টাইব্রেকার-প্রস্তুতি ছিলো কোস্টারিকার

মাথাভাঙ্গা মনিটর: গ্রিসের বিপক্ষে টাইব্রেকারে জয়টা ভাগ্যে পাওয়া নয়বলে জানান কোস্টারিকার কোচ হোর্হে লুইস পিন্তো। তিনি বলেন, টাইব্রেকারেপেনাল্টি শট নেয়ার অনুশীলন করেই তার দল মাঠে নেমেছিলো।গতক রোববার রেসিফির আরেনা পের্নামবুকোয় ১২০ মিনেটের খেলা ১-১ গোলে অমীমাংসিতথাকার পর গ্রিস-কোস্টারিকার ম্যাচটি টাইব্রেকারে গড়ায়। ম্যাচের সময়গ্রিসের রক্ষণদুর্গ খুব বেশি ভাঙতে না পারলেও টাইব্রেকারে ৫-৩ গোলে জিতেইতিহাস গড়ে মধ্য আমেরিকার দেশ কোস্টারিকা।ম্যাচ শেষে কোস্টারিকাকোচ বলেন, বিষয়টি এমন নয় যে, কোস্টারিকা টাইব্রেকারে গেল আর জয় নিয়েফিরলো। এ পরিস্থিতির জন্য নিজেদের আগেই প্রস্তুত করে রেখেছিলো তারা।আমরা আগেই পেনাল্টি নেয়ার অনুশীলন করেছি এবং প্রতিপক্ষকে নিয়ে গবেষণা করেছি। এ কারণেই শতভাগ সাফল্য পেয়েছি।ম্যাচটি নাটকীয় হয়েছে উল্লেখ করে পিন্তো এ কোস্টারিকার ইতিহাস গড়ার আনন্দের কথা জানান।সবার মধ্যেই দারুণ এক আবেগের অনুভূতি কাজ করছে। দলের এবং দেশের জন্য এটি গুরুত্বপূর্ণ একটি জয়। সত্যিকার অর্থেই আমরা গর্বিত।আবেগি পিন্তো এ জয় কোস্টারিকার সব মানুষের বলে উল্লেখ করেন।গ্রিসকোচের অনুভূতিটা ঠিক উল্টো হওয়াই স্বাভাবিক। শেষ ষোলোতে উঠেই ইতিহাস গড়েছেতারা।
ইউরোর সাবেক চ্যাম্পিয়নরা স্বপ্ন দেখছিলো,ইতিহাসটাকে আরো সমৃদ্ধকরার। কিন্তু তারা সেটা পারেনি বলে হতাশ ফের্নান্দো সান্তোস।অতিরিক্ত সময়ের খেলা শেষে লালকার্ড দেখেন তিনি। টাইব্রেকারের সময় মাঠেথাকতে পারেননি। ম্যাচ শেষের সংবাদ সম্মেলনে সান্তোস তার হতাশার কথা বলেন।আমাদেরজন্য খুব কষ্টের মুহূর্ত গেছে। কারণ আমরা ইতিহাস গড়তে এবং গ্রিসেরমানুষদের আনন্দ দিতে চেয়েছিলাম। এটা সম্ভব ছিলো না। পঞ্চম পেনাল্টিটা হওয়ারপর আমি দুঃখ অনুভব করেছি,শুধু দুঃখই।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *