বিচার বিভাগ নিয়ে এবার মুখ খুললেন আইনমন্ত্রী ও অ্যাটর্নি জেনারেল

 

স্টাফ রিপোর্টার: মীর কাসেম আলীর আপিল মামলার ব্যাপারে প্রধান বিচারপতিকে নিয়ে খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম ও মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হকের বক্তব্যকে তাদের নিজস্ব মতামত বলে মন্তব্য করেছেন আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক। প্রধান বিচারপতিকে নিয়ে দু মন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া চাওয়া হলে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আমি তো আর ছাপোষা উকিল ছিলাম না। ভালো ভালো গুরুত্বপূর্ণ মামলাগুলো সব আমার হাত দিয়ে করা। আমি বারে থাকতেও বিচারাধীন বিষয়ে মুখ খুলতাম না। এখনো বিচারাধীন বিষয়ে আমি কোনো মন্তব্য করি না। গতকাল সকালে রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন আয়োজিত এক মতবিনিময় সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, আমি যখন আইনজীবী ছিলাম সাব জুডিস ম্যাটারে (বিচারাধীন বিষয়) আমি কখনো কোনো মন্তব্য করিনি। এখন দেশের আইনমন্ত্রী। আজ সাব জুডিস ম্যাটারে  কোনো মন্তব্য করলে দেশে একটা ব্যাড প্রিসিডেন্ট হয়ে দাঁড়াবে। সে জন্য আমি মন্তব্য করবো না। আমি এটুকু বলতে পারি যার যার ব্যক্তিগত মতামত, ওনারা মতামত প্রকাশ করতে পারবেন। তিনি বলেন, মামলাটা আদালতে বিচারাধীন। আমি বাংলাদেশের আইনমন্ত্রী যদি কোনো হ্যাঁ বা না বলি, কোনো মন্তব্য করি, তাহলে মামলার ওপর প্রভাব পড়বে। সারা বিশ্বে এটা নিয়ে কথা বলবে, একটা আলোড়ন তৈরি হবে। খাদ্যমন্ত্রীর বক্তব্য আদালতকে প্রভাবিত করবে কি-না এমন প্রশ্নে আইনমন্ত্রী বলেন, সেটা তাকেই জিজ্ঞেস করুন। এদিকে বিচার বিভাগ ও প্রধান বিচারপতির সম্পর্কে বিতর্কিত মন্তব্যে যুদ্ধাপরাধের বিচার প্রশ্নবিদ্ধ হবে বলে মন্তব্য করেছেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। তিনি বলেন, বিচারালয়ের প্রতি, প্রধান বিচারপতির প্রতি এ ধরনের কোনো উক্তি না করার জন্য আমি সবার প্রতি আহ্বান জানাবো। এ ধরনের উক্তি করলে আমাদের ন্যায়বিচার ব্যাহত হবে এবং আমরা যুদ্ধাপরাধের মামলার  যে স্বার্থকতার সঙ্গে এগুলো সম্পন্ন করে আসছি, সেগুলো প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে যাবে। গতকাল নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন। প্রধান বিচারপতি সম্পর্কে ওই বক্তব্য সম্পূর্ণরূপে অসাংবিধানিক উল্লেখ করে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, আমাদের সর্বোচ্চ আদালতে  যেসব আপিলের শুনানি হয়, এগুলো যে কোনো একজন বিচারপতির সিদ্ধান্তে ঠিক হয় না। এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় সবার মতামতের আলোকে। তিনি বলেন, কাজেই অপেক্ষা করুন, বিচার বিভাগের প্রতি সবার আস্থা রাখুন। কারণ বিচার বিভাগ রাষ্ট্রের একটি প্রধান একটি অঙ্গ। এটাকে বিতর্কিত না করাই সবচেয়ে ভালো। অন্যদিকে সরকার বিচার বিভাগকে খেয়াল-খুশিমতো নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ করেছেন সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি খন্দকার মাহবুব হোসেন। তিনি বলেন, একটি বিচারাধীন মামলার ব্যাপারে সরকারের দুজন উচ্চ পদস্থ মন্ত্রী যে বক্তব্য দিয়েছেন তা স্বাধীন বিচার ব্যবস্থার জন্য হুমকিস্বরূপ। প্রধান বিচারপতি ও মীর কাসেমের মামলা নিয়ে সরকারের দু মন্ত্রীর বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন। গতকাল সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে এর আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে সমিতির সম্পাদক মাহবুব উদ্দিন খোকন ওই দু মন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করেন। খন্দকার মাহবুব বলেন, আমরা মনে করি যেহেতু সংবিধান অনুযায়ী বিচারবিভাগ সম্পূর্ণ স্বাধীন সেক্ষেত্রে এরূপ ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্য বিচার বিভাগকে সম্পূর্ণভাবে অবজ্ঞা ও অবমাননা করার শামিল। তিনি বলেন, এ ব্যাপারে বিচার বিভাগের ভাবমূর্তি রক্ষায় সর্বোচ্চ আদালত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *