মাওয়া-কাওড়াকান্দি রুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ

 

মাথাভাঙ্গা অনলাইনঃ  ৩১ লঞ্চের রুট পারমিট পুনর্বহালের দাবিতে মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে শনিবার বিকাল ৫টা থেকে লঞ্চ ধর্মঘট শুরু হয়েছে। এর আগে এই রুটে নতুন একটি লঞ্চ প্রবেশকে কেন্দ্র করে ১১ দিন বন্ধ থাকার ২ সেপ্টেম্বর থেকে লঞ্চ চলাচল শুরু হয়। কিন্তু চালুর ছয় দিনের মাথায় আবার বন্ধ হয়ে যাওয়ায় যাত্রীদের পড়তে হচ্ছে দুর্ভোগে।

যাত্রী পরিবহন সংস্থা ও মাওয়া জোনের সহ-সভাপতি লঞ্চ মালিক মো. ইকবাল হোসেন খান জানান, বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান ড. খন্দকার সামসুদ্দোহার সাথে গত রবিবার রাতে সমঝোতার বৈঠকে ৩১টি লঞ্চের রুট পারমিট বাতিল সিদ্ধান্ত শিথিল করার সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু বিআইডব্লিউটিএ’র ট্রাফিক ইনসপেক্টর ৩১টি লঞ্চ চলতে বাধার সৃষ্টি করে। এর প্রতিবাদে এবং রুট পারমিট পুনর্বহালের দাবিতে এই ধর্মঘট শুরু হয়।

লঞ্চ মালিক সমিতির যুগ্ম সম্পাদক আ. রউফ বলেন, কর্তৃপক্ষ ৩১টি লঞ্চে সনদধারী মাস্টার না থাকার দায়ে রুট পারমিট স্থগিত রাখে। অথচ এই ৩১টি লঞ্চের প্রত্যেক মাস্টারেই সনদ রয়েছে। তারপরও এ সব লঞ্চের রুট পারমিট বাতিল করা হয়। আমরা ওই সব লঞ্চের রুট পারমিট ফিরে পেতে আবেদন করি এবং শনিবার অনুমোদন দেয়ার কথা ছিল। অথচ কর্তপক্ষ শনিবার তিনটায় ৩১টি লঞ্চের চলাচলে অনুমতি দেয়া হবে না বলে জানায়। এ কারণে অন্য সকল মালিকেরা বিকেল ৫টা থেকে লঞ্চ চলাচল বন্ধ রাখে।

তিনি বলেন, কর্তৃপক্ষ ৩১টি লঞ্চের রুট পারমিট দিলেই আমরা লঞ্চ চলাচল শুরু করবো।

এব্যপারে শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ইকবাল হোসাইন বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে আমি খোঁজখবর নিচ্ছি।

এছাড়া ‘এমভি শাহ পরান’ লঞ্চটি এই রুটে চলাচল নিয়ে গত ২২ আগস্ট থেকে যে সঙ্কট হয়েছিল। সেটি সমাধানেও জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে। শাহ পরান চালু করলে আরও ৫টি লঞ্চ এই রুটে প্রবেশের চাপ রয়েছে বিভিন্ন মহল থেকে। বর্তমানে এই রুটে  ৮৬টি লঞ্চ চলাচল করছে।

বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান ড. খন্দকার সামসুদ্দোহা জানান, সার্ভে করে যেগুলো ত্রুটি দেখা গেছে তা নিরসেরনের জন্য বলা হয়েছে লঞ্চ মালিকদের। জানমালের স্বার্থে এসব ত্রুটি দূর করেই রুট পারমিট বহাল করা হবে। সিদ্ধান্তটি আগামী ২-১ দিনের মধ্যেই সমাধান করা হবে। শিবচর এলাকা থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য ও হুইপ লিটন চৌধুরী দেশের বাইরে রয়েছেন। তিনি ফিরলেই এই রুটে নতুন লঞ্চ প্রবেশের সিদ্ধান্ত নেয়া যাবে ২-১ দিনের মধ্যেই।-(মাথাভাঙ্গা এম.এম)

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *