পারলেন না ডি মারিয়াও

মাথাভাঙ্গা মনিটর: রিয়াল মাদ্রিদ থেকে আসা আনহেল ডিমারিয়াও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে জেতাতে পারলেন না। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগেগতকাল শনিবার নবাগত বার্নলির সাথে গোলশূন্য ড্র করেছে ২০ বারের চ্যাম্পিয়নরা।লিগে তিনটিম্যাচ খেলেও জয়ের দেখা পেল না ইউনাইটেড;এটা তাদের দ্বিতীয় ড্র। প্রথম ম্যাচে সোয়ানসিসিটির কাছে ঘরের মাটিতে ২-১ গোলে হারের পর গত সপ্তায় সান্ডারল্যান্ডের মাঠে ১-১ গোলেড্র করেছিলো‘রেড ডেভিলস’ নামে পরিচিত দলটি।গত সপ্তায়রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে পাড়ি জমানো আনহেল ডি মারিয়াকে এ ম্যাচে প্রথমএকাদশেই মাঠে নামান কোচ লুইস ফন গাল। ১৫তম মিনিটে গোলের ভালো একটা সুযোগও তৈরি করেছিলেনআর্জেন্টিনার ওই মিডফিল্ডার। কিন্তু তার ক্রস থেকে স্ট্রাইকার রবিন ফন পের্সির বাঁপায়ের শটটি ঠেকিয়ে দেন স্বাগতিক গোলরক্ষক।

প্রথমার্ধেরবাকি সময়ে আর কোনো ঝলক দেখাতে পারেননি দি মারিয়া। ওই সময়ে তেমন কোনো সুযোগ তৈরি করতেপারেনি ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডও। বল দখলে পের্সি-রুনিরা এগিয়ে থাকলেও স্বাগতিক রক্ষণেরসামনে বারবারই তাদের আক্রমণগুলো মুখ থুবড়ে পড়ে।পুরো প্রথমার্ধজুড়ে সবাইকে অবাক করে দিয়ে ইউনাইটেড গোলরক্ষককে অনেকবার পরীক্ষায় ফেলে জোনস ও তার সতীর্থরা।শেষ পর্যন্ত অবশ্য তারাও গোল করতে ব্যর্থ হওয়ায় গোলশূন্যভাবেই শেষ হয় প্রথমার্ধ।তবে প্রতিপক্ষেরমাঠে খেলতে নেমে উল্টো তৃতীয় মিনিটেই পিছিয়ে যেতে পারতো ইউনাইটেড। স্বাগতিকদের মিডফিল্ডারডেভিড জোনসের জোরালো ফ্রি কিকটি ঠেকানোর আশা ছেড়েই দিয়েছিলেন অতিথি গোলরক্ষক দাভিদদে হেয়া। কিন্তু বলটি ক্রসবারে বাধা পায়।দ্বিতীয়ার্ধেরশুরু থেকেই স্বাগতিক রক্ষণে চাপ বাড়াতে শুরু করে ইউনাইটেডের আক্রমণভাগ। ৫২তম মিনিটেভালো একটা আক্রমণের সূচনা করে তারা। ওয়েইন রুনির পাস পেয়ে ডি বক্সের বাঁ দিক দিয়ে দ্রুতঢুকতে যাচ্ছিলেন ডি মারিয়া কিন্তু রক্ষণের বাধার মুখে পড়ে যান তিনি।ওই সময় পায়েব্যথা পান ডি মারিয়া। ফলে বড় কোনো চোট এড়াতে খানিক পরই তাকে তুলে নেন ফন গাল।নির্ধারিত সময়শেষের ১৩ মিনিট আগে ভালো একটা সুযোগ নষ্ট করেন অধিনায়ক রুনি। ডি বক্সের মধ্যে অরক্ষিতঅবস্থায় বল পেয়েও কর্নারে লক্ষ্যভ্রষ্ট হেড করেন তিনি।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *