মিয়ানমারে মুসলিম বিরোধী দাঙ্গায় নিহত ২

 

মাথাভাঙ্গা মনিটর: মিয়ানমারেরদ্বিতীয় বৃহত্তম শহর মান্দালাইতে মুসলিম বিরোধী দাঙ্গা হয়েছে। এবারোধর্ষণের অভিযোগ এনে এ দাঙ্গা বাধানো হয়েছে। ধর্ষণের এ অভিযোগ ছড়িয়েছেন একজনউগ্র বৌদ্ধ ভিক্ষু।নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক পুলিশ বলেছেন, দাঙ্গায় দুজন নিহত হয়েছে। শত শত দাঙ্গাবাজ বৌদ্ধমঙ্গলবার রাত থেকে শুরু করে বুধবার সারাদিন মুসলমানদের ঘরবাড়ির ওপর ভয়াবহতাণ্ডব চালায়। এসব বৌদ্ধর অনেকের হাতে লাঠিসোঁটা ও ধারালো অস্ত্র ছিলো।মিয়ানমারেরউগ্র ভিক্ষু উইরাদু মঙ্গলবার তার ফেইসবুক পেইজে একজন মুসলিম চা বিক্রেতারবিরুদ্ধে একজন বৌদ্ধ নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ প্রচার করেন। এর কয়েক ঘণ্টারমধ্যে একদল ভিক্ষুর নেতৃত্বে শ শ দাঙ্গাবাজ ওই চায়ের দোকানসহ আশপাশেরমুসলিম বসতবাড়িতে হামলা শুরু চালায়। মিয়ানমারের সরকার নিয়ন্ত্রিত দৈনিক নিউলাইট অব মিয়ানমার জানিয়েছে, অন্তত ৪৫০ জন দাঙ্গাকারীর হাতে লাঠি ও ধারালোঅস্ত্র ছিলো। সরকারের পক্ষ থেকে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে বলেপত্রিকাটি দাবি করেছে।
এর আগে ২০১২ সালে মিয়ানমারের পশ্চিমাঞ্চলীয়রাখাইন (সাবেক আরাকান) প্রদেশে মুসলিম বিরোধী ভয়াবহ দাঙ্গা শুরু করার কাজেওএকজন বৌদ্ধ নারীকে ধর্ষণের পর হত্যা করার অভিযোগ তোলা হয়েছিলো। কিন্তুপ্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছিলেন, দাঙ্গা বাধানোর জন্য ওই বৌদ্ধ নারীকে হত্যাকরে তার লাশ মুসলিম অধ্যুষিত এলাকায় ফেলে গিয়েছিল দুর্বৃত্তরা। সেবারেরদাঙ্গায় হাজার হাজার মুসলমান নিহত ও লাখ লাখ মানুষ বাস্তুহারা হয়েছিলেন।এবার মান্দালাই’তে মুসলিম বিরোধী দাঙ্গা শুরুর কাজেও সেই ‘ধর্ষণ অস্ত্র’ ব্যবহার করলেন স্বয়ং একজন বৌদ্ধ ভিক্ষু।মান্দালাই’র পুলিশ প্রধান জাওউইন অং বলেছেন, তারা দাঙ্গার বিষয়টি তদন্ত করে দেখছেন এবং এ ঘটনায় জড়িতদেরবিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। পরিস্থিতি সামাল দেয়ার জন্য অতিরিক্তনিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *