তাসকিন-সানিকে নিষিদ্ধের প্রতিবাদে ঢাকায় বিক্ষোভ

তাসকিন-সানিকে নিষিদ্ধের প্রতিবাদে ঢাকায় বিক্ষোভ

স্টাফ রিপোর্টার: তাসকিন আহমেদ ও আরাফাত সানির বোলিং অ্যাকশন অবৈধ ঘোষণা করে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে ঢাকায় বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছেন একদল ক্রিকেট ভক্ত। গতকাল রোববার বাংলাদেশ ক্রিকেট ফ্যানস ইউনিটির ব্যানারে শাহবাগ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ হয়। পরীক্ষায় বেশিরভাগ ডেলিভারিতে সানির কনুই বোলিঙের সময়ের সর্বোচ্চ সীমা ১৫ ডিগ্রির বেশি বেঁকে যায়; আর তাসকিনের সব ডেলিভারি বৈধ ছিলো না উল্লেখ করে শনিবার এক বিজ্ঞপ্তিতে তাদের সাময়িক নিষিদ্ধের কথা জানায় আইসিসি। শতাধিক ক্রিকেট ভক্তদের ওই কর্মসূচি থেকে স্লোগান ওঠে- ‘তাসকিন-সানি নিষিদ্ধ হলে অশ্বিন-বুমরা কেন নয়?’

বিকেল ৫টার দিকে জাতীয় জাদুঘরের সামনে জড়ো হয়ে আইসিসির সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে বিভিন্ন রকম প্ল্যাকার্ড-ফেস্টুন নিয়ে মানববন্ধন করেন ভক্তরা। তাদের ব্যানারে লেখা ছিলো: ‘শেইম অন ইউ, আইসিসি! ইউর অ্যাকশন ইজ ইললিগ্যাল। উই ওয়ান্ট তাসকিন অ্যান্ড সানি ব্যাক’।

কারও কারও হাতে ছিলো-‘কেউ আমাদের দাবায়ে রাখতে পারবে না’, ‘সেভ ক্রিকেট ফ্রম আইসিসি’, ‘আই এম তাসকিন, আই এম সানি, ইউ ক্যান ব্যান মি, ক্যাননট ডেসট্রয়’ লেখা প্ল্যাকার্ড। মানববন্ধনে ফ্যানস ইউনিটির সমন্বয়ক সঞ্জীবন চক্রবর্তী সুদীপ বলেন, গত বছর ২০ মার্চ আজকের তারিখে আমরা মানববন্ধন করেছিলাম, বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অন্যায় সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে। আজকেও আমাদেরকে একই রকম ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদ জানাতে হচ্ছে। তাসকিনের বোলিং অ্যাকশন অবৈধ ঘোষণার প্রতিবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, নেদারল্যান্ডসের সাথে ম্যাচে তাসকিনের বোলিং নিয়ে ম্যাচের আম্পায়ার সন্দেহ প্রকাশ করেছিলেন। কিন্তু কোন ধরনের বলে সন্দেহ, সে বিষয়ে আম্পায়ার কিছু বলেননি। আবার পরে চেন্নাইয়ের পরীক্ষাগারে বাউন্স বল ডেলিভারির জন্য তাসকিনকে নিষিদ্ধ করেছে আইসিসি; অথচ ওই ম্যাচে তাসকিন কোনো বাউন্স ডেলিভারি দেননি। সঞ্জীবন আরও বলেন, আইসিসি নিময় অনুসারে স্টেক ডেলিভারি ছাড়া অন্য কোনো ডেলিভারিতে সন্দেহ হলে বোলারকে সর্তক করা হয়। কিন্তু আইসিসি কেন তাসকিনকে নিষিদ্ধ করলো এটা আমাদের প্রশ্ন।

বাংলাদেশের ক্রিকেটকে ধ্বংস করার ষড়যন্ত্র হিসেবে একের পর এক ‘অন্যায়’ সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দেওয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন ভক্তরা। আইসিসির এ সিদ্ধান্তের ব্যাপারে বিসিবিকে আইনি ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানিয়ে সঞ্জীবন বলেন, আমাদের অধিনায়ক মাশরাফি সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন তাসকিনের বোলিঙে কোনো সমস্যা নেই; বিসিবিকে আইনি ব্যবস্থা নেয়ারও কথা জানিয়েছেন তিনি। তাই বিসিবির উচিত আইনি ব্যবস্থা নেয়া। মানবববন্ধন শেষে একটি মিছিল বের করেন বিক্ষোভকারীরা। মিছিলটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি ঘুরে শাহবাগে পৌঁছুনোর পর ‘আইসিসি’ লেখা একটি কুশপুতুল দাহ করা হয়। বিক্ষোভ কর্মসূচি থেকে সোমবার বিকেল সাড়ে ৫টায় শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ কর্মসূচির পালনের ঘোষণা দেন আন্দোলনকারীরা।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *