দামুড়হুদা ও জীবননগর বিএনপির মিছিলসহ আলোচনাসভা

চুয়াডাঙ্গা বিএনপির ৪টি অংশের পৃথক বিক্ষোভ মিছিল

 

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গা বিএনপির ৪টি অংশ গতকাল শনিবার পৃথক স্থান থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। এছাড়া জীবননগর ও দামুড়হুদায় বিএনিপি বিক্ষোভ মিছিল কর্মসূচি পালন করেছে।

কালো পতাকা মিছিলে বাধা ও হামলার  প্রতিবাদে কেন্দ্রঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে ১৯ দল। দেশের জেলা-উপজেলা ও মহানগরে এ কর্মসূচি পালনের আহ্বান জানানো হয়। অনুমতি না পাওয়ায় রাজধানীতে সমাবেশ করতে পারেনি বিরোধী জোট। আজ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করার অনুমতি চেয়ে পুলিশের কাছে আবেদন করা হয়েছে ১৯ দলের পক্ষ থেকে। এদিকে গতকাল বিএনপির দপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদ বলেন, রোববার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের অনুমতি চেয়ে আবেদন করা হয়েছে। আশা করছি, সরকার আমাদেরকে সমাবেশের অনুমতি দেবে।

কালো পতাকা মিছিল ও গণতান্ত্রিক আন্দোলনে বাধা দান, অবৈধ সংসদ বাতিল, আলোচনার মাধ্যমে নতুন তফশিল ঘোষণা এবং নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে চুয়াডাঙ্গা জেলা বিএনপি বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদসভা করে। গতকাল সকাল সাড়ে ১১টায় জেলা বিএনপির কার্যালয় থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে জেলা বিএনপির কার্যালয়ে এসে প্রতিবাদসভা অনুষ্ঠিত হয়। সভাপতিত্ব করেন জেলা বিএনপির সহসভাপতি এম জেনারেল ইসলাম। বক্তব্য রাখেন- জেলা বিএনপির যুগ্মসম্পাদক ওয়াহেদুজ্জামান বুলা, দপ্তর সম্পাদক অ্যাড. আ.স.ম. আব্দুর রউফ, সদর পৌর বিএনপির সভাপতি শহিদুল ইসলাম রতন, সাধারণ সম্পাদক মজিবুল হক মালিক মজু, সাংগঠনিক সম্পাদক নাজমুস সালেহীন লিটন, দর্শনা পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মহিদুল ইসলাম, মোকাররম হোসেন, রবিউল ইসলাম লিটন, আইয়ুব মল্লিক, নজরুল ইসলাম চেয়ারম্যান, আসাদুজ্জামান, আশরাফ বিশ্বাস মিল্টু, মো. ফজলুর রহমান, স্বাধীন অধিকারী, ফারুক মল্লিক, মহিদুল ইসলাম, গোলাম কিবরিয়া তিস্তা, মামুন রেজা সবুজ, আরিফুজ্জামান পিন্টু, আতিয়ার রহমান লিটন, এমএ তালহা, রাজীব খান, মাহবুবুল হক খোকন, রবিউল ইসলাম, মিলন মিয়া, আব্দুস ছাত্তার, শাহনেওয়াজ কালু, আব্দুল মজিদ, আহসান হাবীব মুক্তি প্রমুখ।

প্রতিবাদসভায় বক্তারা বলেন, গণতান্ত্রিক আন্দোলনে সরকারের বাধা দান, ঢাকায় কালো পতাকা মিছিলে বাধা দান প্রমাণ করে এ সরকার স্বৈরাচারী সরকার। এই সরকার ভোটারবিহীন নির্বাচনের সরকার। বক্তারা অবিলম্বে নতুন নির্বাচন দিয়ে এ অবৈধ সরকার হটিয়ে একটি গণতান্ত্রিক সরকার গঠনের মাধ্যমে মানুষের আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটানোর জন্য জোর আহ্বান জানান।

জেলা বিএনপি একাংশের কার্যালয় চুয়াডাঙ্গার কেদারগঞ্জে বিকেলে বিক্ষোভ ও প্রতিবাদসভার আয়োজন করা হয়। সভাপতিত্ব করেন পৌর জোটের আহ্বায়ক সিরাজুল ইসলাম মনি। প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপি নেতা অ্যাড. এমএম শাহাজাহান মুকুল। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিএনপি নেতা খাজা আবুল হাসনাত, মাহমুদুল হক পল্টু, রউফুন নাহার রীনা, আবুল আলা সামসুজ্জামান, অ্যাড. হেদায়েত হোসেন আসলাম, অ্যাড. মসলেম উদ্দীন, অ্যাড. আসাদুজ্জামান, আব্দুর রউফ, মফিজুর রহমান জোয়ার্দ্দার, আওরঙ্গজেব মোল্লা বেল্টু, সাইফুর রশিদ ঝন্টু, শাহাজান খান, নূর নবী সামদানি, মসিউর রহমান মিলন, নাসির উদ্দীন, আসাবুল, সালাম, পিন্টু, মোবারক প্রমুখ।

অপরদিকে গতকাল কোর্টমোড়স্থ জেলা বিএনপির কার্যালয়ে মো. জাহাঙ্গীর আলম সমর্থিত গ্রুপের পক্ষে বিক্ষোভ প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সভাপতিত্ব করেন আইনুর হোসেন পচা। প্রধান অতিথি ছিলেন কেন্দ্রীয় মৎস্যজীবী দলের যুগ্মসম্পাদক চুয়াডাঙ্গা জেলা মৎস্যজীবী দলের সভাপতি আবু বক্কর সিদ্দিক বকুল। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা মৎস্যজীবী দলের সাধারণ সম্পাদক কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য ওহিদুল ইসলাম ওহিদ, আলমডাঙ্গা থানা মৎস্যজীবী দলের আহ্বায়ক জেলা তৃণমূল দলের যুগ্মআহ্বায়ক মশিউর রহমান বাবু, জেলা তৃণমূল দলের আপেল উদ্দীন পিন্টু প্রমুখ।

‌এদিকে গতকাল শনিবার বিকেল ৩টায় কোর্টমোড়স্থ জেলা বিএনপির কার্যালয়ে জেলা তৃণমূল দলের যুগ্মআহ্বায়ক মশিউর রহমান বাবুর সভাপতিত্বে ৭ম জাতীয়তাবাদী তৃণমূল দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে কেক কেটে উদযাপনসহ আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয়তাবাদী তৃণমূলদলের সহসভাপতি মো. আবুবক্কর সিদ্দিক বকুল। প্রধান বক্তা ছিলেন জেলা বিএনপির সহসভাপতি আইনুর হোসেন পচা। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা মৎস্যজীবী দলের সাধারণ সম্পাদক কেন্দ্রীয় সদস্য ওহিদুল ইসলা ওহিদ, আপেল উদ্দীন, শহীদ, উদ্দীন, মজনুল হক বিস্কিট, জাহিদুল ইসলাম নান্টু, আব্দুর রাজ্জাক, শাহিদ আলী, রওশন, সানোয়ার হোসেন, বাবলু, কাবিল উদ্দীনসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন পৌর তৃণমূল দলের আহ্বায়ক শাহিদ আলী।

চুয়াডাঙ্গা জেলা বিএনপি একাংশ কর্নেল কামরুজ্জামান গ্রুপ সমর্থিত নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল করেন। গতকাল শনিবার বিকেলে শহরের পান্না হলের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি বের হয়। মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে একই স্থানে গিয়ে শেষ হয়। এ সময় সেখানে বক্তব্য রাখেন- জেলা বিএনপির সাংগাঠনিক সম্পাদক সরদার আলী হোসেন, প্রচার সম্পাদক অ্যাড. আব্দুল ওহাব মল্লিক, সহপ্রচার সম্পাদক রেজাউল করিম মুকুট, স্বেচ্ছাসেবক দলের সহসভাপতি মহাসিন আলী বিশ্বাস ও যুবদল নেতা শরিফুল আলম বিলাস। বক্তব্য রাখেন- আলমগীর কবির, শহিদ হোসেন লাডু, আকু, বাবু, জাকির, আমু, কালু, জাহিদ হাসান, ফারুক হোসেন দিলু, দিপু, ছাত্রনেতা রাকিব হাসান তাজ, পিয়াস, শরিফ প্রমুখ।

দামুড়হুদা অফিস জানিয়েছে, গতকাল শনিবার বিকেল ৪টায় সোনালী ব্যাংকের সামনে আ. রহমান মালিথার চাতালে প্রতিবাদসভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা বিএনপির সহসভাপতি তোফাজ্জেল হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি ফজলুর রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন ১৯ দলের আহ্বায়ক লিয়াকত আলী শাহ, থানা আমির নায়েব আলী, সেক্রেটারি আ. গফুর, উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মোকারম হোসেন, রফিকুল হাসান তনু, আ. রহমান মালিথা প্রমুখ।

জীবননগর ব্যুরো জানিয়েছে, জীবননগরে বিক্ষোভ মিছিল করেছে উপজেলা বিএনপির একাংশ বাবু খান গ্রুপ। গতকাল শনিবার সকালে উপজেলা বিএনপির একাংশের সভাপতি আক্তারুজ্জামানের নেতৃত্বে দলীয় কার্যালয় থেকে এ বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। বিক্ষোব মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে নিজ কার্যালয়ে ফিরে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। ছাত্রদল নেতা সাইফুল ইসলামের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন খাঁন খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, সহসভাপতি জাফর আলী মিয়া, সাহাজাহান আলী, বাঁকা কামালউদ্দিন সিদ্দিকি, শহিদুল ইসলাম, উথলী সেলিম রেজা প্রমুখ।

Leave a comment

Your email address will not be published.