না খেলেও যেভাবে ফাইনালে যেতে পারে ভারত-ইংল্যান্ড

মাথাভাঙ্গা মনিটর: এবার চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে নিত্য ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে বৃষ্টির উপদ্রব। বৃষ্টি বাগড়ায় ফল আসেনি দুটি ম্যাচে। বৃষ্টি আইনে নিষ্পত্তি হয়েছে তিনটি ম্যাচ। টুর্নামেন্টের অন্যতম ফেবারিট অস্ট্রেলিয়া বলতেই পারে, গ্রুপ পর্ব থেকে আমাদের বিদায় করে দিয়েছে বৃষ্টি! আবার এ-ও সত্যি, বৃষ্টির কারণে হারতে হারতে এক ম্যাচে বেঁচেও গিয়েছিলো তারা। স্বাভাবিকভাবে প্রশ্নটা আসছে, সেমিফাইনালে বৃষ্টির কারণে ম্যাচ ভেসে গেলে কী হবে। গ্রুপ পর্ব ছিলো বলে নাহয় পয়েন্ট ভাগাভাগির সুযোগ ছিল। সেমিফাইনাল তো নকআউট পর্ব। পয়েন্ট ভাগাভাগির সুযোগ নেই। সেমিফাইনাল যদি বৃষ্টিতে ভেসে যায়, তখন কী হবে? প্রশ্নটা আসছে এ কারণে, ফাইনাল বাদে চ্যাম্পিয়নস ট্রফির কোনো ম্যাচে রিজার্ভ ডে রাখা হয়নি। বৃষ্টিতে যদি সেমিফাইনাল ভেসে যায়, তবে সেটি নিষ্পত্তি হবে গ্রুপ পর্বে পয়েন্ট তালিকার অবস্থান দেখে। গ্রুপ পর্বে যারা শীর্ষে আছে, তারা চলে যাবে ফাইনাল। যে সুবিধাটা পাবে ইংল্যান্ড ও ভারত। ১৪ জুন কার্ডিফে ইংল্যান্ড-পাকিস্তান ম্যাচটা যদি পরিত্যক্ত হয়, ‘এ’ গ্রুপে সবার ওপরে থাকা ইংলিশরা চলে যাবে ফাইনালে। একই সুবিধা পাবে ভারতও। ১৫ জুন এজবাস্টনে বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচ বৃষ্টিতে না হলে গ্রুপ সেরা হওয়ায় ফাইনালে উঠবেন কোহলিরা। যদি ম্যাচ টাই হয়, তখন কী হবে? একটা সমাধান রেখেছে আইসিসি। ম্যাচ নিষ্পত্তি হবে সুপার ওভারে। আন্তর্জাতিক ও ফ্র্যাঞ্চাইজি টি-টোয়েন্টিতে নিয়মটা দেখা গেলেও এখনো পর্যন্ত কোনো ওয়ানডে দেখা যায়নি সুপার ওভার। অবশ্য আবহাওয়ার পূর্বাভাস বলছে, দুটি ম্যাচ বৃষ্টিতে ভেসে যাওয়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি হবে না। কার্ডিফে কাল সারাদিন রোদ থাকবে। পরশু বার্মিংহামে মেঘের আনাগোনা থাকলেও তেমন বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা নেই।

Leave a comment

Your email address will not be published.