স্টেশনে নির্ধারিত সময় থামলেও ভিড়ে নামতে ও উঠতে পারেনি বহু যাত্রী

সড়কে রাজনৈতিক উত্তাপে বাড়তি চাপ ট্রেনে

 

স্টাফ রিপোর্টার: রাজনৈতিক উত্তাপের কারণে ট্রেনের ওপর পড়েছে বাড়তি চাপ। উপচেপড়া যাত্রী ওঠা-নামা করতে গিয়ে হুমড়ি খাওয়া অবস্থা। অথচ থামার সময় বাড়ানো হয়নি। ফলে ট্রেনযাত্রীদের দুর্ভোগ বেড়েছে। গতকাল শনিবার ঊর্ধ্বগামী সাগরদাঁড়ি এক্সপ্রেসে চুয়াডাঙ্গা স্টেশনের অনেক যাত্রী যেমন উঠতে পারেননি, তেমনই নামতে পারেননি শতাধিক যাত্রী। অবশ্য চেন টেনে চুয়াডাঙ্গা-মোমিনপুর স্টেশনের মধ্যবতী পাঁচপকেট ব্রিজের নিকট নেমেছেন অনেক যাত্রী।

জানা গেছে, খুলনা থেকে ছেড়ে আসা রাজশাহীগামী সাগরদাঁড়ি ট্রেনটি গতকাল ৫০ মিনিট বিলম্বে সন্ধ্যা ৭টা ১২ মিনিটে চুয়াডাঙ্গা স্টেশনে পৌঁছায়। থামার সময় মাত্র তিন মিনিট। উপচেপড়া যাত্রীর ভিড়ে ট্রেনে থাকা যাত্রীদের অনেকেই যেমন হুড়োহুড়িতে আটকে যান, তেমনই অনেকেই ঠেলাঠেলি করে উঠার আগেই ট্রেনটি ছেড়ে যায়। গার্ড বা কনট্রাক্টর গার্ডের কেউই যাত্রীদের হুড়োহুড়ি দেখে দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেননি। ফলে ট্রেনে উঠতে না পারা এবং নামতে না পারা যাত্রীদের অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেন। অবশ্য প্রত্যক্ষদর্শীর বলেছেন, তিন মিনিট সময় কম নয়। ট্রেন থেকে যাত্রী নামার সুযোগ দেয়ার পর যদি যাত্রীরা উঠতে শুরু করতো তা হলে সকলেই নামার এবং ওঠার সুযোগ পেতো। ট্রেনটি স্টেশনে থামার সাথে সাথে যেমন ওঠার জন্য হুড়োহুড়ি শুরু করে, তেমনই নামার জন্যও যাত্রীদের তাড়াহুড়ো বেধে যায়। ফলে দরজায় জ্যাম পড়ে, নামা ও ওঠায় প্রতিবন্ধতা দেখা দেয়। এ কারণেই যাত্রীদের অনেকেই নামতে পারেননি, উঠতে পারেননি প্রায় শতাধিক যাত্রী।

ট্রেন থেকে চুয়াডাঙ্গা স্টেশনে নামতে না পারা যাত্রীদের কেউ চেন টানেন। ট্রেনটি চেনের সংকেত পেয়ে থামতে থামতে পৌছে যায় পাঁচপকেটের নিকট। সেখানে ট্রেনটি থামলে যাত্রীরা নামেন। রেললাইন ধরে তারা চুয়াডাঙ্গা শহরে পৌঁছান। এ বিষয়ে চুয়াডাঙ্গা স্টেশনে কর্মরত সহকারী স্টেশন মাস্টার গোলাম রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে ট্রেনে যাত্রীদের উপচেপড়া ভিড়। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে যাত্রীদের অনেকেই নামতে ও উঠতে না পারার বিষয়টি দুঃখজনক। তবে ইচ্ছে করলে কন্ট্রাক্টর গার্ড আরো একটু বেশি সময় ট্রেনটি থামিয়ে যাত্রীদের নামিয়ে ও উঠিয়ে নিয়ে ট্রেনটি ছাড়তে পারতেন। তা কেন করেননি বলতে পারবো না। বিষয়টি লিখিতভাবে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের জানানো হবে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *