অবরোধের পঞ্চম দিনে ৩১ গাড়িতে আগুন : ভাঙচুর

স্টাফ রিপোর্টার: যানবাহনে অগ্নিসংযোগ, ভাঙচুর, ককটেল বিস্ফোরণ, ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার মধ্যদিয়ে চলছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের ডাকা টানা অবরোধ। গাইবান্ধার পলাশবাড়িতে পিকেটারদের হামলায় আহত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলতাফ হোসেন শনিবার রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছেন। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছেন শুক্রবার রাতে বগুড়ার মহাস্থানগড়ে আহত ট্রাকচালক ইমাদুর রহমান রাজু। অবরোধে চাঁপাইনবাবগঞ্জে জেলা ও দায়রা জজ এবং চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের বাসভবনে ককটেল হামলা চালানো হয়। কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে রেললাইন কেটে ফেলায় মহানগর গোধূলি ট্রেনের ইঞ্জিনসহ ২টি বগি লাইনচ্যুত হয়েছে। রাজধানীতে ৯টিসহ সারাদেশে কমপক্ষে ৩১টি যানবাহনে আগুন দেয়া হয়। সারাদেশে ভাঙচুর করা হয়েছে শতাধিক গাড়ি। রাজধানীতে আওয়ামী লীগের অফিস ও বিটিভি ভবনসহ বিভিন্ন স্থানে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। বিভিন্ন স্থানে সংঘর্ষে আহত হয়েছেন অর্ধশত নেতাকর্মী। আটক করা হয়েছে শতাধিক নেতাকর্মীকে। বগুড়ায় আজ সকাল থেকে ২৪ ঘণ্টা, সিরাজগঞ্জে সকাল-সন্ধ্যা ও পিরোজপুরে আধা বেলা হরতালের ডাক দিয়েছে ২০ দলীয় জোট। এদিকে রাত সাড়ে ৮টার দিকে রাজধানীর গুলশানে খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা সাবিহ উদ্দিন আহমেদের গাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর, খুলনা, বরিশাল, যশোর ও চাঁপাইনবাবগঞ্জসহ কয়েকটি স্থানে আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাহারায় সীমিত আকারে দূরপাল্লার গাড়ি চলছে। অবরোধে রাজধানীতে সকালে গাড়ির সংখ্যা কম থাকলেও দুপুরের পর তা বাড়তে থাকে। আগুনসহ বিক্ষিপ্তভাবে যানবাহন ভাঙচুর ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। শনিবারও ঢাকার রাজপথে দেখা যায়নি নেতাদের। নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় ও আশপাশের এলাকা আগের মতোই অবরুদ্ধ রয়েছে। কার্যালয়ের মূল ফটকে এখনও তালা। তবে রাজধানীর কয়েকটি জায়গায় ঝটিকা মিছিল করে অবরোধকারীরা। রাজধানীসহ সারা দেশে সতর্ক অবস্থায় রয়েছে আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী। পুলিশ, ৱ্যাব, বিজিবিসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সড়কে টহল দিতে দেখা যায়।

রাজধানীতে বিটিভি, আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে ককটেল ও ৯ গাড়িতে আগুন: রামপুরায় বাংলাদেশ টেলিভিশন (বিটিভি) ভবন লক্ষ্য করে ককটেল নিক্ষেপ করা হয়েছে। তবে এতে কেউ হতাহত হয়নি। দুপুর ১টার দিকে দুর্বৃত্তরা বিটিভির দেয়ালের ভেতরে একটি ককটেল নিক্ষেপ করে বলে জানান রামপুরা থানার ওসি মাহবুবুর রহমান। ককটেলটি বিকট শব্দে বিস্ফোরিত হয়। ওই এলাকার নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। জড়িত কাউকে আটক করা যায়নি।

বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে তিনটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে। এ সময় সাদেক (২৪) নামে এক ছাত্রলীগ কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। দুপুর সোয়া ২টার দিকে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হয় বলে পল্টন থানার এসআই মশিউর রহমান জানান। তিনি বলেন, কয়েক যুবক হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পালানোর সময় এক মিনিবাসচালক এক যুবককে জাপটে ধরেন। আটকের পর ওই যুবক নিজেকে ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগের (দক্ষিণ) সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান আনিস এবং সাংগঠনিক সম্পাদক এএসএম ফারেজ সামির কর্মী বলে দাবি করেন। তাকে পল্টন থানায় নিয়ে আসা হয়। থানার ডিউটি অফিসার এসআই শওকত জানান, আটককৃত যুবক এলোমেলো তথ্য দিচ্ছে। একবার নিজেকে ছাত্রদলকর্মী আবার ছাত্রলীগকর্মী বলে দাবি করছেন।

এছাড়া সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় কমলাপুরে পীরজঙ্গী মাজারসংলগ্ন রাস্তায় বেশ কয়েকটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। স্থানীয় লোকজন জানান, সেখানে কমপক্ষে ৮টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে।

এদিকে সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে শাহবাগ মোড়ে মতিঝিল-আবদুল্লাহপুর রুটের বেলাল এন্টারপ্রাইজ নামে একটি বাসে আগুন দেয়া হয়েছে। সকালে ফার্মগেটে তেজগাঁও মহিলা কলেজের সামনে যাত্রাবাড়ী-গাবতলী রুটের যাত্রীবাহী একটি বাসে আগুন দেয়। এতে অমূল্য বর্মণ (৪৫) নামে এক যাত্রী আহত হন। তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। অমূল্যের শরীরের অন্তত ১০ শতাংশ পুড়ে গেছে। সায়েদাবাদ থেকে গাবতলী যাওয়ার পথে তেজগাঁও মহিলা কলেজের সামনে পৌঁছার পর দুই মোটরসাইকেল আরোহী বাসের দিকে পেট্রলবোমা ছুড়ে মারে। হাত দিয়ে ঠেকানোর চেষ্টা করলেও তার শরীরে আগুন ধরে যায়।

সকাল ৮টার দিকে মতিঝিলের মধুমিতা সিনেমা হলের সামনে সোনালী ব্যাংকের স্টাফ বাসে আগুন দিয়ে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। হুড়োহুড়ি করে নামতে গিয়ে ওই বাসের চালকের সহকারী আহত হয়েছেন। সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে মধ্য বাড্ডায় একটি লেগুনা গাড়িতে আগুন দেয়া হয়েছে। রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকা লেগুনাটিতে কয়ে যুবক হঠাৎ আগুন দেয়। পরে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা গিয়ে আগুন নেভান।

সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে রাজধানীর খিলগাঁও মাটির মসজিদসংলগ্ন রাস্তায় তরঙ্গ পরিবহনের একটি বাসে আগুন দেয়া হয়। যাত্রাবাড়ী সাদ্দাম মার্কেটের সামনে গোধূলি পরিবহনের একটি ও মালিবাগ চৌধুরীপাড়ায় আরেকটি যাত্রীবাহী বাসে অগ্নিসংযোগ করে অবরোধকারীরা। আগুন দেয়ার পর তাড়াহুড়ো করে যাত্রীরা বাস থেকে নেমে যান। ফায়ার সার্ভিস নিয়ন্ত্রণ কক্ষসূত্র এই তথ্য জানায়। এছাড়া কাকরাইলে একটি কাভার্ড ভ্যানে আগুন ও কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে।

সকাল ১০টার দিকে শাহীনবাগে গাড়ি ভাংচুর ও একটি প্রাইভেট কারে আগুন দিয়েছে শিবিরকর্মীরা। জাহাঙ্গীরগেটে ছাত্রশিবির কর্মীরা ইট-পাটকেল ও লাঠিসোটা নিয়ে রাজপথ অবরোধ করে। একপর্যায়ে তারা গাড়ি ভাংচুর শুরু করে। এ সময় তারা অন্তত ১০টি গাড়ি ভাঙচুর ও একটি প্রাইভেটকারে আগুন দেয়। সড়কে কিছু সময়ের জন্য যান চলাচল বন্ধ ও যানজট দেখা দেয়। এতে নেতৃত্ব দেন ঢাকা মহানগরী উত্তরের শিবির নেতা মুজাহিদ হোসাইন অপু ও হাসান আল বান্না।

ভাটারার নতুন বাজার এলাকায় যাত্রীবাহী বাসে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করেছে অবরোধ সমর্থকরা। এতে বাসযাত্রী সবুজা বেগম নামে একজন নারী মাথায় আঘাত পান। তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সবুজাকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন আবুল কালাম নামে এক ব্যক্তি। সবুজা সকালে ৪/এ, রুটের সুপ্রভাত বাসে করে যাচ্ছিলেন। এ সময় নতুন বাজার এলাকায় দুর্বৃত্তরা বাসে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ শুরু করে। একটি ইট সবুজা বেগমের মাথায় লাগে। এছাড়া রাজধানীর বিভিন্ন জায়গায় বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাংচুর ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় দুর্বৃত্তরা।

দূরপাল্লার রুটে যান চলাচল কিছুটা বেড়েছে: আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর পাহারায় সড়ক-মহাসড়কে দূরপাল্লার গাড়ি চলাচল গত কয়েক দিনের তুলনায় কিছুটা বেড়েছে। বিশ্ব ইজতেমা এবং সাপ্তাহিক ছুটির দিন উপলক্ষে শনিবার যাত্রী উপস্থিতি বেশি ছিল। তবে কাটেনি আতংক। কমেনি যাত্রী ভোগান্তি। নিরাপত্তা ও পরিবহন সংকটের দোহাই দিয়ে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে পরিবহন শ্রমিকরা।

পরিবহন সংশ্লিষ্টরা জানান, সড়ক-মহাসড়কে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরদারি বাড়ানো হলেও দেশের বিভিন্ন স্থানে গাড়ি ভাঙচুর, ককটেল ও ঢিল ছোড়ার ঘটনা ঘটছে। এতে আতঙ্কিত পরিবহন মালিক, শ্রমিক ও যাত্রীরা। নিরাপত্তার অভাবে অনেক মালিক গাড়ি ছাড়েননি। রাজধানীর বাস টার্মিনালগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সায়েদাবাদ, মহাখালী ও গাবতলী বাস টার্মিনাল থেকে দূরপাল্লার অনেক বাস ছেড়ে গেছে। একইভাবে বিভিন্ন জেলা থেকে গাড়ি ঢাকায় এসেছে।

লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক: নৌপথে লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) কর্মকর্তারা। বিশ্ব ইজতেমা উপলক্ষে বিপুলসংখ্যক যাত্রী নৌপথে ঢাকায় আসছেন। শনিবার দেশের দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন রুটের অর্ধশতাধিক লঞ্চ ঢাকায় এসেছে। একইসংখ্যক লঞ্চ ছেড়ে গেছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *