টাইগারদের ঝড়ো ব্যাটিঙের ম্যাচ বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত

মাথাভাঙ্গা মনিটর: প্রকৃতির সাথে লড়াইয়ের পর মাঠে গড়িয়েছিলো খেলা। কন্ডিশনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে বিস্ফোরক ইনিংস খেললেন তামিম ইকবাল; কিন্তু শেষ পর্যন্ত জয় হলো বৃষ্টিরই। ধর্মশালায় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশ-আয়ারল্যান্ডের ম্যাচ হতে পারলো মাত্র ৮ ওভার। তামিমের ব্যাটিং তাণ্ডবে বাংলাদেশ তুলেছিলো ২ উইকেটে ৯৪। কিন্তু তামিমের আউটের পরপরই আবার নামলো বৃষ্টি। স্থানীয় সময় রাত ১০টা ২০ মিনিটে ম্যাচ পরিত্যক্ত ঘোষণা করেন আম্পায়াররা। বৃষ্টির কারণে আগেই কমেছিলো ম্যাচের দৈর্ঘ্য। খেলা শুরু হয়েছে পৌনে দু ঘণ্টা দেরিতে, ম্যাচ নেমে এসেছিলো ১২ ওভারে। খেলা সম্ভব হলো না সেটুকুও। ম্যাচ থেকে ১ পয়েন্ট পাওয়ায় বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে যাওয়া নিশ্চিত হলো আয়ারল্যান্ডের। দিনের প্রথম ম্যাচও পরিত্যক্ত হওয়ায় ছিটকে গিয়েছিলো নেদারল্যান্ডস।
                কাল রোববার বাংলাদেশ-ওমান ম্যাচের জয়ী দল যাবে সুপার টেনে। বৃষ্টির কারণে ম্যাচটি না হলে রান রেটে এগিয়ে থাকা মাশরাফির দলই যাবে পরের পর্বে। তবে যেটুকু খেলা হয়েছে, বিনোদনের দারুণ খোরাক জুগিয়েছেন তামিম ইকবাল। আগের ম্যাচে পরিস্থিতির দাবি মিটিয়ে খেলেছিলেন লম্বা ইনিংস। এদিন পরিস্থিতিই বের করে আনলো খুনে তামিমকে। ব্যাটকে তরবারি বানিয়ে কচুকাটা করলেন আইরিশ বোলারদের।
                ঝড় তোলার ইচ্ছেটা বুঝিয়ে দিতে একটুও সময় নেননি তামিম। স্লগ করেছিলেন ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই। ব্যাটে-বলে যদিও হয়নি। সেটা হলো দ্বিতীয় ওভার থেকে। তামিমের খুনে কিন্তু নান্দনিক ব্যাটিংয়ে বল ছুটতে লাগলো মাঠের নানা প্রান্তে। দিশাহারা হলেন আইরিশ বোলার-ফিল্ডাররা। অপরপ্রান্তে আগের ম্যাচের মতোই শুরুতে জীবন পেলেন সৌম্য সরকার। সহজ ক্যাচ দিয়ে বেঁচে গেলেন রানের খাতা খোলার আগে। ১০ রানে জীবন পেলেন আবার। তবে নড়বড়ে শুরুর পর সৌম্যও খেললেন দারুণ কয়েকটি শট। প্রথম পরিবর্ত বোলার কেভিন ও’ব্রায়েনের প্রথম ওভার থেকে এলো ১৯ রান। ৪ ওভারের পাওয়ার প্লেতে বাংলাদেশ তুললো ৫২ রান!
                পাওয়ার প্লে শেষ হতেই স্পিন আক্রমণে এনেছিলেন আইরিশ অধিনায়ক পোর্টারফিল্ড; থামানো যায়নি তামিমকে। অফ স্পিনার অ্যান্ডি ম্যাকব্রায়ানকে স্বাগত জানালেন ছক্কায়। বাঁহাতি স্পিনার জর্জ ডকরেলের প্রথম বলেই রিভার্স সুইপে চার। ম্যাকব্রায়ান অবশ্য এর আগেই ফিরিয়ে দিয়েছেন সৌম্যকে (১৩ বলে ২০)। সাব্বির রহমান উইকেটে গিয়ে ম্যাকব্রায়ানকেই আছড়ে ফেললেন গ্যালারিতে। ৩৭ রানে ডকরেলের বলে স্টাম্পিংয়ের সহজ সুযোগ দিয়েও বেঁচে যান তামিম। পরে ডকলেকেই ছক্কা মানের মিড উইকেট দিয়ে। শেষ পর্যন্ত এই বাঁহাতি স্পিনারকেই উইকেট দিয়ে এসেছেন তামিম। নামের পাশে ততোক্ষণে ২৬ বলে ৪৭, ৩টি চার ও ৪টি ছক্কা।
                প্রকৃতিও বঝি শুধু তামিমের ব্যাটিংটাই দেখতে চাইছিলো! তামিম আউট হতেই আবার বৃষ্টি। ব্যাট হাতে মাঠে নেমেও ফিরে গেলেন সাকিব আল হাসান। বৃষ্টির তীব্র বেগে ভেসে গেলো সব উত্তেজনাও। সংক্ষিপ্ত স্কোর: বাংলাদেশ: ৮ ওভারে ৯৪/২ (তামিম ৪৭, সৌম্য ২০, সাব্বির ১৩*; ডকরেল ১/১৮, ম্যাকব্রাইন ১/২০)।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *