মেহেরপুরের পল্লিতে একের পর এক ডাকাতি ও ডাকাতদলের তাণ্ডবরোধে পুলিশি অভিযান জোরদার করার আহ্বান

ক্ষোভের উত্তাপ শোকের ছায়া : তরুণ কৃষকের দাফন সম্পন্ন

 

আমঝুপি প্রতিনিধি: প্রতিরোধের সময় ডাকাতদলের ছোঁড়া বোমাঘাতে নিহত তরূণ কৃষক টিক্কাখানের লাশ তার নিজ গ্রাম মেহেরপুর হিজুলী কবরস্থানে দাফনকাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। গতপরশু রাত দেড়টার দিকে বোমাঘাতে নিহত হন টিক্কা খান। আহত হন একই গ্রামের হাসমত উল্লাহ। তাকে চিকিৎসাধীন রাখা হয়েছে। এলাকায় একের পর এক ডাকাতি, ডাকাতদলের তাণ্ডবরোধে পুলিশি অভিযান জোরদার করার আহ্বান জানিয়েছেন এলাকার নিরাস্ত সহাসী জনতা।

মেহেরপুর হিজলী গ্রামে ডাকাতি প্রতিরোরেধ সময় ডাকাতদলের বোমায় তরুণ কৃষক নিহত টিক্কা খানের (২৮) লাশ গতকাল শনিবার বাদ আছর হিজুলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে জানাজার নামাজের পর গ্রামের কবরস্থানে অশ্রুশিক্ত জলে ভিজিয়ে বিরখেতাব দিয়ে দাফন করা হয়। গত শুক্রবার রাত দেড়টার দিকে একদল ডাকাত হিজুলী গ্রামে রুহুল আমিনের বাড়িতে ডাকাতি করে পালিয়ে যাওয়ার সময় গ্রামবাসীর প্রতিরোধের মুখে পড়ে। ডাকাতদলের ছোড়া বোমার আঘাতে মৃত নুরহকের ছেলে টিক্কা খানসহ আহত হন দুজন। এদেরকে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। সেখানে রাত আড়াইটার দিকে টিক্কা খান মারা যায়। মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়ায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আশে। ময়নাতদন্ত শেষে বেলা ২টার দিকে লাশ গ্রামে পৌঁছুলে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। জানাজায় বিভিন্ন গ্রামের মানুষ অংশ নেন। অনেকে কান্নায় ভেঙে পড়েন। একের পর এক ডাকাতি, ডাকাতদলের বোমায় নিহত হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন এলাকার সাধারণ মানুষ। জানাজাপূর্বে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন সাবেক ইউপি সদস্য শিক্ষক রাশিদুল ইসলাম। তিনি গ্রামবাসীর এ সাহসের প্রশংসা করেন এবং ডাকাতদল ধরে উপযুক্ত শাস্তির দাবি জানান তিনি। একই সাথে ডাকাতদলের বোমায় একজন নিহত হওয়ার পর ভয়ে দমে গেলে হবে না, সন্ত্রাসমুক্ত সমাজ গড়তে সকলকে সোচ্চার হওয়ারও তাগিদ দেন তিনিসহ স্থানীয়রা।

টিক্কা খান একজন শান্ত ভদ্র ব্যক্তি ছিলেন বলে জানিয়েছেন গ্রামের আবাল বৃদ্ধ বনিতা। তিনি আট বছর আগে আমঝুপি ইউনিয়নের দফরপুর গ্রামে বিয়ে করে ছিলেন। তার স্ত্রী ও এক মেয়ে সন্তান আছে। মেয়ে জৌতির বয়স ৭ বছর। সে গ্রামের স্কুলে প্রথম শ্রেণিতে পড়ে। পুলিশ প্রশাসন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তবে কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। এ বিয়য়ে থানায় একটি জিডি করা হয়েছে। এলাকায় ডাকাতি আতঙ্ক বিরাজ করায় পুলিশিটহল জোরদারের দাবি জানানো হয়েছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *