আর্জেন্টিনায় স্টেডিয়ামে সমর্থককে ছুড়ে ফেলে হত্যা‍!

মাথাভাঙ্গা মনিটর: মানুষের জীবন কতোই না তুচ্ছ হয়ে যাচ্ছে। কতো তুচ্ছ কারণেই না মানুষ মানুষকে হত্যা করতে পারে যা শুনলে গা শিউরে ওঠে। ঘটনার শুরু হয়েছিলো স্রেফ খেলা নিয়ে ঝগড়ার মাধ্যমে; কিন্তু সেটার পরিণতি হয় ভয়ানক। গত শনিবার আর্জেন্টিনার ঘরোয়া প্রিমিয়ার ডিভিশন লিগের ডার্বি ম্যাচটি দেখতে স্টেডিয়ামে প্রচুর দর্শক ভিড় করেছিলো। তার মধ্যে ছিলেন ২২ বছর বয়সী ইমানুয়েল বালাবো।  হঠাৎ কোনো এক বিষয় নিয়ে অন্যদের সঙ্গে বিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন তিনি। এই বিতণ্ডা হাতাহাতি থেকে মারামারিতে রূপ নেয়। একপর্যায়ে ইমানুয়েলকে স্টেডিয়ামের উঁচু গ্যালারি থেকে ছুড়ে ফেলা হয় নীচে! গত শনিবার আর্জেন্টিনার কর্ডোবায় বেলগ্রানো এবং অতিথি টলার্সের মধ্যকার ডার্বিতে এই ঘটনা ঘটে। টলার্স সমর্থকদের সঙ্গে ইমানুয়েল তর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন। তারা সম্মিলিতভাবে প্রথমে তাকে মারধর করে। একপর্যায়ে গ্যালারির ওপর থেকে ঠেলে নিচে ফেলে দেয় বালাবোকে। তখনই তার মৃত্যু হয়নি। তবে কমপক্ষে ৫ মিটার উচ্চতা থেকে নীচে পড়ার ফলে তিনি তার মাথা এবং ঘাড়ে মারাত্মক চোট পান। হাসপাতালে টানা দুইদিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে অবশেষে পরাজিত হতে হয় তাকে। সোমবার ডাক্তাররা তাকে ক্লিনিক্যালি ডেড ঘোষণা করে। খেলাকে কেন্দ্র করে এই হিংসাত্মক ঘটনায় পুলিশ এখন পর্যন্ত ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছে আর্জেন্টিনার ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন। বালাবোকে হত্যায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তার এবং কঠোর শাস্তির দাবি জানিয়েছে তারা। তবে আরও ভয়াবহ তথ্য হলো, আর্জেন্টিনায় ২০১৩ সাল থেকে এই ৪ বছরে ফুটবল বিষয়ক সহিংসতায় ৪০ জনের বেশি মানুষের প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *