নাম তার ‘কেইহানাইকুকাউয়াকাহিহুলিহিকাহাউনায়েলে’!

মাথাভাঙ্গা মনিটর: ‘কেইহানাইকুকাউয়াকাহিহুলিহিকাহাউনায়েলে’! শব্দটি একসাথে উচ্চারণের সময় দম বন্ধ হওয়ার উপক্রম হতে পারে কারও কারও! যদিও এতো বড় নাম নেয়াকে অনেকটা চুলকুনি বলেও মন্তব্য অনেকের। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের জনৈক নারীর এ নাম ধরে প্রতিনিয়ত ডাকতে হয় তার স্বজন কিংবা প্রতিবেশীদের। কারণ তার কোনো ডাক নাম অথবা সংক্ষিপ্ত নামও নেই। আর এ কারণেই ৩৬টি বর্ণ ও ১৯টি সিলেবলের সমন্বয়ে গঠিত এ নাম দেখে আঁতকে উঠেছেন যুক্তরাষ্ট্রের দ্বীপ রাজ্য হাওয়াইয়ের সড়ক যোগাযোগ বিভাগের কর্মকর্তারা। গাড়ি চালানোর সময় ড্রাইভিং লাইসেন্স চেক করতে গিয়ে দেখা যায় ওই নারীর কোনো সংক্ষিপ্ত নাম নেই এবং এটাই তার লাইসেন্সের নাম। এ জন্য তার লাইসেন্সের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করেন পুলিশ সদস্যরা। কারণ হাওয়াই রাজ্যের কম্পিউটারে ৩৫টির বেশি বর্ণের সমন্বয়ে গঠিত শব্দ ধারণ করার ক্ষমতা নেই! তবে ওই নারী প্রশাসনকে বোঝাতে চেষ্টা করেন, বৈধ লাইসেন্স পেতে তিনি সবরকমের চেষ্টা চালিয়েছেন, কিন্তু তাকে এ নামে লাইসেন্স দেয়া হয়নি। প্রশাসন ভুয়া লাইসেন্স বাতিল ও তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পদক্ষেপ নিতে গেলে প্রচারণায় নামেন ওই নারী। অগত্যা বাধ্য হয়ে কম্পিউটার সিস্টেম পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নেয় রাজ্য সরকার। হাওয়াই সরকারের পক্ষ থেকে ওই নারীকে আশ্বাস দেয়া হয়েছে, চলতি বছরের শেষ দিকে এই পূর্ণ নামেই ড্রাইভিং লাইসেন্স পাবেন তিনি।

Leave a comment

Your email address will not be published.