ভরা মরসুমেও সাগরেইলিশের দেখা নেই

 

 

স্টাফ রিপোর্টার: ভরা মরসুমেও সাগরেমাছের দেখা নেই। ফলে অভাব অনটনে মানবেতর জীবনযাপন করছে সীতাকুণ্ড উপকুলেরজেলেরা। আগের ঋণের বোঝা শেষ না করতে নতুন করে ঋণ নিচ্ছে সবর্স্ব বন্ধকদিয়ে।বাঁশবাড়িয়ার বোয়ালিয়াকুল,বাড়বকুণ্ড,কুমিরা ঘাট,সোনাইছড়ির ঘোড়ামরা ও ভাটিয়ারী এলাকায় গিয়ে জেলেরা জানায়, গতবছরওএদিনে প্রচুর মাছ তাদের জালে ধরা পড়েছিলো। কিন্তু এবছর এখনো মাছের দেখানেই। সাগরে যেতে তাদের ইচ্ছা হয় না। সাগরে গিয়ে তারা তাদের খরচ তুলতেপারছেনা। শুধুমাত্র পূর্বপুরুষের পেশা ও ঐতিহ্যকে ধরে রাখতেই এখন সাগরেযাচ্ছে তারা।ভাটিয়ারী এলাকা জেলে সিতারাম দাশ জানান,ইলিশমরসুমের শুরু ৫০ হাজার টাকা দাদন নিয়েছিলেন তিনি। এখন দাদনদারের চাপে তাকেসাগরে যেতে হয়। সাগরে গেলেও দাদন পরিশোধ করা যাচ্ছে না। দাদনের পরিমাণ দিনদিন বাড়ছে।পাক্কা মসজিদ এলাকার জেলে রবিন দাশ বলেন,১৫টি জাল সন্দ্বীপ চ্যানেলে বসান তিনি। শুক্রবার এ জালগুলোতে ৫-৭ কেজিছোটমাছ ও ১০-১২টি ইলিশ মাছ ধরা পড়েছে। মাছগুলো ৩ হাজার টাকা বেশি বিক্রিহবে না। অথচ এ মাছ ধরতে তার খরচ হয়েছে ৬ হাজার টাকারও বেশি।সীতাকুণ্ডউপজেলা মৎস কর্মকর্তা তপন মজুমদার বলেন, সীতাকুণ্ডে উপকুলে পানি দূষিত হয়েগেছে। সন্দ্বীপ চ্যানেলে মাছ তেমন পড়ার সম্ভাবনা নেই। গভীর সাগরে যেতেহবে।

Leave a comment

Your email address will not be published.