দেশে শিক্ষার মানোন্নয়নে আ.লীগ সরকার অগ্রণী ভূমিকা রাখছে

?????????????

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গার কুলপালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক পুরস্কার বিতরণী ও শাহ আব্দুল বাতেন বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আক্তার হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় সংসদের হুইপ জেলা আ.লীগ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা আ.লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. আব্দুল মালেক, জেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি রুবাইত বিন আজাদ সুস্তির, সিএইচআর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইউনুচ আলী, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা দেলোয়ার হোসেন দিপু ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোজাম্মেল হক। আলমগীর কবির শিপলুর সঞ্চালনায় উপস্থিত ছিলেন চিৎলা ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল ইসলাম মন্টু, বীর মুক্তিযোদ্ধা ছানোয়ার হোসেন, মোহাম্মদ আলী, তুঘরিল খান, মফিজ উদ্দিন মণ্ডল, সামছদ্দিন মল্লিক প্রমুখ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সহকারী শিক্ষক রইচ উদ্দিন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাতীয় সংসদের হুইপ জেলা আ.লীগ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন এমপি বলেন, দেশের উন্নয়নে বর্তমান সরকারের বিকল্প নেই। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে। দেশের শিক্ষার মানোন্নয়নের জন্য প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদেরই সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রাখতে হবে। কারণ প্রাথমিক পর্যায়েই একজন শিক্ষার্থীর মেধার বিকাশ ঘটে। আর শিক্ষার মান বাড়লে শিক্ষকদেরও সব দাবি পর্যায়ক্রমে মেনে নেবে সরকার। প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মানসম্পন্ন পাঠদানের মাধ্যমে একটি আদর্শ জাতি গঠন করা সম্ভব। এজন্য প্রাথমিক পর্যায়ের শিক্ষকদের দক্ষতা বাড়াতে হবে। যারা আমাদের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান বিনষ্ট করতে চায় তাদের এ সমাজ থেকে প্রতিহত করতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। এ দেশের তরুণরা আগামী দিনের শক্তি। তাদের মেধাকে কাজে লাগাতে পারলে সমাজ থেকে সব অনাচার অবিচার দূর হয়ে যাবে। এগিয়ে যাবে দেশ। গ্রামের মানুষের উন্নয়নে বর্তমান সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। একটি মহল সরকারের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালিয়ে দেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে চায়। কিন্তু দেশের মানুষ তাদের ধিক্কার জানিয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন জেলা আ.লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. আব্দুল মালেক, জেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি রুবাইত বিন আজাদ সুস্তির, সিএইচআর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইউনুচ আলী, চিৎলা ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল ইসলাম মন্টু, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা দেলোয়ার হোসেন দিপু, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোজাম্মেল হক প্রমুখ।
পরে প্রতি বছরের ন্যায় বিদ্যালয়ের ৪১ জন মেধাবী শিক্ষার্থীদের শাহ আব্দুল বাতেন বৃত্তি প্রদান করেন উদ্যোক্তা শাহ আব্দুল বাতেন। সমাপনী পরীক্ষায় ভালো ফলাফলকারী এবং বার্ষিক পরীক্ষায় প্রথম থেকে চতুর্থ শ্রেণিতে মেধাস্থান অধিকারীদের পুরস্কার বিতরণ করা হয়। সবোর্চ্চ উপস্থিতি পুরস্কার পেয়েছে বিভিন্ন শ্রেণির ৮জন শিক্ষার্থী এবং প্রতিবারের মত এবার বিদ্যালয় এলাকা থেকে নির্বাচিত শ্রেষ্ঠ মাতা পুরস্কার পেয়েছেন শাকিলা বেগম যিনি অনেক ত্যাগ স্বীকার করে ছেলে মেয়েদের শিক্ষিত করে তুলেছেন।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *