শৈলকুপায় আ.লীগ নেতার বিরুদ্ধে সংখ্যালঘু উচ্ছেদের অভিযোগে সাংবাদিক সম্মেলন

স্টাফ রিপোর্টার: ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার ব্রাহিমপুর গ্রামের নিজ ভিটে থেকে সুশান্ত কুমার দাস নামে এক ব্যক্তিকে সপরিবারে উচ্ছেদ করা হয়েছে। শৈলকুপা উপজেলার উমেদপুর ইউপি চেয়ারম্যান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবদার হোসেন মোল্লা ও ব্রাহিমপুর গ্রামের বাক্কা এই ঘটনার সাথে জড়িত। সোমবার দুপুরে ঝিনাইদহ প্রেসক্লাবে এক সাংবাদিক সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন সুশান্ত কুমার দাস। এ সময় সুশান্তর স্ত্রী বিজলী রাণী, পরিবারের সদস্য বুলু রানী, প্রদিপ কুমার, অজয় কুমার ও আকাশ উপস্থিত ছিলেন।

সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়- শৈলকুপার ১৩০ নং ব্রাহিমপুর মৌজায় ৩৩০ নং হাল দাগে তাদের ৪৪ শতক জমি আছে। সেই জমিতে তাদের পূর্বপুরুষরা বসবাস করতেন। সেই সূত্রে জমির ওয়ারেশপ্রাপ্ত হয়ে দীর্ঘদিন ভোগদখল ও ঘরবাড়ি তুলে বসবাস করছিলেন। কিন্তু ব্রাহিমপুর গ্রামের তোফাজ্জেল মোল্লার ছেলে ভূমিদস্যু বাক্কার অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে তাদের ঘরবাড়ি ভেঙে ও ৮০টি মেহগনি গাছ কেটে দিয়ে পৈত্রিক ভিটে দখল করে নেয়। বিষয়টি নিয়ে তারা স্থানীয় উমেদপুর ইউপি চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা সাবদার হোসেন মোল্লার কাছে বিচার দিলে তিনি একটি শাদা কাগজে স্বাক্ষর নিয়ে এলাকা ছেড়ে চলে যেতে বলেন। সেই থেকে আমরা রাতের অন্ধকারে নাবালক তিন সন্তান নিয়ে গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে ঝিনাইদহ শহরে এসে উঠেছি। সাংবাদিক সম্মেলনে বলা হয়, ভিটে বেদখল হওয়ার পর আমরা কতো জায়গায় বিচার নিয়ে গিয়েছি। কেউ আমাদের সুবিচার করেনি। শৈলকুপা থানা পুলিশের দ্বারস্থ হতে গেলে সেখানেও ভয়ভীতি দেখিয়ে বারণ করা হয়েছে। সুশান্ত ও তার স্ত্রী বিজলী রাণী তাদের পৈত্রিক ভিটা ফিরে পেতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *