মিরপুরে দ্বিতীয় ম্যাচে মুশফিকের ইচ্ছে পূরণ করলো বাংলাদেশ দল

আবার দাপুটে সিরিজ জয়

 

স্টাফ রিপোর্টার: প্রথম ম্যাচে জয় পেয়ে অধিনায়ক বলেই ফেলেছিলেন মনের কথাটা, সিরিজ জয়ের জন্য শেষ ম্যাচের অপেক্ষায় থাকতে চান না তিনি। মিরপুরে দ্বিতীয় ম্যাচে মুশফিকের ইচ্ছে পূরণ করলো বাংলাদেশ দল। মাঠের সব বিভাগে শ্রেষ্ঠত্ব দেখিয়ে ৪০ রানে নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে সিরিজের শেষ ম্যাচটিকে তারা বানিয়ে দিলো নিছক আনুষ্ঠানিকতা।

অতিথিদের সামনে ২৪৮ রানের লক্ষ্য দিয়েছিলো স্বাগতিকরা। তবে মোটামুটি এ সংগ্রহ তাড়া করতে গিয়ে ৪৬ ওভার ৪ বলে ২০৭ রানে অলআউট নিউজিল্যান্ড। ২০১০ সালের পর আবার অতিথিদের সামনে তাই সব ম্যাচে পরাজয়ের শঙ্কা। ম্যাচের স্কোরকার্ড বিভিন্ন সময়ে যাই বলুক, ব্যাট করতে নেমে কখনই ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিতে পারেনি নিউজিল্যান্ড। নিয়মিত উইকেট নিয়ে সবসময়ই তাদের চাপে রেখেছিলো বাংলাদেশ। ম্যাচের তৃতীয় ওভারেই যার পথ দেখিয়েছিলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। দেশসেরা এ পেসারের বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরের পথ ধরেন হামিশ রাদারফোর্ড (১)। অ্যান্টন ডেভসিচ ও গ্র্যান্ট এলিয়টের ৪০ রানের দ্বিতীয় উইকেট জুটি ভেঙে দৃশ্যপটে আসেন স্পিনাররা। ১৩তম ওভারের শেষ বলে ফিরতি ক্যাচ নিয়ে ডেভসিচকে (১৯) ফেরত পাঠান অফস্পিনার সোহাগ গাজী।

পরের ওভারের প্রথম বলে বাঁহাতি স্পিনার আব্দুর রাজ্জাক এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন এলিয়টকে। চতুর্থ উইকেটে কোরি অ্যান্ডারসনের সাথে রস টেইলরের ৬১ রানের জুটি ভাঙেন মাশরাফি। তবে এতে বড় অবদান অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমের। অ্যান্ডারসনের (৩৭) ব্যাটের কানায় লেগে বল প্রথম স্লিপের দিকে যাওয়ার সময় বাঁদিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে গ্লাভসবন্দী করেন তিনি। টেইলরের সাথে অধিনায়ক ব্রেন্ডন ম্যাককালামের জুটি স্বাগতিকদের স্বপ্ন ভঙ্গের হুমকি হয়ে ওঠার আগেই ভেঙে দেন মুমিনুল হক। ম্যাককালামকে (১৪) এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলে অতিথিদের বিশাল এক ধাক্কা দেন বাঁহাতি এ স্পিনার।

পরের ওভারেই টম ল্যাথামের (০) রান-আউট বিপদ আরো বাড়ায়। পাওয়ার প্লেতে জেমস নিশামকে নাঈম আর বিপজ্জনক টেইলরকে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের ক্যাচে পরিণত করে বাংলাদেশের জয়কে সময়ের ব্যাপারে পরিণত করেন সোহাগ। এরপরও চেষ্টা করেছিলেন নাথান ম্যাককালাম ও কাইল মিলস। মুমিনুল নাথানকে (২৫) মাহমুদুল্লাহর ক্যাচে পরিণত করার পর লড়াই চালিয়ে যান মিলস। এক প্রান্তে মিলস ২৭ রানে অপরাজিত থাকলেও টিম সাউদিকে বোল্ড করে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টানা দ্বিতীয় সিরিজ জয় নিশ্চিত করেন মাশরাফি। অতিথিদের বিপক্ষে ওয়ানডেতে এটি বাংলাদেশের এটি টানা ষষ্ঠ জয়। বাংলাদেশের পক্ষে মাশরাফি ও সোহাগ তিনটি করে উইকেট নেন। এর আগে মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ৪৯ ওভারে ২৪৭ রানে অলআউট হয়ে যায় বাংলাদেশ।

অভিষিক্ত শামসুর রহমানের সাথে তামিম ইকবালের ৬৩ রানের উদ্বোধনী জুটি বাংলাদেশকে ভালো সূচনা এনে দিলেও রানের গতি ছিলো ধীর। এনামুল হকের জায়গায় খেলতে নেমে নিজেকে গুটিয়ে রেখেছিলেন শামসুর। রান রেটের চাপে এগিয়ে এসে খেলতে গিয়ে নাথান ম্যাককালামের বলে শামসুর (২৫) স্টাম্পিং হয়ে গেলে ভাঙে ১০১ বল স্থায়ী জুটি। এরপর কোরি অ্যান্ডারসনের বলে পুল করতে গিয়ে নাথানের হাতে ধরা পড়েন মুমিনুল (৩৪)। দেখেশুনে খেলে অর্ধশতকে পৌঁছুনোর পরপরই আক্রমণাত্মক খেলতে গিয়ে অ্যান্ডারসনের বলে বোল্ড হয়ে যান তামিম। ম্যাচের সর্বোচ্চ ৫৮ রান করা তামিমের ৮৬ বলের ইনিংসে ছিলো ৫টি চার ও ১টি ছক্কা।

প্রথম ম্যাচে দলকে লড়াইয়ের পুঁজি গড়ে দেয়া অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম ও নাঈম ইসলাম দলকে ৩ উইকেটে ১৬৯ রানের স্বস্তিকর জায়গায় নিয়ে যান। কিন্তু ব্যাটিং পাউয়ার প্লেতে পরপর তিন ওভারে মুশফিক (৩১), নাঈম (১৬) ও নাসির হোসেনের (৩) বিদায় স্বাগতিকদের অস্বস্তিতে ফেলে দেয়। ১৭৩/৬-এ পরিণত হওয়া বাংলাদেশকে আড়াইশ’র কাছাকাছি নিয়ে যাওয়ার কৃতিত্ব সোহাগ গাজী (২৬), মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ (২১) ও মাশরাফি বিন মুর্তজার (১৪) কার্যকর ইনিংসের।

সপ্তম উইকেটে সোহাগ-মাহমুদুল্লাহর ৪৮ রানের চমৎকার জুটি ভাঙা অ্যান্ডারসন ৪০ রানে ৪ উইকেট নিয়ে নিউজিল্যান্ডের সেরা বোলার। রুবেল হোসেনকে বোল্ড করে এক ওভার বাকি থাকতেই স্বাগতিকদের ইনিংস থামিয়ে দেয়া জেমস নিশাম ৪ উইকেট নেন ৫৩ রানে। এটি বাংলাদেশের ১৫তম দ্বিপাক্ষিক সিরিজ জয়। আর দেশের মাটিতে টানা দ্বিতীয় সিরিজ জিতলো মুশফিকরা। গত ডিসেম্বরে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ৩-২ ব্যবধানে হারিয়েছিলো বাংলাদেশ। সংক্ষিপ্ত স্কোর: বাংলাদেশ: ৪৯ ওভারে ২৪৭ (তামিম ৫৮, অ্যান্ডারসন ৪/৪০, নিশাম ৪/৫৩। নিউজিল্যান্ড: ৪৬.৪ ওভারে ২০৭, টেইলর ৪৫, অ্যান্ডারসন ৩৭। সোহাগ ৩/৩৪, মাশরাফি ৩/৪৩। ম্যান অব দ্য ম্যাচ: সোহাগ গাজী

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *