মেধাবী ছাত্র দেলোয়ার হোসেন এইচএসসিতে গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়েও লেখাপড়া অনিশ্চিত

সদরুল নিপুল: চুয়াডাঙ্গা আলমডাঙ্গা উপজেলার জেহালা ইউনিয়নের খুদিয়াখালী আশ্রয়ন ফেস টুতে বসবাসকারী দরিদ্র প্রতিবন্ধী দিনমজুরের সন্তান মেধাবী ছাত্র দেলোয়ার হোসেন এবার এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়েছে। ভালো ফলাফল করেও মেধাবী ছাত্র দেলোয়ার ও তার বাবা-মা হতাশায় ভুগছেন। প্রতিবন্ধী দিনমজুর বাবা ধার-দেনা করে এতোদিন ছেলের লেখাপড়ার খরচ চালালেও এখন আর সম্ভব হচ্ছে না। কারণ এক কাঠা জমিও নেই যে যা বিক্রি করে ছেলের লেখাপড়ার খরচ জোগাবে। দরিদ্র হওয়ায় সরকারি আশ্রয়নকেন্দ্রে তারা বসবাস করে। দেলোয়ার এসএসসিতেও জিপিএ-৫ পেয়েছিলো।

জানা গেছে, খুদিয়ালী সরকারি আশ্রয়ন ফেস টু কেন্দ্রের বাসিন্দা প্রতিবন্ধী দিনমজুর শাহাদত হোসেনের ছেলে দেলোয়ার হোসেন চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজ থেকে এবার এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়েছে। দেলোয়ার হেসেনের পিতা পান হাটের লেবার হিসেবে কাজ করতেন। বছর দুয়েক আগে ট্রাকে পান লোড করার সময় হঠাত পানভর্তি একটি ডালা শাহাদত হোসেনের ডান পায়ের ওপর পড়লে তার পা ভেঙে যায়। দেলোয়ারের ছোট বোন বিপাশা ষষ্ঠ শ্রেণিতে লেখাপড়া করে। দেলোয়ারের পিতা জানান, এইচএসসি পরীক্ষার ফর্ম পূরণের টাকা অনেক কষ্টে ধার-দেনা করে দিয়েছিলাম।

দেলোয়ার জানায়, আশ্রয়ন কেন্দ্রে ষোল বছর বয়স হলেই সবাই বিভিন্ন কাজ করে। এখানে লেখাপড়া করার কোনো পরিবেশ নেই। সন্ধ্যা হলেই শুরু হয় উচ্চ শব্দে গান-বাজনার প্রতিযোগিতা। প্রতিবাদ করার কোনো সুযোগ নেই। তাই বাধ্য হয়ে কানে তুলো লাগিয়ে লেখাপড়া করেছি। দেলোয়ারের স্বপ্ন বুয়েটে ভর্তি হওয়া। সে প্রকৌশলী হয়ে দেশের জন্য কিছু করতে চায়। দেলোয়ার ও তার দরিদ্র পিতা-মাতা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এবং সমাজের বিত্তবানদের সহযোগিতা চেয়েছেন।

Leave a comment

Your email address will not be published.