস উদ্দিন আল মামুনের বিরুদ্ধে দাখিলকৃত অভিযোগের বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষ যেসব সাক্ষ্য, প্রমাণ, তথ্য-উপাত্ত উপস্থাপন করেছিল তা তারা সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছে। তাই মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইন ২০০২-এর ২(ঠ), অ(আ) ও ১৩ ধারায় সাত বছরের কারাদণ্ড ও ৪০ কোটি টাকা জরিমানা করা হলো। একই সাথে পাচারকৃত ২০ কোটি ৪১ লাখ ২৫ হাজার ৬১৩ টাকা বাজেয়াপ্ত করে রাষ্ট্রের কোষাগারে জমা করার নির্দেশ দেন বিজ্ঞ আদালত। অন্যদিকে একই মামলায় অভিযুক্ত তারেক রহমানের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ রাষ্ট্রপক্ষ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করতে সক্ষম হননি মর্মে অভিযুক্তকে খালাস দেয়া হয়।

DSC04840

অবৈধ অর্থ লেনদেন ও বিদেশে অর্থ পাচারের অভিযোগে ২০০৯ সালের ২৬ অক্টোবর রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট থানায় তারেক রহমান ও গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। পরের বছর ৬ জুলাই তাদের বিরুদ্ধে চার্জশিট দেয়া হয়। চার্জশিট দাখিলের এক বছর পর ২০১১ সালের ৮ আগস্ট মামলার অভিযোগ গঠন করেন আদালত। অভিযোগে বলা হয়, টঙ্গীতে প্রস্তাবিত ৮০ মেগাওয়াট বিদ্যুতকেন্দ্র স্থাপনের জন্য নির্মাণ কনস্ট্রাকশন কোম্পানি লিমিটেডের কর্ণধার খাদিজা ইসলামের কাছ থেকে আসামি গিয়াস উদ্দিন আল মামুন ২০ কোটি ৪১ লাখ ২৫ হাজার ৮৪৩ টাকা আদায় করেন। এ টাকা আদায় করতে তিনি তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর ছেলে তারেক রহমানের প্রভাব খাটান।

রায় ঘোষণার পর খালাসের খবর পেয়ে চুয়াডাঙ্গা-মেহেরপুর ও ঝিনাইদহে বিএনপি আনন্দ মিছিল বের করে। কোথাও কোথাও মিষ্টি বিতরণও করা হয়। চুয়াডাঙ্গা জেলা বিএনপি একাংশ যেমন মিছিল বের করে, তেমনই মনোনয়ন প্রত্যাশীদের পক্ষেও মিছিল করা হয়। দর্শনা, জীবননগর আলমডাঙ্গাতেও মিছিল করা হয়েছে। ………. পাতায় .. কলামে দেখুন)

বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান দুদকের দায়ের করা মিথ্যা অর্থপাচার মামলায় বেকসুর খালাস পাওয়ায় চুয়াডাঙ্গা জেলা বিএনপির উদ্যোগে গতকাল রোববার বাদ আছর জেলা বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত এবং মিষ্টি মুখ করানো হয়। গতকাল ঢাকার ৩ নং বিশেষ জজ আদালতের বিজ্ঞ বিচারক মোতাহার হোসেন এ রায় ঘোষণা করেন। এ রায়ে সন্তুষ্ট হয়ে চুয়াডাঙ্গা জেলা বিএনপি ওই দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। দোয়া অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন ওলামাদলের নেতা হাফেজ আল জাহিদ। দোয়া অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গা জেলা বিএনপির সহসভাপতি এম জেনারেল ইসলাম, সদর পৌর বিএনপির সভাপতি শহিদুল ইসলাম রতন, থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবু জাফর মন্টু, জেলা যুবদলের যুগ্মআহ্বায়ক মোকাররম হোসেন, জেলা শ্রমিকদলের সাধারণ সম্পাদক সাবু তরফদার, জেলা যুবদলের সদস্য আশরাফ বিশ্বাস মিল্টু, মকলেছুজ্জামান মকলেছ, আরিফুজ্জামান পিন্টু, গোলাম কিবরিয়া তিস্তা, সাবেক চেয়ারম্যান রফিকুল হাসান তনু, জেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক শরিফ উর জামান সিজার, সিনিয়র যুগ্মআহ্বায়ক ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সদস্য এমএ তালহা, যুগ্মআহ্বায়ক মঞ্জুরুল জাহিদ, রাজিব খান, সুজন মালিক, জেলা ওলামাদলের সভাপতি ফজলুর রহমান, জেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান কল্যাণফ্রন্টের সভাপতি সুশীল কুমার, থানা বিএনপির সহসভাপতি মনিরুজ্জামান মনি, ইউনিয়ন বিএনপি নেতা আইনুল হক, মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক, মোস্তাফিজুর রহমান হীরা, পৌর বিএনপি নেতা বাদশা শেখ, আবুল বাশার, শ্রমিকদল নেতা শহিদ হোসেন লাড্ডু প্রমুখ।

এদিকে চুয়াডাঙ্গা জেলা বিএনপির অর্থ বিষয়ক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের উদ্যোগে বেলা ৪টার দিকে কোর্টমোড়স্থ দলীয় কার্যালয় থেকে একটি আনন্দ মিছিল বের করে। মিছিলটি কোর্টমোড় থেকে বের হয়ে শহর প্রদক্ষিণ শেষে দলীয় কার্যালয়ে আলোচনাসভার আয়োজন করে। জেলা বিএনপির সাবেক দপ্তর সম্পাদক আইনুর হক পচার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য হাবিবুর রহমান হবি। বিশেষ অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গা জেলা মৎস্যজীবী দলের আহ্বায়ক আবু বক্কর সিদ্দিক বকুল, সাধারণ সম্পাদক ওহিদুল ইসলাম ওহিদ, জেলা কৃষকদলের সভাপতি হামিদুল হক নেতাজী প্রমুখ।

জীবননগর ব্যুরো জানিয়েছে, গতকাল রোববার জীবননগর উপজেলা বিএনপির একাংশ নোয়াব আলী গ্র“প আনন্দ মিছিল করেছে। উপজেলা বিএনপি একাংশের সভাপতি পৌর মেয়র নোয়াব আলীর নেতৃত্বে বিকেলে শহরে এ আনন্দ মিছিল বের করা হয়। আনন্দ মিছিল শেষে দলীয় কার্যালয়ে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে তারেক জিয়ার বেকসুর মুক্তিতে আনন্দ প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন উপজেলা বিএনপির সভাপতি পৌর মেয়র নোয়াব আলী। এছাড়াও বক্তব্য রাখেন উপজেলা মহিলা দলের সভানেত্রী উপজেরা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফারহানা আক্তার রিনি, পৌর বিএনপি সভাপতি পৌর প্যানেল মেয়র মশিউর রহমান, উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক তাজুল ইসলাম, দপ্তর সম্পাদক আনিছুর রহমান শিপলু, পৌর যুবদল সভাপতি আবুল হোসেন তোয়া, বিএনপি নেতা পৌর কাউন্সিলর হযরত আলী, কাউন্সিলর সামসুজ্জামান হান্নু, বিল্লাল হোসেন, মজনুর রহমান, বিশারত আলী, হারুন অর রশিদ, ছাত্রদল নেতা হাসান, রয়েল, বাপ্পা, বিল্লাল, শরিফুল ইসলাম, সুজন, ইয়াদুল, সুমন প্রমুখ।

দর্শনা অফিস জানিয়েছে, দর্শনায় আনন্দ মিছিল করেছে বিএনপি ও যুবদল। গতকাল রোববার বিকেলে দর্শনা পৌর বিএনপির উদ্যোগে একটি আনন্দ মিছিল বের করে। মিছিল শেষে পৌর বিএনপির কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত আলোচনাসভায় বক্তব্য দেন দর্শনা পৌর বিএনপির সভাপতি হাজি খন্দকার শওকত আলী, আজাহার আলী মাস্টার, নুরু মিয়া, যুবদল নেতা জাহাঙ্গীর আলম চঞ্চল, ছাত্রদল নেতা সেলিম মেহফুজ মিল্টন প্রমুখ। দর্শনা পৌর যুবদল ও ছাত্রদল যৌথ উদ্যোগে আনন্দ মিছিল বের করে। মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। পরে দর্শনা পুরোনোবাজার মোড়ে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য দেন যুবদল নেতা নাসির উদ্দিন খেদু, সোহেল তরফদার, সাত্তার, ছাত্রদল নেতা রনি, মনির, লিটন প্রমুখ। পারকৃষ্ণপুর-মদনা ইউনিয়ন বিএনপির উদ্যোগে একটি মিছিল বের করা হয় পারকৃষ্ণপুর বাজার থেকে। মিছিল শেষে ইউনিয়ন বিএনপির কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে আলোচনাসভা। সভায় আলোচনা করেন বিএনপি নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা রেজাউল করিম, শফিউল্লাহ, আনোয়ারুল হক, আমির আলী, লিয়াকত আলী, যুবদল নেতা আনোয়ার, আলীম, সিরাজ, ছাত্রদল নেতা নজরুল, জাকির প্রমুখ।

মেহেরপুর অফিস জানিয়েছে, মেহেরপুর জেলা যুবদল আনন্দ মিছিল শেষে মিষ্টি মুখ করেছে। গতকাল বিকেলে মেহেরপুর জেলা বিএনপির শাহাজীপাড়াস্থ কার্যালয় থেকে একটি আনন্দ মিছিল বের করে। জেলা যুবদলের আহ্বায়ক জহুরুল ইসলাম বড় বাবুর নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল বের হয়। মিছিল শেষে বিএনপির শাহাজীপাড়াস্থ কার্যালয়ে মিষ্টি মুখের আয়োজন করা হয়। এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি নেতা আনোয়ারুল হক কালু, সদর থানা যুবদলের সভাপতি হাসিবুজ্জামান স্বপন, সহসভাপতি আব্দুর রাজ্জাক, যুগ্মসম্পাদক জাহিদ হাসান খান, পৌর যুবদলের সহসভাপতি আনিছুর রহমান লাবলু, রুহুল আমিন, সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান তপন, সদর থানা যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল হাসান পলাশ, যুবদল নেতা একরামুল হক একা প্রমুখ।

মেহেরপুর অফিস আরও জানিয়েছে, মেহেরপুর জেলা ছাত্রদলের উদ্যোগে গতকাল রোববার দুপুরে জেলা ছাত্রদল জেলা বিএনপির কার্যালয়ে মিষ্টি মুখের আয়োজন করে। জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মো. মোস্তাকিম, সহসভাপতি মীর আলমগীর ইকবাল আলম, ছাত্রদল নেতা রেমিম, বিট্টু, কল্লোল, জনি, রিজভী, সানি, লিটন, ইকবাল, আশিক, সোহাগ প্রমুখ সেখানে উপস্থিত ছিলেন।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *