ভারতকে বিধ্বস্ত করে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি পাকিস্তানের

 

মাথাভাঙ্গা মনিটর: ভারতকে ১৮০ রানের বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে প্রথমবারের মতো আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির চ্যাম্পিয়ন হয়েছে পাকিস্তান। ২৫ বছর পর আইসিসির কোনো ইভেন্টে শিরোপা পেয়েছে ইমরান-ওয়াসিমের উত্তরসূরীরা। আর আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে সবচেয়ে বড় ব্যবধানে জয়ের রেকর্ডও করেছে সরফরাজ বাহিনী। এর আগে ২০০৩ সালে অস্ট্রেলিয়া-ভারতের ম্যাচটি ছিলো সর্বোচ্চ ব্যবধানে জয়ের। সেবার অস্ট্রেলিয়া ভারতের বিরুদ্ধে ১২৫ রানের জয় পেয়েছিলো।

ফাইনালে ক্যারিয়ার সেরা ব্যাটিংয়ে ফখর জামান আর শেষের ঝড়ে মোহাম্মদ হাফিজ দলকে এনে দিয়েছিলেন বিশাল সংগ্রহ। জিততে রেকর্ড গড়তে হতো ভারতকে, অসাধারণ বোলিং করা মোহাম্মদ আমির, জুনায়েদ খান, হাসান আলিরা তার ধারে কাছে যেতে দেননি বিরাট কোহলির দলকে। লন্ডনের ওভালে রোববার টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ৪ উইকেটে ৩৩৮ রান করে পাকিস্তান। কোনো টুর্নামেন্টের ফাইনালে এটাই তাদের সর্বোচ্চ রান। ওয়ানডেতে আগে ব্যাট করে এটাই ভারতের বিপক্ষে তাদের সর্বোচ্চ রান। এর আগে দুইবার ৩২৯ রান করেছিলো পাকিস্তান।

শিরোপা ধরে রাখতে পাকিস্তানের বিপক্ষে নিজেদের সর্বোচ্চ রান তাড়া, চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে সর্বোচ্চ রান তাড়া আর ইংল্যান্ডের মাটিতে নিজেদের সর্বোচ্চ রান তাড়ার রেকর্ড গড়তে হতো ভারতকে। ব্যাটিং ব্যর্থতায় লক্ষ্য ছোঁয়ার আশাও জাগাতে পারেনি। ৩০ ওভার ৩ বলে গুটিয়ে যায় ১৫৮ রানে।

চোট কাটিয়ে ফেরা বাঁহাতি পেসার আমির শুরুতেই কাঁপিয়ে দেন ভারতকে। লক্ষ্য তাড়ায় পথ দেখাতে দলটি তাকিয়ে ছিলো ছন্দে থাকা টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যানের দিকে। তাদের দ্রুত বিদায় করে কাজটা ভীষণ কঠিন করে তুলেন আমির।

তৃতীয় বলেই এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন রোহিত শর্মাকে। পরের ওভারে আমির শিকার আরও বড়। লক্ষ্য তাড়ার মাস্টার ব্যাটসম্যান কোহলিকে ফেরান মাত্র ৫ রানে। আগের বলেই ফিরতে পারতেন ভারতের অধিনায়ক, স্লিপে তার ক্যাচ জমাতে পারেননি আজহার আলি। পরের বলে ব্যাটের কানায় লেগে ক্যাচ যায় পয়েন্টে। দুই সঙ্গী দ্রুত বিদায়ে সবে ডানা মেলতে শুরু করেছিলেন টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক শিখর ধাওয়ান। তাকে সরফরাজের গ্লাভসবন্দি করে ম্যাচ প্রায় মুঠোয় নিয়ে নেন আমির। ৩৩ রানে টপ অর্ডারের ৩ ব্যাটসম্যানকে হারানো ভারত তাকিয়ে ছিলো দুই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান যুবরাজ সিং ও মহেন্দ্র সিং ধোনির দিকে। দলের বিপদে ত্রাতা হতে পারেননি তারা। লেগ স্পিনার শাদাব খানের বলে রিভিউ নিয়ে যুবরাজকে বিদায় করে পাকিস্তান। হাসান আলিকে উড়ানোর চেষ্টায় সীমানার কাছে ধরা পড়েন ধোনি। ১৮ বছর বয়সী লেগ স্পিনার শাদাবের দ্বিতীয় শিকার কেদার যাদব। হার্দিক পান্ডিয়ার ছক্কা বৃষ্টিতে সপ্তম উইকেটে ৯.৩ ওভারে রবীন্দ্র জাদেজা সাথে গড়ে উঠে ৮০ রানের জুটি। পাকিস্তানের স্পিনারদের দিশেহারা করে দেয়া পান্ডিয়া ফেরেন ভুল বোঝাবুঝিতে রান আউট হয়ে। ক্ষোভ-হতাশা নিয়ে ফেরা অলরাউন্ডারের ৪৩ বলে খেলা ৭৬ রানের বিধ্বংসী ইনিংসটি গড়া ৬টি ছক্কা ও ৪টি চারে। এরপর আর বেশিদূর এগোয়নি ভারতের সংগ্রহ। মাত্র ৬ রানে দলটি হারায় শেষ ৪ উইকেট। দুই পেসার আমির ও হাসান নেন তিনটি করে উইকেট। দুটি উইকেট শাদাবের। এর আগে বোলারদের লড়াইয়ের পুঁজি এনে দেয়ার পথে পাকিস্তানের শুরুটা ছিলো সতর্ক। দুই ব্যাটসম্যানকে বেধে রেখেছিলেন ভুবনেশ্বর কুমার। তার ৫ ওভারের প্রথম স্পেলে ডট ছিলো ২৩টি। জাসপ্রিত বুমরাহর এলোমেলো বোলিংয়ের সাথে ভাগ্যেরও খানিকটা সহায়তা পেয়েছিলো পাকিস্তান। ৩ রানে ক্যাচ দিয়েও নো বুমরাহর ‘নো’ বলের কল্যাণে বেঁচে যান জামান। আজহার আলির সাথে গড়েন ২৩ ওভারে ১২৮ রানের চমৎকার এক জুটি। দুই বিশেষজ্ঞ স্পিনার রবিন্দ্র জাদেজা ও রবীচন্দ্রন অশ্বিনকে দুজনে খেলেছেন খুব সহজে।

আইসিসি টুর্নামেন্টে ভারতের বিপক্ষে এটাই পাকিস্তানের শতরানের প্রথম উদ্বোধনী জুটি। ১৯৯৬ সালে সাঈদ আনোয়ার, আমির সোহেলের ৮৪ ছিলো আগের সেরা। ভুল বোঝাবুঝিতে ভাঙে পাকিস্তানের উদ্বোধনী জুটি। ৬টি চার আর একটি ছক্কায় ৫৯ রান করে ফেরেন আজহার। তার বিদায়ের পর রানের গতি বাড়ানোর দিকে মনোযোগ দেন জামান। দ্বিতীয় উইকেটে বাবর আজমের সাথে গড়েন ৭২ রানের দারুণ এক জুটি। ৬০ বলে অর্ধশতক স্পর্শ করা জামান তিন অঙ্কে যান ৯২ বলে। শেষ পর্যন্ত ১০৬ বলে ফেরেন ১২টি চার আর তিনটি ছক্কায় ১১৪ রান করে। ওয়ানডেতে বাঁহাতি উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানের এটাই প্রথম শতক। শুরুতে আঁটসাঁট বোলিং করা ভুবনেশ্বরকে উড়ানোর চেষ্টায় ফেরেন শোয়েব মালিক। আগের ম্যাচে বাংলাদেশের দুই থিতু ব্যাটসম্যানকে বিদায় করে ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দেয়া অনিয়মিত স্পিনার কেদার যাদবের এবার শিকার বাবর। টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান ফেরেন চারটি চারে ৪৬ রান করে।

পাকিস্তান ইনিংসের তখনও ৭.৩ ওভার বাকি। অবাক করে দিয়ে অধিনায়ক সরফরাজের জায়গায় ব্যাটিংয়ে আসেন ইমাদ ওয়াসিম। প্রমোশন পাওয়া এই অলরাউন্ডার মোহাম্মদ হাফিজের সাথে অবিচ্ছিন্ন পঞ্চম উইকেটে গড়েন ৭১ রানের জুটি। ৩৪ বলে অর্ধশতক পাওয়া হাফিজ অপরাজিত ৫৭ থাকেন রানে। ৩৭ বলে খেলা তার ঝড়ো ইনিংসটি গড়া ৪টি চার আর তিনটি ছক্কায়।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: পাকিস্তান: ৫০ ওভারে ৩৩৮/৪ (আজহার ৫৯, জামান ১১৪, বাবর ৪৬, মালিক ১২, হাফিজ ৫৭*, ওয়াসিম ২৫*; ভুবনেশ্বর ১/৪৪, বুমরাহ ০/৬৮, অশ্বিন ০/৭০, পান্ডিয়া ১/৫৩, জাদেজা ০/৬৭, কেদার ১/২৭)

ভারত: ৩০.৩ ওভারে ১৫৮ (রোহিত ০, ধাওয়ান ২১, কোহলি ৫, যুবরাজ ২২, ধোনি ৪, কেদার ৯, পান্ডিয়া ৭৬, জাদেজা ১৫, অশ্বিন ১, ভুবনেশ্বর ১*, বুমরাহ ১; আমির ৩/১৬, জুনায়েদ ১/২০, হাফিজ ০/১৩, হাসান ৩/১৯, শাদাব ২/৬০, ওয়াসিম ০/৩, জামান ০/২৫) ফল: পাকিস্তান ১৮০ রানে জয়ী ম্যান অব দ্য ম্যাচ: ফখর জামান।

 

 

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *