সোনালী স্বপ্নের বাংলাদেশ, কনিকার বীজে ফলন বেশ

কনিকা সিডের টিস্যুকালচার বীজআলু উৎপাদন ব্লক পরিদর্শন ও আলোচনাসভা

 

‘সোনালী স্বপ্নের বাংলাদেশ, কনিকার বীজে ফলন বেশ’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে কনিকা সিডের আয়োজনে টিস্যুকালচার বীজআলু উৎপাদন ব্লক পরিদর্শন ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বুধবার সকাল ১০টার দিকে জীবননগরে বালিহুদা গ্রামে অনুষ্ঠিত আলোচনাসভায় সভাপতিত্ব করেন কনিকা সিড কোম্পানি (প্রা.) লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. নূর আলম লিটন। প্রধান অতিথি ছিলেন বায়োটে কনোলজী ল্যাবরেটরী প্রকল্প পরিকল্পনা ও পরিবীক্ষণ বিভাগ, পল্লি উন্নয়ন একাডেমি বগুড়ার পরিচালক মো. ফিরোজ হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন কুষ্টিয়া কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের সাবেক উপপরিচালক কনিকা সিডের প্রোডাকশন কনসালটেন্ট কৃষিবিদ এসএম শামসুল আনোয়ার, চুয়াডাঙ্গা জেলা বীজ প্রত্যয়ন অফিসার কৃষিবিদ মো. কামরুল হক মিয়া, জীবননগর উপজেলা সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার মো. মশিউর রহমান, রায়পুর ইউপি সদস্য আব্দুস শুকুর, রাশেদা ফিরোজ প্রমুখ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন কনিকা সিডের পরিচালক (অপারেশন) মুহা. আব্দুল্লাহ-আল-মামুন। পরে কনিকা সিডের প্রোডাকশন ইনচার্জ কৃষিবিদ মো. নাজিম উদ্দীনের নেতৃত্বে বীজআলু উৎপাদন প্লট পরিদর্শন করেন উত্তরবঙ্গ ও দক্ষিণ বঙ্গের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা থেকে আগত ডিলারবৃন্দ। বীজআলুর প্লট পরিদর্শন শেষে ২য় পর্বের আলোচনাসভায় চুক্তিবদ্ধ কৃষকদের প্রতিনিধি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জাহাঙ্গীর আলম-বালিহুদা ও মো. নুরুল ইসলাম-বালিহুদা। এরপর উপস্থিত ডিলারদের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন  প্রো. আব্দুস সামাদ বাবু এমবি ট্রেডার্স ক্ষেতলাল জয়পুরহাট, প্রো. মো. ওজিহার রহমান রানা নিবিড় এন্টারপ্রাইজ হারাগাছ রংপুর, প্রো. মো. আব্দুর রাজ্জাক, মেসার্স ভাই ভাই ট্রেডার্স, আক্কেলপুর জয়পুরহাট, প্রো. মো. আব্দুর রহমান, মেসার্স রহমান ট্রেডার্স মহেশপুর, প্রো. মো. আলী কদর, পরাগ সীড স্টোর জীবননগর প্রমুখ।

ডিলারবৃন্দ বলেন, আমরা বীজ আলুর প্লট পরিদর্শন করে অত্যন্ত খুশি হয়েছি, কারণ হলো বীজ আলুর প্লট ভালো আছে যা আগামী বিপণন মরসুমে কনিকা সিড কোম্পানি (প্রা.) লিমিটেডের গুণগত মান সম্পন্ন বীজ আলু কৃষকের হাতে তুলে দিতে সহজ হবে। এছাড়াও ডিলারবৃন্দ বলেন, অত্র কোম্পানির সকল প্রকার বীজ গুণগত মানসম্পন্ন হওয়ায়, আমরা নিশ্চিন্তায় বিক্রি করতে পারি। বিশেষ অতিথি কৃষিবিদ মো. কামরুল হক মিয়া জেলা বীজ প্রত্যয়ন অফিসার, চুয়াডাঙ্গা বক্তব্যে বলেন, কনিকা সিড কোম্পানি (প্রা.) লিমিটেড, বীজের গুণগত মানসম্পন্ন করতে সকল প্রকার পদক্ষেপ নিয়ে থাকে। তাদের আন্তরিকতার কারণে বাংলাদেশের কৃষক ভেজালমুক্ত গুণগত মানসম্পন্ন বীজ সঠিক সময়ে পাচ্ছে। আমি জেলা বীজ প্রত্যয়ন অফিসার হিসেবে অত্র কোম্পানির বীজ প্রত্যয়নের আওতায় সকল প্রকার বীজের প্লট পরিদর্শন করে সার্টিফিকেট দিয়ে থাকি। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে অত্র কোম্পানির প্রোডাকশন বিভাগ খুবই দক্ষতাসম্পন্ন। আমি অত্র কোম্পানির উত্তর উত্তর সাফল্য কামনা করছি। এরপর প্রধান অতিথি কৃষিবিদ মো ফিরোজ হোসেন, পরিচালক, বায়োটেকনোলজী ল্যাবরেটরী, প্রকল্প পরিকল্পনা ও পরিবীক্ষণ বিভাগ, পল্লি উন্নয়ন একাডেমি, বগুড়া বক্তব্যে বলেন বাংলাদেশ কৃষি প্রধান দেশ। এ দেশের কৃষক সমাজ আধুনিক চাষ পদ্ধতি সম্পর্কে সচেতন নয়। কৃষি ক্ষেত্রে বিপ্লব ঘটাতে হলে আধুনিক পদ্ধতি গ্রহণসহ চাষ করার পাশাপাশি ব্যবহার করতে হবে ভালো বীজ। কনিকা সিড কোম্পানি (প্রা.) লিমিটেডের প্রোডাকশন বিভাগের নিবিড় তত্বাবধানে বীজ আলু উৎপাদন প্লট পরিদর্শন করে আমি খুব খুশি হয়েছি। এই প্রশংসার দাবিদার অবশ্যই কনিকা সীড কোম্পানি (প্রা.) লিমিটেড। তিনি আরও বলেন এতদাঞ্চলে কনিকা সিড কোম্পানি (প্রা.) লিমিটেড বিশ্বস্ততা ও সুনামের সাথে বিভিন্ন প্রকারের বীজের চাহিদা পূরণ করছে। এজন্য আমার পক্ষ থেকে সাধুবাদ জ্ঞাপনসহ প্রতিষ্ঠানটির সফলতা কামনা করছি।  তিনি আরও বলেন,  ভাইরাসমুক্ত বীজ আলু উৎপাদনে কনিকা সীড কোম্পানি (প্রা.) লিমিটেডের বিকল্প নেই। এরপর সভাপতির আলোচনায় কনিকা সিড কোম্পানি (প্রা.) লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নুর আলম লিটন বলেন, চাষিদের সঠিক জেনারেশন, গুণগত মানসম্পন্ন ও উচ্চ ফলনশীল জাতের বীজ আলু সরবরাহ করে থাকি। যাতে করে কৃষকগণ উচ্চ ফলনশীল ও গুণগত মানসম্পন্ন বীজ পেয়ে উৎপাদন বৃদ্ধিসহ অধিক লাভবান হতে পারে। কারণ কৃষকের উন্নয়নই দেশের উন্নয়ন। আসুন সকল কৃষকবন্ধু ভাইরাসমুক্ত উচ্চ ফলনসীল জাতের আলু চাষ করে অধিক লাভবান হই। সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন যথাক্রমে অত্র কোম্পানির কোঅর্ডিনেটর মাবুদ সরকার, মার্কেটিং অফিসার আক্তারুজ্জামান, মার্কেটিং অফিসার আরাফাত রহমান, মনিরুল ইসলাম, কামরুজ্জামান পল্টু, ওবায়দুর রহমান ও সাকিব হাসান, সলেমান মণ্ডল, সমজের আলী, মিজানুর রহমান ও আবু-বক্কর-সিদ্দিক প্রমুখ।

 

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *