বিশ্ব জয়ের ময়দানেই স্পেনের হার

0
32

মাথাভাঙ্গা মনিটর: ‘প্রিয়’ জোহানেসবার্গের সকার সিটিতে ফেরাটা সুখের হলো না স্পেনের। ২০১০ সালের বিশ্বকাপে এ স্টেডিয়ামেই চ্যাম্পিয়ন হওয়া স্পেনকে একমাত্র গোলে হারিয়ে ঐতিহাসিক জয় পেয়েছে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা। তবে ফিফা ম্যাচটি বাতিল করে দিতে পারে কারণ স্পেন ম্যাচে প্রীতি ম্যাচের জন্য নির্ধারিত ছয় জনের বদলে সাতজনকে বদলি হিসেবে মাঠে নামিয়েছে। বিশ্ব ও ইউরোপ চ্যাম্পিয়নরা খেলিয়েছে তিন গোলরক্ষককেও। চলতি বছরে নিজেদের শেষ ম্যাচে প্রত্যাশিত ফুটবল খেলতে পারেনি ভিসেন্তে দেল বস্কের শিষ্যরা। প্রাপ্য জয়ই পেয়েছে ‘বাফানা বাফানা’ নামে পরিচিত দক্ষিণ আফ্রিকা। গত মঙ্গলবার রাতের উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচটির একমাত্র গোলটি এসেছে বার্নার্ড পার্কারের পা থেকে। খেলার প্রথম পরিস্কার সুযোগটি পেয়েছিলো দক্ষিণ আফ্রিকাই। পাল্টা আক্রমণ থেকে ১৭ মিনিটে ওপা মেনিইসার শট ক্রসবারে লাগলে হতাশ হতে হয় তাদের। ১০ মিনিট পর অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয় স্পেনের ফার্নান্দো লরেন্তের হেড। প্রথমার্ধে আরো দু’বার হতাশায় পুড়তে হয় আফ্রিকা অঞ্চল থেকে বিশ্বকাপে উঠতে ব্যর্থ হওয়া দলটিকে। ৩৩ মিনিটে ডেলন ক্লাসের জোরালো শট আর অতিরিক্ত সময়ের দ্বিতীয় মিনিটে পার্কারের হেড চলে যায় বার ঘেঁষে। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে টোকেলো রন্টির শট বারের ওপর দিয়ে চলে না গেলে তখনই এগিয়ে যেতে পারতো দক্ষিণ আফ্রিকা। ছয় মিনিট পর দারুণ একটি সুযোগ এসেছিলো আন্দ্রেস ইনিয়েস্তার সামনে। তবে সে যাত্রায় দলকে রক্ষা করেন স্বাগতিক গোলরক্ষক খুনে। ৫৬ মিনিটে আর হতাশ হতে হয়নি স্বাগতিকদের। মোকোতজোর ক্রস থেকে বল পেয়ে বদলি গোলরক্ষক ভিক্তর ভালদেসের মাথার উপর দিয়ে জালে বল পাঠিয়ে দেন পার্কার। ৬৯ মিনিটে নেগ্রেদো ও ৭৩ মিনিটে ইনিয়েস্তার দুটি ব্যর্থতায় সমতা ফেরানোর চমৎকার সুযোগ হাতছাড়া হয়ে যায় স্পেনের। ৭৫ মিনিটে ইনিয়েস্তা মাঠ ছাড়ার দুই মিনিট পর বার্সেলোনা গোলরক্ষক ভালদেস চোটে পড়লে ভীষণ বিপদে পড়ে স্পেন। কারণ, ততক্ষণে সর্বোচ্চ ছয়জনকে বদলি হিসেবে মাঠে নামিয়েছিল তারা। দক্ষিণ আফ্রিকা কোচের প্রতিবাদের মুখেই তার জায়গায় নামানো হয় পেপে রেইনাকে।

এদিকে বিশ্ব ও ইউরোপ চ্যাম্পিয়নরা প্রধমার্ধে খেলিয়েছিল রিয়াল মাদ্রিদ গোলরক্ষক ইকার ক্যাসিয়াসকে। ধারে নাপোলির হয়ে খেলা লিভারপুলের গোলরক্ষক রেইনা নেমেই দুর্দান্ত একটি ‘সেভ’ করে খেলায় রাখেন দলকে। শেষ পর্যন্ত আর গোল শোধ করতে পারেনি স্পেন। খেলার অতিরিক্ত সময়ের দ্বিতীয় মিনিটে কাজোরলা ও পঞ্চম মিনিটে নেগ্রেদোর দারুণ দুটি প্রচেষ্টা খুনে ব্যর্থ করে দিলে স্পেনের বিপক্ষে প্রথম জয় পায় দক্ষিণ আফ্রিকা। গত জুলাইয়ের কনফেডারেশন্স কাপে ব্রাজিলের বিপক্ষে ৩-০ ব্যবধানে হারের পর এটাই দেল বস্কের দলের প্রথম হার। ম্যাচ শেষে হারটাকে ম্যাচের যথার্থ ফল হিসেবে মেনেও নিয়েছেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here