নেহালপুরের হারুন হাসপাতালে ভর্তি : প্রথম স্ত্রীসহ তার লোকজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গা জেলা সদরের নেহালপুরের হারুন অর রশিদকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাকে তার বাড়ির উঠান থেকে তুলে নিয়ে বাড়ির অদূরবর্তী নদীর তিরে মেরে ক্ষেতের মধ্যে ফেলে রাখা হয় বলে জানিয়েছেন, হারুন অর রশিদ। তিনি বলেছেন প্রথম স্ত্রীর ভাড়াটে লোকজনই এ ঘটনা ঘটিয়েছে।
হারুন অর রশিদ নেহালপুরের সিরাজুল ইসলামের ছেলে। তাকে হাসপাতালে ভর্তির সময় সাথে থাকা স্ত্রী শিল্পী খাতুন বলেছে, ফজরের নামাজ পড়ে বাড়ি ফেরার সময় বাড়ির উঠোনে কয়েকজন লোক ওকে ধরে নিয়ে যাচ্ছে দেখে ছুটে যাই। ওরা আমাকেও মারে। হারুন অর রশিদকে তুলে নিয়ে যায়। চিৎকার করি। প্রতিবেশীদের সাথে নিয়ে বাড়ির পাশের নদীর ধারের ক্ষেত থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসি। হারুন অর রশিদ অভিযোগ করে বলেছে, দ্বীননাথপুরের সাইফুল, রশিদ, মহাবুলসহ কয়েকজন আমার প্রথম স্ত্রীর কথা মতো এসে আমাকে আমার বাড়ির উঠান থেকে তুলে নিয়ে খুন করার চেষ্টা করে। বেধে রেখে পালিয়ে যায়।
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন হারুন এসব তথ্য দিয়ে অভিযোগ করলেও প্রকৃত ঘটনা কি তা নিশ্চিত করে জানা সম্ভব হয়নি। তবে গ্রামের একসূত্র বলেছে, প্রথম স্ত্রীসহ তার লোকজনকে মামলায় ফাঁসানোর জন্যই এ ধরনের অভিযোগ কি-না তা ক্ষতিয়ে দেখতে হবে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *