সাঙ্গাকারায় পিষ্ট বাংলাদেশ

স্টাফ রিপোর্টার: কুমার সাঙ্গাকারা পেয়ে গেছেন ক্যারিয়ারের প্রথম ত্রিশতক। আর তাতেই রানের পাহাড়ে চাপা পড়েছে বাংলাদেশ। চট্টগ্রাম টেস্টের দ্বিতীয় দিন ৫৮৭ রানের বিশাল সংগ্রহ তাড়া করতে নেমে শূন্য রানে বোল্ড হয়ে স্বাগতিকদের আরো চাপে ফেলে দেন তামিম ইকবাল। তবে শামসুর রহমান ও ইমরুল কায়েসের দৃঢ়তায় দিনশেষে ৮৬ রান যোগ করতে আর কোনো উইকেট হারায়নি বাংলাদেশ। জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষে ৫০১ রানে পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ। অতিথিদের আবার ব্যাট করাতে আরো ৩০২ রান চাই স্বাগতিকদের।দিনের শেষ সেশনে ব্যাট করতে নেমে চতুর্থ বলেই সহঅধিনায়ক তামিমকে হারায় বাংলাদেশ। সুরঙ্গা লাকমলের নিচু হয়ে যাওয়া বলের লাইনে যেতে না পেরে বোল্ড হয়ে যান তামিম। একবার করে জীবন পেয়ে দ্বিতীয় উইকেটে ৮৬ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়েছেন শামসুর ও সোয়া দু বছর পর টেস্ট খেলতে নামা ইমরুল। শামসুর ৪৫ ও ইমরুল ৩৬ রান নিয়ে আজ বৃহস্পতিবার আবার ব্যাট করতে নামবেন ইনিংস পরাজয় এড়ানোর লক্ষ্যে। সকালে ৫ উইকেটে ৩১৪ রান নিয়ে খেলা শুরু করে শ্রীলঙ্কা। সাঙ্গাকারার দৃঢ়তায় শেষ ৫ উইকেট হারিয়ে আরো ২৭৩ রান যোগ করে অতিথিরা। বাংলাদেশের বিপক্ষে এটি শ্রীলঙ্কার দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান। ঢাকায় গত টেস্টের ৭৩০/৬ অতিথিদের সর্বোচ্চ। সাঙ্গাকারার সাথে আগের দিনের ২ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি ৯০ পর্যন্ত নিয়ে যাওয়ার পর বিচ্ছিন্ন হন মিরপুর টেস্টে শতক করা কিথুরুয়ান ভিথানাগে (৩৫)। অনিয়মিত স্পিনার নাসির হোসেনের বলে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়েন তিনি। পরের ওভারে দিলরুয়ান পেরেরাকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলন সাকিব আল হাসান। অষ্টম উইকেটে অজন্তা মেন্ডিসের সাথে সাঙ্গাকারার ১০০ রানের আরেকটি চমৎকার জুটির সৌজন্যে পাঁচশ পার হয় শ্রীলঙ্কা। অর্ধশতকের সম্ভাবনা জাগানো মেন্ডিসকে (৪৭) এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলে শতরানের জুটি ভাঙেন সাকিব। এই বাঁহাতি স্পিনারের ঘূর্ণিতেই বিভ্রান্ত হয়ে শূন্য রানে বিদায় নেন দশ নম্বর ব্যাটসম্যান লাকমল।

মধ্যাহ্ন-বিরতির আগেই ৩০১ বলে ক্যারিয়ারের নবম ও বাংলাদেশের বিপক্ষে তৃতীয় দ্বিশতকে পৌঁছুনো সাঙ্গাকারা ততোক্ষণে প্রথম ত্রি-শতকের সম্ভাবনা জাগিয়েছেন। শেষ ব্যাটসম্যান নুয়ান প্রদীপের ৫৪ রানের জুটি গড়ার পথে আরাধ্য ত্রি-শতকে পৌঁছান সাঙ্গাকারা। সাকিবের দু বলে ছক্কা হাঁকিয়ে ত্রিশতকে পৌঁছুনো সাঙ্গাকারাকে বিদায় করে শ্রীলঙ্কাকে থামান নাসির। তার বলে লংঅনে সোহাগ গাজীর হাতে ধরা পড়েন সাঙ্গাকারা। বাঁহাতি ব্যাটসম্যানের ৪৮২ বলের ইনিংসে ছিল ৩২টি চার ও ৮টি ছক্কা। বাংলাদেশের বিপক্ষে এটা কোনো ব্যাটসম্যানের প্রথম ত্রিশতক, সর্বোচ্চ রানতো বটেই। বাংলাদেশের বিপক্ষে সর্বোচ্চ রান ছিলো রামনরেশ সারওয়ানের। ২০০৪ সালে কিংস্টনে ২৬১ রানে অপরাজিত ছিলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের এ ডানহাতি ব্যাটসম্যান। বাংলাদেশের পক্ষে ১৪৮ রানে ৫ উইকেট নেন সাকিব আল হাসান। এ নিয়ে ১১ বার ইনিংসে ৫ উইকেট নিলেন সাকিব। চোটের কারণে দ্বিতীয় দিন মাঠে নামেননি বাংলাদেশের অধিনায়ক ও উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহিম। তার বদলে কিপিং করেছেন শামসুর। আগের দিন চোট পাওয়া আব্দুর রাজ্জাক দ্বিতীয় দিনও মাঠে নামেননি। সংক্ষিপ্ত স্কোর: শ্রীলঙ্কা: ৫৮৭ (করুনারত্নে ৩১, সিলভা ১১, সাঙ্গাকারা ৩১৯, জয়াবর্ধনে ৭২, চান্দিমাল ২৭, ম্যাথিউস ৫, ভিথানাগে ৩৫, পেরেরা ১, মেন্ডিস ৪৭, লাকমল ০, প্রদীপ ৪*; সাকিব ৫/১৪৮, নাসির ২/১৬, আল-আমিন ১/৮১, মাহমুদুল্লাহ ১/১১০, সোহাগ ১/১৮১)বাংলাদেশ: ৮৬/১ (তামিম ০, শামসুর ৪৫*, ইমরুল ৩৬*; লাকমল ১/১৮)

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *